প্রসংগ – হলুদ সাংবাদিকতা , দুর্মুখদের শেষ অস্ত্র

রাহমান মনি: “হলুদ সাংবাদিকতা” শব্দটা আমাদের সমাজে খুব প্রচলিত একটা শব্দ। যেটা বলতে আমরা সাধারণত মিথ্যা ,অপপ্রচার , কা-পুরুষোচিত সংবাদকেই বুঝে থাকি।

উইকিপিডিয়া সূত্রে হলুদ সাংবাদিকতা হচ্ছে, উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ভিত্তিহীন রোমাঞ্চকর সংবাদ পরিবেশন বা উপস্থাপনাকেই হলুদ সাংবাদিকতা বলা হয়।

এধরনের সাংবাদিকতায় ভালো মতো গবেষণা বা খোঁজ-খবর না করেই দৃষ্টিগ্রাহী ও নজরকাড়া শিরোনাম দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করা হয়।

হলুদ সাংবাদিকতার মূল উদ্দেশ্য হল সাংবাদিকতার রীতিনীতি না মেনে যেভাবেই হউক পত্রিকার কাটতি বাড়ানো বা টেলিভিশন চ্যানেলের দর্শক সংখ্যা বাড়ানো। অর্থাৎ হলুদ সাংবাদিকতা মানেই ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেষণ, দৃষ্টি আকর্ষণকারী শিরোনাম ব্যবহার করা, সাধারণ ঘটনাকে একটি সাংঘাতিক ঘটনা সাংঘাতিক ঘটনা বলে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করা, কেলেংকারীর খবর গুরুত্ব সহকারে প্রচার করা, অহেতুক চমক সৃষ্টি করা ইত্যাদি।

হলুদ সাংবাদিকতা জগতের অন্যতম দুই ব্যক্তিত্ব যুক্তরাষ্ট্রের জোসেফ পুলিৎজার আর উইলিয়াম রুডলফ হার্স্টের মধ্যে পেশাগত প্রতিযোগিতার ফলই যে হলুদ সাংবাদিকতার সৃষ্টি, এই ইতিহাস কমবেশি সকলেরই জানা। আমি সেই ইতিহাস টানছি না। আমার আজকের প্রতিপাদ্য হলুদ সাংবাদিকতার ইতিহাস নয়। তবুও, হলুদ সাংবাদিকতার ইতিহাস জানিয়ে লিখাটির ইতি টানার ইচ্ছা রাখছি ।

কিন্তু বর্তমানে হলুদ সাংবাদিকতা বাক্যটি হয়ে গেছে একশ্রেনী বুর্জোয়াদের মুখের খিস্তি খেউর। কোন সংবাদ এদের স্বার্থের বিরুদ্ধে গেলে বা মনমতো না হলেই এরা সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে তুলেন। এরা পাঠক নয়। সংবাদপত্র পাঠ না করে কিংবা অর্থ না বুঝেই এই ভুমিকায় অবতীর্ণ হন।

ঘটনা কিংবা সংবাদের বিষয়বস্তু নিয়ে নিজেদের শোধরানো নিয়ে তারা যতোটা না ব্যস্ত তার চেয়েও অধিক ব্যস্ত সাংবাদিকের চরিত্র হননে। আর এই ক্ষেত্রে তাদের প্রথম অস্ত্র হচ্ছে, হলুদ সাংবাদিক আখ্যায়িত করা। এর সাথে খিস্তি খেউর হিসেবে অন্যান্য বিশেষণে বিশোষিত করা। কেহবা আবার ইংরেজীতেও‘ইয়োলো জার্নালিস্ট বা জার্নালিজম’ গালি দিয়ে থাকেন। এদের অনেকেই আবার ‘ইয়োলো জার্নালস্ট বা জার্নালিজম’ বাক্যটি সঠিক বানানে লিখতে পারবে কিনা আমি যথেষ্ট সন্দিহান। আর এই সন্দিহান এর কারন বিভিন্ন ক্ষেত্রে তাদের যোগ্যতার প্রমান।

নিরপেক্ষ ব্যক্তি কিংবা নিরপেক্ষ সংবাদ বলতে কোন সংবাদ আছে বলে আমার জানা নেই। প্রতিটি মানুষই কোন না কোন পক্ষ অবলম্বন করবেই। এমন কি সত্যের পক্ষে থাকলেও অপর পক্ষ একে পক্ষপাতিত্ব করার অভিযোগ আনবে।

বস্তুনিষ্ঠ এবং তথ্যনির্ভর সংবাদ পরিবেশনাকে আমরা নিরপেক্ষ সংবাদ বলে ধরে নিই। কিন্তু বস্তুনিষ্ঠ এবং তথ্যনির্ভর সংবাদও কারো না কারোর ব্যক্তি স্বার্থে আঘাত হানতে পারে, আর তখনই ওই সংবাদের মূল প্রতিপাদ্য বিবেচনা না করেই স্বার্থান্বেষী দলটি আঘাত হানে সাংবাদিকের উপর। যতোরকমের অশ্রাব্য ভাষা আছে তার সকলই প্রয়োগ করা হয় ওই প্রতিবেদকের উপর।

প্রতিটি সংবাদও বিশেষ করে সামাজিক কেন্দ্রিক সংবাদগুলো কোন না কোন ঘটনাকে কেন্দ্র করে হয়ে থাকে। এইসব ঘটনাতেও দুইটি পক্ষ জড়িত থাকে। কাজেই ,সংবাদ পরিবেশনে কোন না কোন পক্ষ অসন্তুষ্ট হতেই পারে। হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছুই নয় ।

এই অসন্তুষ্টি প্রকাশে একটি প্রক্রিয়া অবলম্বন করতে হয়। সংবাদ এর প্রতিবাদ হতে পারে , এমনকি কৈফিয়তও চাওয়া যেতে পারে। প্রতিবাদ পাঠানো যেতে পারে। প্রতিকার চেয়ে সবশেষে আইনের আশ্রয়ও নেয়া যেতে পারে।

আবার, ভালো বা খারাপ দুটো নিয়েই আলোচনা কিংবা সমালোচনাও হ’তে পারে। তবে তা অবশ্যই সংবাদ সংশ্লিষ্ট হ’তে হবে। সাংবাদিক কে ব্যক্তি আক্রমন করে নয়। সাংবাদিকের ব্যক্তিজীবন, পারিবারিক জীবন এমনকি তাঁর আত্মীয়স্বজনকে টেনে সাংবাদিক এর চৌদ্দগুষ্টি উদ্ধার করে নয়।

সাংবাদিকরা কারোর দয়ার উপর নির্ভর করে সাংবাদিকতা করেন না। পূর্ব অভিজ্ঞতা, লিখার মান সার্বিক বিবেচনায় সংবাদকর্মীকে নিয়োগ দিয়ে থাকেন সম্পাদক মহোদয়। এ নিয়োগ ছাড়াও সাংবাদিকতা করায় কোন বিধি নিষেধ নেই বলেই জানা। কারন, ফ্রিল্যান্সিং বলতে একটি বাক্য প্রচলিত আছে সংবাদ জগতে।

প্রবাসে নিজ মেধাকে কাজে লাগিয়ে সংবাদ সংগ্রহ করে যোগ্যতা অনুযায়ী লিখেন এবং সম্পাদকের বিবেচনায় উপযুক্ত মনে হলেই কেবল তা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়ে থাকে। পাঠকদের অনুরোধে নয়। প্রকাশ পাওয়ার পর পাঠক তা জানতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং এর সুবিধায় ব্লগ কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও লিখালিখি করে অনেকেই তারকা খ্যাতি পেয়ে যাচ্ছেন রাতারাতি। লিখার বিষয় এবং মানও অনেক উন্নতমানেরও। আবার এই সুযোগ নিয়ে কুরুচিপূর্ণ এবং গালাগাল দিয়ে লিখালিখিও কম হচ্ছে না।

শুধু সাংবাদিকতায় কেন, যে কোন পেশাতেই নৈতিক স্খলন হতে পারে। সেই জন্য ওই পেশা দায়ী নয়। দায়ী ওই ব্যক্তি। কই, অন্যান্য পেশাকে তো বিভিন্ন রঙে রাঙায়িত করা বা অপ্রয়োজনীয় বিশেষণে বিশোষিত করা হয় না। তাহলে সাংবাদিককে কেন বিদ্রূপ ভাষা শুনতে হবে ?

প্রবাসে যারা সাংবাদিকতা করেন তাদের প্রায় সকলেই নিজের খেয়ে বনের মোষ তাড়ানোর মতো করেই করে থাকেন। প্রফেশনাল হিসেবে কেউ নন। আর বাংলাদেশী কোন মিডিয়ার পক্ষে জাপানের মতো দেশে পারিশ্রমিক দিয়ে কুঁড়ে ঘরে হাতি পালার মতো। আমি কাউকে ছোট করার জন্য এই কথা বলছি। এখানে ভুল বুঝাবুঝির অবকাশ নেই। তারপরও যদি কেহ আঘাত পান তার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।

প্রবাসে সাংবাদিকরা কিন্তু যাতায়াত বাবদ খরচটাও নিজ পকেট থেকেই বহন করে থাকেন। দিনক্ষণের হিসেবটা না হয় বাদ-ই দিলাম।

এখন কেহ যদি অর্থের বিনিময়ে কোন সংবাদ প্রচার করাতে চান বা নিজে প্রচার পেতে চান। আর এই সুযোগ নিয়ে কেহ যদি দু’পয়সা হাতিয়ে নেন তাহলে এখানে দোষটা যতটুকু অর্থ গ্রহীতার, ঠিক ততোটুকু দোষ অর্থদাতারও। কিন্তু দোষটি চাপিয়ে দেয়া হয় অর্থ গ্রহীতার উপর।

এক্ষেত্রে যদি প্রশ্ন করা হয়, আপনি দিচ্ছেন কেন ? কারা দিচ্ছেন ? দেয়ার রেওয়াজটা চালু হলো কিভাবে ? আপনি দিচ্ছেন বলেই তো সে নিচ্ছে। দাতা হিসেবে তাহলে আপনি দোষী নন কেন ?

আমি মনে করি অযোগ্যরাই নিজেদের প্রচারের জন্য অর্থের লেনদেন করে থাকেন এবং যাদের নৈতিক স্খলন হয় তারাই কেবল অর্থ গ্রহনের মাধ্যমে নিজ পেশার প্রতি অসন্মান করে থাকেন। তকমা লেগে যায় পুরো সাংবাদিক সমাজের উপর।

তবে একথা ঠিক একেবারে শুন্যকে ফুলিয়ে ফাপিঁয়ে সংবাপত্রের পাতা পূর্ণ করা যায়না। একই সাথে যাদের প্রচার করা হয় তাদের কোন না কোন খুঁটির জোর অবশ্যই থাকে। হয় মেধা ও সাংগঠনিক দক্ষতা, নয় অর্থ ক্ষমতা, নয় পেশী ক্ষমতা, নয়তো রাজনৈতিক ক্ষমতা অথবা বিবিধ ।

এখন যাহাদের কোন কিছুই নেই তারা যখন প্রচার পেতে চায় অথচ পাত্তা পায় না তখন তারা সাংবাদিকদের চৌদ্দ গুষ্ঠি উদ্ধার করে প্রলাপ বকা শুরু করে দেন। এমন কি পা-চাটা উপাধী দিতেও ভুল করেন না। অথচ তারা ভাবেন না যে তারা কোন ভাবেই পা-চাটার ও উপযুক্ত নন। তার চেয়েও তার স্থান অনেক নিচে।

আগেই বলেছি, ভালো বা খারাপ দুটো নিয়েই আলোচনা কিংবা সমালোচনা হতেই পারে। তবে তা হওয়া উচিত কেবলি বিষয়ভিত্তিক এবং গঠনমূলক। প্রকৃত পাঠকগন তাই করে থাকেন। আর যারা প্রকৃত অর্থে পাঠক নন, তারা অশ্রাব্য ভাষা ব্যবহার করে শৃগাল কিংবা কুকুর দলের সাথে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা জানান দেন। কারন, স্বগোত্রদের স্বভাব চরিত্র তাদের চেয়ে ভালো আর কে জানে ?

প্রবাসে এই অভিযোগ আরো বেশী। তারা বুঝেইনা কোনটা সংবাদ আর কোনটা না। ফেসবুক স্ট্যাটাসকেও তারা হলুদ সাংবাদিকতা আখ্যায়িত করে অভিযোগ এনে থাকেন। অথচ যারা এই অভিযোগ করে থাকে তাদের অনেকেই “ইয়োলো জার্নালিস্ট” লিখতে কয়েকটি কলম ভাঙ্গা এবং কয়েক দিস্তা কাগজ নষ্ট করতে পারলেও বাক্যটি আর শেষ করতে পারবে কি না সেই ব্যাপারে আমি যথেষ্ট সন্দিহান। তবুও তারা অহরহ বলে থাকেন। কারন, তারাও যে তাদের স্বগোত্রদের পদাঙ্ক অনুস্মরণ করেন মাত্র ।

তাই , হলুদ সাংবাদিকতা এখন আর সত্যিকার অর্থে সাংবাদিকদের ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেষণ,দৃষ্টি আকর্ষণকারী শিরোনাম ব্যবহার করা, সাধারণ ঘটনাকে একটি সাংঘাতিক ঘটনা সাংঘাতিক ঘটনা বলে প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা করা, কেলেংকারীর খবর গুরুত্ব সহকারে প্রচার করা, অহেতুক চমক সৃষ্টি করাকে বুঝায় না। বুঝায়, স্বার্থান্বেষী মহলের অন্ধকার জগত প্রকাশ করে দিলে, থলের বিড়াল বের করে দিলে কিংবা নিজ স্বার্থের বিরুদ্ধে গেলে বা পছন্দ মাফিক ডেলিভারি না হলে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দুর্মুখদের শেষ অস্ত্র হিসেবে ।

হলুদ সাংবাদিকতার সূচনা ইতিহাস ( উইকিপিডিয়া সূত্রে ) জানিয়ে আজকের লিখার ইতি টানতে চাই ।

সংবাদপত্র জগতে ইয়েলো জার্নালিজম শব্দটি এসেছে ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে। সেই সময়ের দুই বিশ্ববিখ্যাত সাংবাদিকের নাম জড়িয়ে আছে এ ইতিহাসের সঙ্গে। জোসেফ পুলিৎজার এবং উইলিয়াম র‌্যানডল্ফ হার্স্ট লিপ্ত হন এক অশুভ প্রতিযোগিতায়। পুলিৎজার নিউইয়র্ক ওয়ার্ল্ড ক্রয় করেই ঝুঁকে পড়লেন কিছু কেলেঙ্কারির খবর, চাঞ্চল্যকর খবর, চটকদারি খবর ইত্যাদির দিকে। তিনি একজন কার্টুনিস্টকে চাকরি দিলেন তার কাগজে। তার নাম রিচার্ড ফেন্টো আউটকল্ট। ওই কার্টুনিস্ট ‘ইয়েলো কিড’ বা ‘হলুদ বালক’ নামে প্রতিদিন নিউইয়র্ক ওয়ার্ল্ডের প্রথম পাতায় একটি কার্টুন আঁকতেন এবং তার মাধ্যমে সামাজিক অসংগতি থেকে শুরু করে এমন অনেক কিছু বলিয়ে নিতেন, যা একদিকে যেমন চাঞ্চল্যকর হতো, অন্যদিকে তেমনি প্রতিপক্ষকে তির্যকভাবে ঘায়েল করত। জার্নাল এবং নিউইয়র্ক ওয়ার্ল্ডের বিরোধ সে সময়কার সংবাদপত্র পাঠক মহলে ব্যাপক আলোচনার বিষয়বস্তু হয়ে উঠেছিল। এক সময় হার্স্ট পুলিৎজারের কার্টুনিস্ট রিচার্ড ফেন্টো আউটকল্টকে ভাগিয়ে নিলেন তার ‘জার্নাল’ পত্রিকায়। শুধু তাই নয়, মোটা অঙ্কের টাকা-পয়সা দিয়ে পুলিৎজারের নিউইয়র্ক ওয়ার্ল্ডের ভালো সব সাংবাদিককেও টেনে নিলেন নিজের পত্রিকায়। ওদিকে পুলিৎজার তার পত্রিকায় ‘ইয়েলো কিড’ চালাতে শুরু করলেন জর্জ চি লুকস নামে আরেক কার্টুনিস্টকে দিয়ে। লুকসও চালালেন ‘ইয়েলো কিডস’। দু’জনই পত্রিকার কাটতি বাড়ানোর জন্য স্ক্যান্ডাল কেলেংকারি চমকপ্রদ ভিত্তিহীন খবর ছাপা শুরু করলেন প্রতিযোগিতামূলকভাবে। এতে মানগত দিক থেকে দুটি পত্রিকাই ক্রমাগত ক্ষতিগ্রস্ত হতে থাকল। এর ফলে একটা নষ্ট পাঠক গোষ্ঠী গড়ে উঠল, যারা সব সময় স্ক্যান্ডাল বা কেলেঙ্কারি, চটকদারি, ভিত্তিহীন চাঞ্চল্য সৃষ্টিকারী সংবাদ প্রত্যাশা করত। এভাবেই জোসেফ পুলিৎজার এবং উইলিয়াম হার্স্ট দু’জনেই হলুদ সাংবাদিকতার দায়ে অভিযুক্ত এবং ইতিহাসে চিহ্নিত হয়ে রইলেন।

rahmanmoni76@icloud.com

সাপ্তাহিক , জাপান প্রতিনিধি ।।

Leave a Reply