মুন্সীগঞ্জে মিশুকচালক হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন, ঘাতক গ্রেফতার

মুন্সীগঞ্জে ব্যাটারিচালিত মিশুকচালক মো. তুহিন বেপারির (১৪) মরদেহ উদ্ধারের ১৮ ঘণ্টার মধ্যেই আসামি গ্রেফতারসহ হত্যার রহস্য উদ্ঘাটন করেছে সদর থানা পুলিশ।

সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, আমলি আদালত ১-এর বিচারক মুক্তা মণ্ডলের কাছে ১৬৪ ধারায় আসামি মেহেদী (১৫) লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডের বর্ণনা দিয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আনিসুর রহমান জানান, তুহিনের বাবা অজ্ঞাত আসামি উল্লেখ করে সদর থানায় মামলা করলে পুলিশ মূল আসামি মেহেদীসহ রহমান (৭০), জনি (২৮) ও সোহাগকে (২১) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে।

মেহেদী জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে মেহেদী বলেছে, ঘটনার দিন গত মঙ্গলবার সকালে মেহেদী মিশুক চালানো নিয়ে তুহিনের সঙ্গে বাহবিতণ্ডা হয়।

একই দিন সন্ধ্যা ৭টার দিকে তুহিন মিশুক নিয়ে বাসস্ট্যান্ডে যায়। মেহেদী গিয়ে তুহিনকে বলে, আমি তোর সঙ্গে যাব। এ সময় যাত্রী নিয়ে খাসকান্দি যাওয়ার সময় মেহেদীও সঙ্গে যায়।

তুহিন খাসকান্দি থেকে যাত্রী নিয়ে বাংলাবাজার যায়, সেখানে যাত্রী নামিয়ে একটি গাছের নিচে মিশুক রেখে পদ্মার শাখা নদীর দিকে যায় এবং সেখানে দুজনের মধ্যে বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়।

মেহেদী কিল-ঘুষি মেরে তুহিনকে দুর্বল করে মুখ হাত বেঁধে পানিতে ফেলে দেয়। পরে মিশুক নিয়ে চলে আসার সময় দেওয়ানকান্দি এলে ব্যটারির চার্জ শেষ হয়ে এটি রাস্তার পাশে খাদে ফেলে দিয়ে বাড়ি চলে আসে।

নিখোঁজের তিন দিন পর মুন্সীগঞ্জে ব্যাটারিচালিত মিশুকচালক মো. তুহিন বেপারির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। শুক্রবার বেলা ২টার দিকে বাংলাবাজার ইউনিয়নের ভূতারচর এলাকার পদ্মার শাখা নদী থেকে ভাসমান মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত তুহিন মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার হাটলক্ষ্মীগঞ্জ এলাকার মো. মামুন বেপারির ছেলে।

যুগান্তর

Leave a Reply