মাদক তল্লাসির নামে ছিনতাই!

মুন্সীগঞ্জ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কিছু সদস্যের বিরুদ্ধে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে হয়রানি এবং মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে সম্মান হানিসহ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে। সর্বশেষ গতকাল মঙ্গলবার জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ৩ সদস্যদের বিরুদ্ধে সবজি বিক্রেতার কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমন ঘটনার শিকার হয়েছেন মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের মালিপাথর মোল্লাবাড়ির আব্দুল কাদির দেওয়ানের ছেলে মো. মরণ (৫০)। ঘটনাটি ঘটে পঞ্চসার ইউনিয়নের ৪নম্বর ওয়ার্ড এশিয়া মিলের সামনে (চৌধুরী বাড়ি সংলগ্ন) এলাকায়।

ঘটনার বিবরণ দিয়ে মরণ অভিযোগ করে বলেন, আমি মাদক ব্যবসায়ী নই, কিন্তু আমি গাঁজা সেবন করি। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে সবজি বিক্রি করার সময় হঠাৎ মটোরসাইকেল যোগে ৩ জন লোক পুলিশ পরিচয়ে এসে বলে, তোদের কাছে গাজাঁ আছে। এই বলে আমাকে ও আমার পাশে থাকা কয়েকজনকে তল্লাশি করে। এ সময় আমার কাছ থেকে কিছু গাঁজা পায় তারা। আমি সবজির পাশাপাশি বিভিন্ন ফল বিক্রি করি। ওই দিন আমার কাছে ফল ও সবজি বিক্রির প্রায় ৪০ হাজার টাকা একটি ব্যাগে ছিল। গাজাঁ পাওয়ার সাথে সাথে আমার টাকার ব্যাগ নিয়ে যায়। একটু দূরে গিয়ে তারা ৪০ হাজার টাকার বিনিময়ে আমাকে ছেড়ে দেওয়ার কথা বললে আমি আস্বীকৃতি জানাই। তারা আমাকে ২ হাজার টাকা দিয়ে বাকী ৪০ হাজার টাকা নিয়ে চলে যায়। ঘটনাস্থল ত্যাগ করার আগে তারা জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সদস্য বলে জানায়।

ঘটনাস্থলে থাকা পুরি সিংগারা বিক্রেতা আমজাদ হোসেন অভিযোগ করে বলেন, আমি সবজি নিতে এসেছিলাম তল্লাশির সময় আমাকে পেয়ে পকেটে থাকা ২৩৪০ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায়।

এ সময় প্রত্যক্ষদর্শীরা তাদের পরিচয় নিশ্চিত করে। এরা হলেন মুন্সীগঞ্জ জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সদস্য মো. ইমদাদ, শাওন ও আমিনুল ইসলাম। টাকার বিনিময়ে আটক বাণিজ্যের আরো অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। কিছুদিন আগে লৌহজং উপজেলার যশলদিয়া প্রজেক্টের দানেশ নামের এক ব্যক্তিকে ১১ পিস ইয়াবাসহ আটক করলে তাকে ৪৬ হাজার টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে ইমদাদ এর বিরুদ্ধে।

এসব অভিযোগের বিষয়ে কথা বললে জেলা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক এএস এএম শাকীব জানায়, আমি ঢাকায় আছি। আমি অফিসে গেলে বলতে পারবো।

এ ব্যাপরে মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সদস্য মো. এমদাদ শাওন-এর নিকট জানতে চাইলে তিনি অভিযানের কথা স্বীকার করে বলেন, সবজি বিক্রেতাকে তল্লাশি করে আমরা তার কাছে কিছু পাইনি। দুই জনকে স্বাক্ষী রেখে আমরা একটি সিজার লিস্ট করে চেলে আসি। কোন ধরণের ছিনতাইয়ের জন্য সরকার আমাদের চাকরি দেয়নি। তাই টাকা ছিনতাইয়ের প্রশ্নই আসে না।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply