অসুস্থ মাকে দেখতে এসে লাশ হলো আফজাল

রিয়াদ হোসাইন: লঞ্চ দুর্ঘটনায় নিহত আফজাল শেখ (৫০)। ময়মনসিংহ জেলা সদরে বসবাস করতেন দুই মেয়ে বৃষ্টি ও বর্ষা আর স্ত্রী রিমা বেগমকে নিয়ে। সেখানে টায়ারের দোকান আছে তার। ধারদেনায় জর্জরিত আফজাল শত প্রতিকূলতার মাঝেও দুই মেয়েকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার স্বপ্ন ছিলো তার।

নিহত আফজালের বাবা মারা গেছেন অনেক আগেই। মা জায়েদা বেগম (৮০) দীর্ঘদিন যাবত শয্যাশায়ী। হঠাৎ করে কিছুদিন আগে মা জায়েদা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে গত শনিবার মাকে দেখার জন্য চলে আসেন মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার বাঘিয়া গ্রামের পৈত্রিক ভিটায়।

পরে সোমবার সকালে মুন্সিগঞ্জের মীরকাদিম কাঠপট্টি লঞ্চঘাট হতে ডুবে যাওয়া লঞ্চ মর্নিংবার্ডে চড়ে ফিরছিলেন ময়মনসিংহ জেলায়। মেয়ের তাকে লঞ্চে চড়তে বারণ করেছিলেন। তাই লঞ্চে চড়ার পর স্ত্রী রিমা বেগম আফজালের মোবাইলে ফোন দিলে সে জানায় বাসে চড়ে ময়মনসিংহ ফিরছে সে।

তবে ওইদিন সকাল ৯টার দিকে ফোন যায় রিমার মোবাইলে একই লঞ্চের বেঁচে যাওয়া যাত্রী আফজালের বোনের ছেলে মাসুদের। সে জানায় আফজাল যে লঞ্চে ছিলো সেটা ডুবে গেছে। বিশ্বাস হচ্ছিলো না রিমার কারণ আফজাল বলেছিলো বাসে চড়ে ফিরার কথা ছিলো। পরে আফজালের মোবাইলে ফোন দিয়ে মোবাইল বন্ধ পায় রিমা।

নিহত আফজালের বড় মেয়ে বৃষ্টি জানান, বাবা বলতো লঞ্চে করে আমাদের মুন্সিগঞ্জ নিয়ে যাবে। আমরা বলতাম না আমরা সাঁতার জানিনা লঞ্চে চড়বো না। আমরা বাবাকে লঞ্চে চড়তে বাড়ন করেছিলাম কিন্তু আমাদের কথা না শুনায় কাল হলো তার।

ছোট মেয়ে বন্যা (১২) জানান, খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠে বাবা আমাদের বাসা হতে মুন্সিগঞ্জে চলে আসে। তাই যেদিন চলে আসে সেদিন বাবার সাথে দেখা ও কথা হয়নি আমার। পরে বাবা যেদিন মারা যায় সেদিন ময়মনসিংহ হতে মুন্সিগঞ্জে আসতে আমাদের রাত হয়ে যায়। বাবার মরা মুখটি ভালো করে দেখতে পারিনি আমি। এই বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন বন্যা।

নিহতের স্ত্রী রিমা বেগম জানান, আমার স্বামী তার দোকানে অনেক ঋণ করে গেছেন। আমার দুটি মেয়ে নিয়ে কোথায় মাথা গোঁজার ঠাই হবে জানিনা।

Leave a Reply