মুন্সিগঞ্জে সমকামী যুবককে পীর বানিয়ে রমরমা ব্যাবসা, বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী​​​​​​​

হাসানুল ইসলাম: কথিত পীরের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ মুন্সীগঞ্জবাসী। প্রথমে তেল আর পানি পড়ায় সীমাবদ্ধ থাকলেও ধীরে ধীরে গানের আসর ঘীরে ব্যবসায় গড়িয়েছে তার কর্মকাণ্ড। চিকিৎসার নামে সমকামীতা আর অবৈধ মেলামেশার অভিযোগ উঠেছে ভন্ড সজীব পীরের বিরুদ্ধে। কুসংস্কারচ্ছনতার কারনে বান মারা আর কুফরির ভয়ে কিছু বলেনা ভুক্তভোগীরা। এছাড়া এলাকার প্রভাবশালী ও সন্ত্রাসী বাহিনির ভয়তো রয়েছেই।

সরেজমিনে রাত ১২.৩০ মিনিটে পরিদর্শনে দেখা যায়, জমজমাট গানের আসরে মশগুল আশেকানরা, রাতভর জলসায় অংশগ্রহণ মনস্কামনা পূরণে। মুন্সীগঞ্জ সদরের কথিত পীর সজীব ভক্ত আর অনুসারী বেষ্ঠিত হয়ে সাজিয়ে বসেছে রমরমা ব্যবসা। তেল আর পানি পরায় যেকোনো মুশকিল আহসান সমাধানে গ্যারান্টি তার। রাতভর গান বাজনা বাজিয়ে নাচ গানের আসর চললেও এলাকার কেউ তার ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পায়না।

ভন্ড সজীব পীরের ভক্তদের কাছে জানা যায় পীরের দরবারে আসলে যেকোন সমস্যার সমাধান পাওয়া যায়। পীরের দরবারে কোন সমস্যার কথা বলতে হয়না। অন্য আর এক ভক্ত আবার জানালেন ভন্ডপীরের অদ্ভুত ডাক্তারী ক্ষমতা সম্পর্কে। তার ভাষ্যমতে তার বেশ কয়েকটি গরু রোগে মারা যাচ্ছিল, বাংলাদেশের কোন চিকিৎসক এর চিকিৎসা করতে পারছিলনা। পীর সাহেব তার বাড়ীতে একবার ঘুরে আসার সাথে সাথে তার গরুর সব রোগ ভাল হয়ে যায়। স্থানীয় সচেতন ব্যক্তিবর্গের অভিযোগ সমকামী এই সজীবকে পীর বানিয়ে ব্যবসা করছে একটি চক্র। এ বিষয়ে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি এ অভিযোগ জানান।

স্থানীয় লেখক ও সংগঠক আহমেদ বুলবুল সুমন বলেন- সজীব দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকায় পানি আর তেল পরা দিয়ে মানুষকে প্রতারিত করে আসছিল। এছাড়া সে এলাকার উঠতি বয়সী কিশোরদের নিয়ে সমকামিতায় লিপ্ত হয়। এ ব্যাপারে তার কমিটিকে জানালেও কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় মোঃ শাহিন মিয়া জানান, সজীব দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকার ছোটছেলেদের নিয়ে ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ড করে আসছে। তার এই কর্মকাণ্ড যত দ্রুত সম্ভব বন্ধ করা দরকার।

মহাকালী ইউনিয়ন এর ইসলামিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ জানান, সজীব ছোটবেলা থেকে কোন ইসলামী শিক্ষা গ্রহণ করেনি। যার কোন সূরা জানা নাই সে কিভাবে পানি পড়া দেয় তা আমার জানা নাই। এবং সে যা করছে তা সম্পূর্ণ ইসলাম বিরোধী কর্মকাণ্ড।

এ বিষয়ে ভণ্ডপীরের সমকামী লালসার শিকার কিশোর শিমুল জানায়, ভন্ড সমকামী সজীব পীর দীর্ঘদিন যাবৎ শিমুল এবং তার বন্ধুদের সাথে সমকামী কর্মকান্ড চালিয়ে আসছে। কিন্ত ভয়ে কেউ কিছু বলতে সাহস পায়না।

যার বিরুদ্ধে এত অভিযোগ তার বক্তব্য জানাতে গেলে জানা গেল ভিন্ন কথা। সে জানায় সে কোন সূরা জানেনা কারন সে ছোট বেলা থেকেই এই লাইনে। এই লাইন বিষয়টা বিস্তারিত জানতে চাইলে সে কিছু বলতে পারেনি। ধর্মীয় বিষয়ে শিক্ষা না নিয়ে পানি ও তৈল পড়া দেওয়া প্রসঙ্গে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলে, সে আগে এসব করত কিন্তু এখন এসব বাদ দিয়ে দিয়েছে। আর সমকামীতার অভিযোগ প্রসঙ্গে সমকামী এই পীর জানায়, সে এলাকার উঠতি বয়সী ছেলেদের বাসায় নানান কাজকর্ম করার জন্য ডাকে। তাছাড়া সে সবাইকে ভালোবাসে। তাছাড়া সে প্রতি বছর ওরস করে বিধায় মানুষ হিংসায় এমন করে।

এই ওরস নিয়েও রয়েছে বিস্তর অভিযোগ। প্রতিবছর সমকামী পীরের এই ওরসকে কেন্দ্র করে পীর ব্যাবসার ফান্ডে জমা হয় গরু, ছাগল, মুরগীসহ বিপুল পরিমান অর্থ। সজীবের বাণিজ্যিক কর্মকাণ্ড টিকিয়ে রাখতে একটি কমিটি করা হয়েছে স্থানীয় প্রভাবশালীদের কমিটি সব সময় সজাগ থাকে সজীবের নিরাপত্তায়।

সমকামী পীরের বাটপারী ও ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ড বন্ধে ইউনিয়নের কয়েকশত মানুষ জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করলেও এখন পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেয়নি প্রশাসন। তবে এবিষয়ে ব্যাবস্হা গ্রহণের আশ্বাস প্রদান করেছেম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ফারুক আহমেদ।

এ বিষয়ে সরাসরি প্রতিবাদ করায় হত্যার হুমকি দেয়া হয় লেখক আহমেদ বুলবুল সুমনকে। এবিষয়ে তিনি সদর থানায় জিডি ও পুলিশ সুপার বরাবর জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন করেছেন। লেখক ও সামাজিক সংগঠক আহমেদ বুলবুল সুমন এর উপর হামলার প্রতিবাদ জানিয়েছেন মুন্সিগঞ্জ জেলা সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট নেতৃবৃন্দ এবং কবি সাহিত্যিকগন।

এবিষয়ে উপমহাদেশের প্রখ্যাত লেখক ও বক্তা সালাম আজাদ বলেন – লেখক সুমন ভন্ড পীরের বিরুদ্ধে অবস্হান নিয়ে যে প্রতিবাদ জানিয়েছে তিনি তা সম্পূর্ণ সমর্থন করেন। সমাজের এই ভন্ডপীরকে যতদ্রুত সম্ভব আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসন ও সরকারের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

ভোরের দর্পণ

Leave a Reply