গজারিয়ায় প্রেম করে পালিয়ে বিয়ে, অতঃপর লাশ

জুয়েল দেওয়ান: প্রেম করে পালিয়ে বিয়ে করার নয় মাসের মাথায় শশুড় বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে নববধূর লাশ। গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নে লঘুর চর গ্রামে সাদিয়া আক্তার (১৬) নামের এক নববধূর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে সাদিয়ার স্বামী শ্বশুরসহ বাড়ি লোকজন পলাতক। হত্যা নাকি আত্মহত্যা এ নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গত অক্টোবর মাসে গজারিয়া উপজেলার হোসেন্দী ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের মৃত আ. মোতালেব মিয়ার মেয়ে সাদিয়া আক্তারের সাথে ফেসবুকে প্রেমের সূত্র ধরে পার্শ্ববর্তী লঘুর চর গ্রামের আলমগীর হোসেনের ছেলে মো. সাজ্জাদের (১৮) সাথে বিয়ে হয়।

সাদিয়া হোসেন্দী উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলো। বিয়েটি মেয়ের পরিবার মেনে না নিলেও স্বামীর পরিবার একপর্যায়ে মেনে নিয়ে এক সপ্তাহ পর তাদের বাড়িতে তোলে। তবে এনিয়ে শ্বশুর বাড়ির লোকজনের সাথে সাজ্জাদের মনোমালিন্য চলছিল।

শুক্রবার (৫জুন) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সাদিয়ার লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলতে দেখে তার স্বামী সাজ্জাদ হোসেন দরজা ভেঙ্গে ফ্যানে পেঁচানো উড়না খুলে মৃত সাদিয়াকে নদীতে নিয়ে যায়।

পরে নদীতে সাদিয়ার মৃতদেহ ট্রলারে উঠানোর সময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সাজ্জাদ বলে হাসপাতালে নিয়ে যাবে। পরে লোকজন সাজ্জাদকে বাধা দিলে সাদিয়ার মৃতদেহ বাড়ির ওখানে রেখে সাজ্জাদ পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। ঘটনার পর থেকে স্বামী সাজ্জাদ ও শশুর পলাতক রয়েছে।
নিহতের ভাই জুয়েল বলেন, সাজ্জাদ প্রথমে আমার বোন কে মেরে ওড়না দিয়ে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে, পরে ফ্যান থেকে খুলে লাশ ঘুম করার জন্য নদীতে নিয়ে যায়, তার উদ্দেশ্য ছিল নদীতে লাশ ফেলে দিয়ে বলবে আমার বোন বাড়ি থেকে চলে গেছে।

পরে যখন লোকজন দেখে ফেলে আমার বোনের লাশ বাড়িতে এনে সাজ্জাদ পালিয়ে যায়। সাজ্জাদ পরিকল্পিতভাবে আমার বোনকে হত্যা করেছে। আমি আমার বোনের হত্যার বিচার চাই। সাজ্জাদের ফাঁসি চাই।

নিহতের মা মমতাজ বলেন, সকাল ১০টার দিকে অপরিচিত নাম্বারে আমার মোবাইলে আসে, বলে সাদিয়ার মারা গেছে। খবর শোনে বাড়িতে এসে দেখি আমার মেয়ে সাদিয়াকে মেরে ওঠানে শোয়াইয়া রাখে সাজ্জাদ পালিয়ে গেছে।

আমার মেয়ের অন্যত্র বিয়ে ঠিক হলে গত অক্টোবর মাসে জোর করে তুলে নিয়ে বিয়ে করে সাজ্জাদ। তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয় বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

গজারিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইমারাৎ হোসেন জানান, প্রাথমিকভাবে আমাদের ধারণা শ্বাসরোধে মারা গেছে, ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা। ঘটনার পর থেকে সাদিয়ার স্বামী পালিয়ে গেছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply