সিরাজদিখানে তরুণ উদ্যোক্তা আনিছুর রহমান রিয়াদ

সমাজের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে দেশের শিক্ষিত তরুণদের একটি বিশাল অংশ তরুণ উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলছেন। বিশেষ করে গ্রাম অঞ্চলে পোল্ট্রি, মৎস্য ও চাষাবাদসহ সব ধরণের কাজেই অবদান রাখতে শুরু করেছে এসব তরুণরা। তবে তাদের এই পথচলাটা মোটেও সহজলভ্য নয়। পদে পদে বাধার সম্মুখীন হয়ে এসব তরুণ উদ্যোক্তারা এক সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেন। তেমনি এক তরুণ উদ্যোক্তা আনিছুর রহমান রিয়াদ। তার বাড়ী মুন্সিগঞ্জ জেলার সিরাজদিখান উপজেলার মালখানগর ইউনিয়নের কাজীরবাগ গ্রামে। তার পিতা একজন উপজেলা চেয়ারম্যান।

মা একজন ইউপি চেয়ারম্যান। পিতা মাতা চেয়ারম্যান হওয়া স্বত্বেও নিজ উদ্যোগে সফল হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি ৬ বছর পূর্বে স্প্যান থেকে থেকে পড়াশোনা শেষ করে দেশে ফিরে আসেন। বেকার বসে না থেকে প্রথমে তিনি ঢাকাস্থ ইসলামপুরে কাপড়ের ইমপোর্ট এক্সপোর্টের ব্যবসা শুরু করেন। ব্যবসার পাশাপাশি দেড় বছর পূর্বে তার নিজ উদ্যোগে গ্রামের বাড়ীতে গড়ে তুলেছেন গরু, ছাগল, ভেড়া,মুরগী ও কবুতরসহ মৎস্য খামার। প্রথমে তিনি ছোট পরিসরে এ ব্যবসা শুরু করেন।

বর্তমানে তার খামারে দেশী বিদেশী বিভিন্ন প্রজাতির ৩০ টি গরু, ১৫০ টি ছাগল, ৫০০ শতাধিক মুরগী ও ১০০ জোড়া কবুতর পালন করছেন। এছাড়া বিভিন্ন প্রজাতির পশুর খামারসহ মৎস্য খামারও করেছেন তিনি। সেখানে চাষ করছেন বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। আর খামারগুলো দেখাশোনা ও পরিচর্যার জন্য রেখেছেন ৮ জন কর্মচারী। বেকারত্ব দূরীকরণ ও নিজ পায়ে দাড়াতে এসব উদ্যোগ যুবকদের উদ্বুদ্ধ করে সমাজকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন আনিছুর রহমান রিয়াদ।

তিনি বলেন, দেশের যুবকরা বিদেশে যাওয়ার জন্য মরিয়া হয়ে উঠে। আমার মতে যে টাকা দিয়ে যুবকরা বিদেশে যায় সে টাকা দিয়ে দেশে ভালো কিছু করা সম্ভব। দেশের যুবকরা যদি বেকার বসে না থেকে আমার মত উদ্যোগ নিয়ে খামার করে তাহলে অবশ্যই এতে সুফল পাবে। আমার এ উদ্যোগ শুধু নিজের জন্য নয়। আমাকে অনুসরণ করে যেন আর ১০ টা যুবক উদ্বুদ্ধ হয়ে বেকারত্ব দূরীকরণ লক্ষে গবাদী পশুসহ বিভিন্ন খামার করে নিজেদের পায়ে দাড়াতে পারে।

পিপলস নিউজ

Leave a Reply