বিস্মিত আমি – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

প্রতিকী কফিন আর হাজারো হৃদয়ের চিৎকার।
কেউ কি শোনতে পাও? শোন কি? শোনতে পারো? যার দরকার?
বিলাস বহুল জীবনের লাগি নয়, অট্টালিকা পাবার তরে নয়, শুধু বাঁচবার ইচ্ছে টুকো হয়।
১৭ লাখ প্রাণের মায়ায় নিজেদের যোদ্ধা বানিয়েছে, অদৃশ্য শক্রর সম্মুখে দাঁড়িয়ে, দু: সাহসিক কদম বাড়িয়েছে।
এ লড়াই থামবার নয়।
বিস্মিত স্বরে মুন্সীগঞ্জবাবাসী কয়।
চিকিৎসা পেতে লড়াই, জাতির সত্তা কোথা নিয়ে দাঁড়াই?
হে শত বীর, গড়েছো মানব যা মানবিক প্রাচীর।
করেছো প্রতিকী অনশন,
উজাড় করে দিয়ে আত্মা, দিয়ে তোমাদের মন।।
সংকটময় সময়ের এ সংগ্রাম কেউ কখনো কোন দিন দেখেনি আগে।
পৃথিবী থমকে যায়নি কোন দিন, করোনা কালীন যুগ্ধভাগে।
বাঁচতে হলে, চিকিৎসা নিশ্চিত হওয়া চাই,
সে চাওয়া নিয়ে নাগরিক সমন্বয় পরিষদের লড়াই।
করোনা প্রচন্ডভাবে আক্রান্ত জেলায়, পিসিআর ল্যাব নেই, ভেন্টিলেটর নেই, নেই আইসিও ব্যবস্থার চিহৃ।
অনায়াসে, মরন বরণ করেই, হতে হয় ধন্য।
নগন্য জাতি হয়ে কতো কাল বাঁচবো সবে?
ঐতিহ্যে ভরা জেলা, আর কতো ম্লান হবে!
বর্ণে মাখা নীল গগনে, কালো মেঘের পাহাড় দেখেছি,
করোনার থাবায় বাংলা মায়ের মলিন বদনে তা মেখেছি।
মুন্সীগঞ্জের অন্তরীক্ষে সে মেঘেদের দৌড় ঝাঁপ কবিতায় এঁকেছি।
বাঁচবার তরে, লড়াই বারে বারে।
এ লড়াই থেমে যাবার নয়।
আমি চিৎকার করে বলছি,
আমি জোর গলায় বলছি।।
ও আমার প্রিয় জেলা, কেন এতো হেলা?
তোমায় নিয়ে যত্ত ছল ছাতরি খেলা।
এবার আন্দোলন জেগেছে শক্ত বুঁনিয়াতে,
ফিরবে না তোমার ছেলেরা খালি হাতে।
সব হিসেব কড়ায় গন্ডায় বুঝে,
ফিরবে তবে সুখের সাঁঝে।

Leave a Reply