অবশেষে মারাই গেল লৌহজংয়ের বেদে পল্লীর সেই নারী

মো. মাসুদ খান: অবশেষে করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেলে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়া মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার গোয়ালী মান্দ্রা বেদে পল্লীর সুরাতুর নেছা (৬৫) নামের সেই নারী। বৃহস্পতিবার রাত পোনে ৮টার দিকে তিনি মারা যান। এর পূর্বে বুধবার আলতাফ হোসেন (৭০) নামে ওই বেদে পল্লীতে করোনা উপসর্গ নিয়ে এক ব্যক্তি মারা গেছে। তারও পূর্র্বে গত ২৪ মে ঈদের পূর্বের দিন তার ভাই সিরাজ উদ্দিনও(৬৫) করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যায়। তবে তথ্য গোপন করে ওই ব্যক্তিদের লাশ সাতঘড়িয়া কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। পরে এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হলে বৃহস্পতিবার উপজেলা প্রশাসন ছুটে যায় বেদে পল্লীতে। তার তিনটি বাড়ি লক ডাউনসহ বেদেদের অবাধ চলাফেরার কড়াকড়ি আরোপ করে। তারপরেও বিকেলে লকডাউনকৃত ওইসব বাড়ির লোকজনকে গোয়ালী মান্দ্রা বাজারে কেনাকাটা করতে দেখা যায়। এতে স্থানীয় এলাকাবসীর মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাবিরুল ইসলাম খানের নির্দেশে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট, মু. রাশেদুজ্জামান, লৌহজং থানার ওসি মো. আলমগীর হোসাইন স্থানীয় হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. মোজাম্মেল হককে সাথে নিয়ে গোয়ালী মান্দ্রার বেদে পল্লীতে ছুটে যান। তারা বেদে সর্দারদের সাথে পৃথক পৃথক বৈঠক করে মৃত দুই ব্যক্তির বাড়িসহ মৃতপ্রায় সুরাতুন নেছার বাড়ি লক ডাউন করেন। ওই তিন ফ্যামিলিকে বাড়ির বাইরে আসা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সুরাতুন নেছার সোয়াব সংগ্রহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বেদেদের অবাধ চলাফেরায় কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছিল। কিন্ত শেষ পর্যন্ত সুরাতুন নেছাও করোনার উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে।

স্থানীয় বেদে সম্প্রদায়ের মেম্বার এবাদুল কালের কন্ঠকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, সময় উপযোগী নিউজ। ওই নিউজের কারণেই প্রশাসন ছুটে আসায় আমরা অনেকটা আশ্বস্থ্য।

লৌহজং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাবিরুল ইসলাম খান জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মু. রাশেদুজ্জামন, লৌহজং থানার ওসি মো. আলমগীর হোসাইন ও স্থানীয় হলদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হককে পাঠিয়ে তিনটি বাড়ি লক ডাউনের ব্যবস্থা করি। ওই তিনটি পরিবারকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে ত্রাণ দিয়ে সহযোগিতা করা ব্যবস্থা করা হয়। যাতে তাদের খাবারের জন্য বাইরে আসতে না হয়। এছাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে বেদেদের করোনা সোয়ার সংগ্রহে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বলা হয়। স্বাস্থ্য কর্মীরা ইতিমধ্যে বেদে পল্লীতে করোনা’র সোয়াব সংগ্রহ করছে।

অনুসন্থানে জানা যায়, কারো করোনা হলে এ বিষয়ে প্রশাসনকে না জানানোর জন্য বেদে সর্দারদের কড়াকড়ি নির্দেশ ছিল। যদি কেউ প্রশাসনকে জানায়, তবে মোটা অংকের জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে বেদে পল্লীর রীতি অনুযায়ী। তবে এরকম কথা অস্বীকার করেছে বেদে পল্লীর লোকজন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বেদে সম্প্রদায়ের অনেকেই স্বীকার করেছে আলতাফ ও তার ভাই সিরাজ উদ্দিনও করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে। এছাড়া বেদে পল্লীতে অনেকেরই করোনা উপসর্গ রয়েছে।

এদিকে স্থানীরা জানায়, বেদে পল্লীতে অনেকেরই করোনা রয়েছে। কিন্তু তারা তথ্য গোপন করছে। করোনা পরীক্ষা করাতেও তারা স্বাস্থ্য বিভাগের সহযোগিতা নেয়না। উপসর্গ নিয়েই তারা স্থানীয় হাট বাজারে ঘোরাফেরা করছিল। এমনকি তারা মাক্সও ব্যবহার করতে চায়না। তাই স্থানীয়দের মাঝে এ নিয়ে আতঙ্ক বিরাজন করছিল। প্রশাসন সেখানে ছুটে গিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করায় স্থানীয় বাসিন্দাদের মাঝে স্বস্তি ফিরে আসলেও বৃহস্পতিবার বিকেলেও লকডাউনকৃত বাড়ির লোকজনকে বাজারে কেনা কাটা করতে দেখা গেছে। তাই এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

সময়ের কলম

Leave a Reply