মুন্সীগঞ্জে বিষধর রাসেল ভাইপার সাপের বংশ বিস্তার করার আশঙ্কা

৬ মাসের মধ্যে জেলের চাইয়ে আটকা পড়ল আরও ১টি
কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু : পদ্মা নদীতে ভেসে আসা ভয়ঙ্কর ও বিষধর রাসেল ভাইপার সাপ গত ৪ জুলাই আটকা পড়ে এক জেলের পাতা মাছ ধরার চাইয়ে। মুন্সীগঞ্জ সদর বাংলাবাজারের সর্দারকান্দি গ্রামের পদ্মার শাখা নদীতে বিষধর রাসেল ভাইপার সাপটি আটকা পড়ে। এর আগে ২০১৯ সালের ২৮ নভেম্বর মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের মালিরঅংক গ্রাম থেকে আরও ৩টি বিষধর ফিমেল রাসেল ভাইপার সাপের অবস্থান নিশ্চিত হয় বন্যপ্রানী অপরাধ দমন ইউনিট। এমনকি ওই বিষধর সাপটি কয়েকটি স্থানে বাচ্চা প্রসবের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করার আলামতও পেয়েছিল তারা। গত ৪ জুলাই আরেকটি সাপ উদ্ধারের ঘটনায় ৬ মাসের ব্যবধানে জেলার দুইটি উপজেলায় ২টি বিষধর ফিমেল রাসেল ভাইপার সাপ আটক হয়, একটি পিটিয়ে মেরে ফেলে স্থানীয়রা এবং অপর একটি নিখোঁজ হয়ে পড়ে।

প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে, গত বছর বন্যার পানির সঙ্গে ভেসে আসা একটি ফিমেল রাসেল ভাইপার মুন্সীগঞ্জের পদ্মার চরে বাচ্চা প্রসব করেছিল। ৩টি সাপের আকৃতিগত পাথ্যক্য রয়েছে। গত ২ থেকে ৩ বছর ধরে রাসেল ভাইপার সাপ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দেখা যাচ্ছে। আগে এই বিষধর সাপ সর্ম্পকে মানুষের কোন ধারণা না থাকলেও এখন সাধারণ মানুষ সচেতন হয়েছে।

ঢাকার বন্যপ্রানী অপরাধ দমন ইউনিটের বন্যপ্রাণী পরিদর্শক অসীম মল্লিক জানিয়েছেন, মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে ৩টি রাসেল ভাইপার সাপের উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া যায়। উদ্ধারকৃত বিষধর সাপটির দৈর্ঘ্য ছিল ৪ ফুট। পরে আটক সাপটি ঢাকার আগারগাঁওয়ের বন্যপ্রানী অপরাধ দমন ইউনিটের তত্ত্বাবধানে বন বিভাগের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি আরও জানান, লৌহজংয়ে ৩টি বিষধর রাসেল ভাইপার সাপের মধ্যে একটি উদ্ধার হয়, একটি স্থানীয় এলাকাবাসী পিটিয়ে মেরে ফেলেছে এবং অপর একটি নিখোঁজ ছিল।

ঢাকার বন্যপ্রানী অপরাধ দমন ইউনিটের একাধিক সূত্র মতে, ২০১৮ সালের নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের পদ্মার চর থেকে অজগর সাপ ভেবে একটি রাসেল ভাইপার সাপ ধরে এক ব্যক্তি তার বাড়িতে নিয়ে গিয়েছিলেন। এরপর রাসেল ভাইপারের কামড়ে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। ওই সময় লৌহজং উপজেলায় বিষধর রাসেল ভাইপার সাপ বাচ্চা প্রসবের মাধ্যমে কয়েকটি স্থানে বংশ বিস্তার করে। স্থাণীয় গ্রামবাসী ও তাদের ভিডিও ফুটেজ দেখে ৩টি রাসেল ভাইপার সাপের উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া যায়।

সূত্র আরও জানায়, এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৯ সালের ২৮ নভেম্র লৌহজংয়ের মালিরঅংক গ্রাম থেকে অপর একটি রাসেল ভাইপার সাপ উদ্ধার শেষে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়। এর ৬ মাসের মাথায় গত ৪ জুলাই মুন্সীগঞ্জ সদরের সর্দারকান্দি গ্রামের এক জেলের মাছ ধরার চাই’য়ে আটকা পড়ে আরেকটি বিষধর রাসেল ভাইপার সাপ।

ঢাকার বন্যপ্রানী অপরাধ দমন ইউনিটের বন্যপ্রাণী পরিদর্শক অসীম মল্লিক জানান, ২০১৯ সালের ২৬ নভেম্বর লৌহজংয়ের মালিরঅংক গ্রামের একটি পরিত্যক্ত ডোবার কাছ থেকে রাসেল ভাইপার সাপটির সন্ধান পাওয়া যায়। এরপর স্থানীয় এক ব্যক্তি হেফাজতে রেখে সংশ্লিষ্টদের জানায়। এরপরই ২৮ নভেম্বর ঢাকা থেকে বন বিভাগের একটি ইউনিট ঘটনাস্থলে গিয়ে সাপটি উদ্ধার করে নিয়ে যায়। তিনি জানান, সর্বশেষ গত ৪ জুলাই মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের সর্দারকান্দি গ্রামের জেলে আবুল হোসেনের পাতা মাছ ধরাই চাই’য়ে একটি বিষয়ধর রাসেল ভাইপার সাপ আটকা পড়ে। এরপর স্থানীয় বাসিন্দা ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী শাহিন সাপটিকে দেখে রাসেল ভাইপার হিসেবে শনাক্ত করলেও শতভাগ নিশ্চিত হওয়ার জন্য তিনি বন বিভাগের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে আটক হওয়া সাপটির ছবি প্রেরণ করে। ওই ছবি দেখেই নিশ্চিত হওয়া যায় পদ্মার শাখা নদীতে মাছ ধরার চাইয়ে আটকে পড়া সাপটি রাসেল ভাইপার সাপ। এরপরই আটক রাসেল ভাইপার সাপটি উদ্ধার শেষে ঢাকায় বন বিভাগের কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

গ্রাম নগর বার্তা

Leave a Reply