মুন্সীগঞ্জে মিলেছে বিশ্বসেরা লেগ স্পেনার রশিদ খানের উত্তরসূরি

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমের মিড়াপাড়া দরিদ্র পরিবারের শিশু বাবু, টিভিতে রশিদ খানের খেলা দেখে রপ্ত করেছে রশিদ খানের বর্লিং কৌশল। বাবুর ক্রীড়া নৈপুণ্য দেখে গ্রামের পথ থেকে তোলে এনে স্থানীয় একটি টিমে প্রশিক্ষনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। শুধু তাই নয় বাবুর রশিদ খান হবার স্বপ্ন পূরণ করতে যাবতীয় দায়িত্ব নিয়েছেন ফ্যাশন হাউস আর্টিসান

ইয়াছিন হোসেন বাবু, বয়সে ছোট ও নামে বাবু হলেও, ক্রিকেট রাজ্যের সম্রাট হওয়া টাই এখন যার বড় ইচ্ছে। মুন্সীগঞ্জ সদরের মিরকাদিম পৌর সভার মিরাপাড়া গ্রামের দরিদ্র ফেরিওয়ালা আনোয়ার হোসোনের ছেলে বাবু। হতে চায় বিশ্ব সেরা লেগ স্পিনার রশিদ খানের উত্তরসূরি।

বর্লিংয়ের টার্ন, লাইন ল্যান্থ, হাই আম্প এ্যাকশনে পুরোটাই যেন রশিদ খাঁনকে রপ্ত করেছে বাবু। বাবুর এমন কৃতিত্ব দেখতে মাঠে ভির জমান অনেকে। আর এমন কৌশলী বাবুকে বড় ভাইরা সমীহ করে আদরের সাথে।

বাবুকে গ্রামের গলি থেকে পাঁচ মাস আগে উঠিয়ে এনেছে মিকাদিমের স্বনাম ধন্য ক্রিকেট একাডেমী গ্রীন ওয়েল ফেয়ার সেন্টারের কোচ রনি খান চিতা। গলি থেকে রাজ পথে জায়গা করানো চেষ্টা কোচের। আর নয় বছরের এই বাবুকে প্রতিষ্ঠিত করে তোলতে কম পক্ষে আরো সাত বছর লালন পালনের দায়িত্বটা নিয়েছেন একটি ফ্যাশেন হাউস আর্টসানের মালিক আলী আহাম্মেদ রাসেল।

দরিদ্র পরিবারের বাবুর পাঁচ ভাই বোনের মধ্যে ও তৃতীয়। অভাব অনটনের সংসার। লেখা পড়া করাটাই কষ্ট সাধ্য। তার মধ্যে খেলা ধূলা চর্চা করাটা আকাশের চাঁদ হাতে চাওয়ার মতো। বাবু জানান গ্রামের ছোটদের সাথে খেলতাম, গরীবের সন্তান বলে অনেকে অবহেলা করে দলে নিতে চাইতোনা। এক দিন খেলতে চাঞ্চ পেলাম। সেখান থেকে দেখে আমাকে নিয়ে আসে গ্রীন ওয়েল। গ্রীন ওয়েলে আসতে বা এখানে প্র্যাকটিস করতে মোটেও সাহস পাই নাই। টাকা পাবো কোথায়? কিন্তু আমার সে ভাবনার জায়গাটা পুরোই নিয়ে নিছেন জসি ভাই।

গ্রীন ওয়েলের কোচ চিতা বলেন, ওর বলিং দেখে বিস্মিত হয়েছি। মনে হলো ওকে গড়ে তোলতে পারলে, শুধু বাংলাদেশেই না ক্রিকেট বিশ্বে ওর অবস্থান হতেও পারে নাম্বার ওয়ানে। প্রতিভাবান ছেলেটার প্রতিভা বিকাশের সুযোগটা তৈরী করতে সাহায্য চাই,শেখ জামাল ধান মন্ডি ক্লাবের অল রাউন্ডার এবং মুন্সীগঞ্জ ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মেহরাব হোসেন জসির। জসি বাবুর বলিং এ্যাকশন দেখে মুগ্ধ, পরোক্ষনেই কথা বললেন আর্টিসানের আলী আহাম্মদ রাসেল ভাইয়ের সাথে। রাসেল ভাই সঙ্গে সঙ্গে ওর বরণ পোষনের দায়িত্ব নিতে রাজি হয়ে গেলেন।

জসি মুন্সীগঞ্জ24. comকে বলেন, আমরা মুন্সীগঞ্জের ক্রিকেট উন্নয়নের লক্ষ্যে ক্রিকেট অ্যাসোশিয়েশন বানিয়েছি। প্রতি বছর এই জেলা থেকে বেশ কয়েকজন ক্রিকেটার ঢাকা পাঠানোর চিন্তাটা মাথায় রেখেছি। আর বাবুর বিষয় যদি বলি। বাবুর বর্লিং কৌশল দূর্লভ। এতোটুকু বয়সে এতোটা মেপে কেহ বল ডেলিভারি দিতে পারে বাবুর বল করা না দেখলে আমি কখনো বিশ্বাসই করতাম না। বাবুর প্রতি আমাদের সবার নজর রয়েছে। ওকে তৃতীয় শ্রেণীতে ভর্তি করে দেওয়া হয়েছে। ওর কাজই এখন ক্রিকেট আর লেখাপড়া। জসির মতো আমরাও বাবুর বর্লিং দেখে অবাক হয়েছি। প্রতিবেদন করতে যেয়ে দেখেছি। রোববার দুপুরে টকটকা অসহনীয় রোদে নেটে টানা ১০ ওভার বল করলেন, কোন ফুলটস বা শর্ট পিস কোন ডেলিভারী চোখে পরেনি। মনে হলো বাবু এখন বিস্মিত বালক। ক্রিকেটের আকাশে বাবু হতে যাচ্ছে উজ্জল নক্ষত্র। বাবুর মতো আরো ক্ষুদে প্রতিভাবানদের দায়িত্ব নিতে রাজী আর্টিসান।

Leave a Reply