মুখোশ – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

প্রতিদিন হাফসে ওঠতাম, মুখোশ পরাদের অন্তকর্মে।
আমি ক্লান্ত হতেম কুটিলতার মর্মে মর্মে।
সরল জীবন ছেড়ে, ওরা বারে বারে,
জটিলতায় কদম ফেলে।
মানবহীন চলন বলনে, শুপ্ত আক্রোসে বলে।
বোঝা বড় দায়,
বলি হায় হায়। কেন এমনরে হয়!
সুন্দর ধরার বুকে, মানুষ কেন নয়!
আজ সব্বার মুখোশ পরতে হয়।
করোনা যুগ, করোনা থাবার ভয়।
কে নিজেকে বাঁচাতে, বা কে অন্যকে মারতে,
সিদ্ধান্ত লয়েছে মুখোশ পরতে?
সে মুখোশের তফাত, জ্যোৎস্না মাখা,
নাকি অমানিশার রাত?
বড্ড ভাবিয়ে তোলে,
অসহায় মন দোলে, দোদুল্যতায়।
আমি ভাবনায় মরি, কি যেন কি করি?
আমার মুখোশের মানে, সবায় তা জানে,
নিজে এবং অন্যকে বাঁচাতে।।
সে মুখোশধারী, কেন পাতে অাড়ি,
ধ্বংসে সরল পথ, কুটিলতায় নাচাতে!

Leave a Reply