গোয়ালঘুন্নী-চন্দনতলার রাস্তাটি খানা খন্দে ভরা

মোহাম্মদ শাহরিয়ার ও তুষার আহাম্মেদ: মিরকাদিম পৌরসভার গোয়ালঘুন্নী ও চন্দনতলা। গোয়ালঘুন্নী ও চন্দনতলার এই দুটি রাস্তা এ পথের জন্য এলাকায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে এখানকার অধিবাসীরা দাবি করছে। এ দুটি রাস্তা দিয়ে যাওয়ার পথে দুই দুইজন সাবেক সংসদ সদস্যের আদি বাড়ি এখানে রয়েছে।

এ দুটি পথ দিয়েই তাদের আদি বাড়িতে যেতে হয়। এ জন্য এ পথটি এখানে গুরুত্বপূর্ণ বলে এখানকার অধিবাসীরা নানাভাবে অভিমত প্রকাশ করেছেন। এছাড়া ঢাকার প্রখ্যাত একজন আইনজীবীর গ্রামের বাড়িও গোয়ালঘুন্নী গ্রামে রয়েছে। তিনি কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির একজন সফল নেত্রী হিসেবে সবার কাছে পরিচিত।

তবে এখানে একজন ব্যাক্তির ইচ্ছা আর অনইচ্ছার কারণে এ পথের একাধিক রাস্তা কোনভাবে সংস্কারে আলোর মুখ দেখছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। মিরকাদিম পৌরসভার দুই দুইটি নির্বাচনে এখানকার সাবেক সংসদ সদস্য ও বর্তমানে গোয়ালঘুন্নী এলাকার বর্তমান পৌর কাউন্সিলর এর পক্ষে ও বিপক্ষে ভোটারদের অবস্থান নেয়ায় এখানকার একাধিক রাস্তা দীর্ঘ বছরেও পুন:নির্মাণে সংস্কার হচ্ছে না বলে অভিযোগ করছে এলাকাবাসী।

কিন্তু এ পথের একাধিক দীর্ঘ রাস্তা পুন: নির্মাণ না করায় স্থানীয় এলাকাবাসীদের চলাচলে নানা রকমের অসুবিধা দেখা দিয়েছে বলে প্রতিদিনই অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার সিপাহীপাড়া থেকে উত্তর দিকে রিকাবীবাজারের সোনালী ব্যাংকে যাওয়ার পথে মাঝামাঝিতে রাস্তার পাশে পশ্চিম দিকে যাতায়াতের প্রধান রাস্তাটি হচ্ছে গোয়ালঘুন্নী।

গোয়ালঘুন্নী গ্রামের প্রবেশ মুখ থেকে যে রাস্তাটির যাত্রা শুরু হয়েছে তা আরো ভিতরের দিকে পশ্চিমে চলে গেছে চন্দনতলার দিকে। দীর্ঘ এ রাস্তাটির মধ্যে বিভিন্ন স্থানে স্থানে রাস্তার ওপরের পিচ উঠে গিয়ে খানা খন্দের অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। গোয়ালঘুন্নীর রাস্তার পিচ ও ইটের সুরকি উঠে যাওয়ায় এখানে এ দু’টির সংমিশ্রনে রাস্তাটি বর্তমানে একাকার হয়ে গেছে।

এ পথে পায়ে পায়ে হাটলে রাস্তায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ছোট্ট ছোট্ট ইটের সুরকি কোন না কোনভাবে পায়ের ভিতরে ঢুকে যাচ্ছে। ফলে এ পথের পথচারীদের চলাচলে অনেকটাই অসুবিধা দেখা দিচ্ছে। গোয়ালঘুন্নীর এ পথ দিয়ে লিংক রোডের কাজি কসবা গ্রামের বিশাল জামে মসজিদ ও কবরস্থানে যাওয়া যায়।

স্থানীয় পর্যায়ে এখানে কয়েকটি গ্রামের মৃত মানুষের দাফন এর কাজ কাজি কসবা গ্রামেই করা হয়ে থাকে বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে। কিন্তু বছরের পর বছর বর্তমানে রাস্তার বেহাল দশার কারণে সেই মানুষদের এ পথে চলাচলে নানা রকমের বিঘ্নতা ঘটছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।

এদিকে কাজী কসবা থেকে যে রাস্তাটি আরেকটি লিংক রোড হিসেবে উত্তর দিকে চন্দনতলা গ্রামের দিকে চলে গেছে সেই রাস্তাটির অবস্থাও আরো খারাপের দিকে। এ পথের রাস্তাটির পিচের অংশ উঠে গিয়ে জায়গায় জায়গায় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। ফলে এ রাস্তা দিয়েও স্থানীয় এলাকাবাসী বর্তমানে চলাচল করতে গিয়ে নানা ধরণের অসুবিধার মধ্যে পড়ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে এ রাস্তার বেহাল দশা থাকার কারণে কোন রিক্সা বা অন্যান্য যানবাহন কোন যাত্রী নিয়ে এ পথে যেতে চাচ্ছে না বলে এলাকাবাসী জানিয়েছে। এর ফলে পথের দু’পাশের বসবাসকারীরা বর্তমানে অনেকটাই অসুবিধার মধ্যেই এখানে জীবন যাপন করছেন। গোয়ালঘুন্নী গ্রামের প্রবেশ মুখের কিছুটা দূরেই রয়েছে জাপা এরশাদের সময় মুন্সীগঞ্জ ৪ আসনে নির্বাচিত সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ এর বাড়ি।

আর চন্দনতলা গ্রামে মুন্সীগঞ্জ ৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম. ইদ্রিস আলীর বাড়ি। এছাড়া আরো গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিদের বাড়িও এ পথের মাঝে মাঝে রয়েছে বলে অনেকই এ প্রতিবেদককে জানিয়েছে। এদিকে একাধিক সূত্র মতে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে যে, এখানকার মিরকাদিম পৌর কাউন্সিলর হচ্ছে আব্দুল মজিদ। গত পৌর নির্বাচনের সময় আব্দুল মজিদ এখানে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীকে সমর্থন করেন।

সেই নির্বাচনে পৌর কাউন্সিলর হিসেবে আব্দুল মজিদ নির্বাচিত হলেও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী পরাজিত হন। এলাকাবাসী আরো জানিয়েছে যে, আব্দুল মজিদ ও স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী দক্ষিণ এলাকার বাসিন্দা। এ কারণে আব্দুল মজিদ সেই নির্বাচনে স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থীকে নির্বাচনে সমর্থন করেন।

এছাড়া নির্বাচন আসলে প্রার্থী ও ভোটাররা নিজ নিজ পছন্দের প্রার্থীকেই সমর্থন করবে এটাই স্বাভাবিক। এ কারণে স্থানীয়ভাবে উন্নয়ন কাজ বাধা গ্রস্ত হবে এটা কারো কাম্য নয়। এসব নানা কারণে এখানে এ রাস্তার কাজ হচ্ছে না বলে এলাকাবাসী অভিযোগ তুলে ধরছেন। অন্য দিকে এ নির্বাচনের আগের নির্বাচনের সময় এখানে মন্টু মাস্টার মিরকাদিম পৌর নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হন।

মন্টু মাস্টারকে নির্বাচনে সমর্থন করেন সেই সময়ে মুন্সীগঞ্জ ৩ আসনের সংসদ সদস্য এম. ইদ্রিস আলী। এ কারণে চন্দনতলার বেহাল রাস্তাটি বর্তমানে ঠিক হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply