মুন্সীগঞ্জে পুরুষ শূন্য বাড়ীতে অগ্নিসংযোগ

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরকেওয়ার ইউনিয়নের খাসকান্দি গ্রামে অগ্নিকান্ডে পুঁড়ে ছাঁই হয়ে গেছে দোচালা টিনের ঘর ও গাছপালা। বৃহস্পতিবার ভোর রাতে খাসকান্দি গ্রামের মো: সেলিম হাওলাদার ও তার ছোট ভাই রিপনের বসত ঘরে এই অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। আগুনে গ্রস্থ্য পরিবার দুটির দাবি প্রতিপক্ষ আহাম্মদ গংয়ের লোকজন এই অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘাঁয়। অগ্নিকান্ডে সেলিম হাওলাদারের বসত ঘরের কিছু অংশ এবং রিপন হাওলাদারের টিনের ঘরটি পুঁড়ে ছাঁই হয়ে যায়। এ সময় ঘরটিতে কোন লোকজন না থাকায় হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

সেলিম হাওলাদারের স্ত্রী শিল্পী বেগম জানান, প্রায় ৩ মাস পূর্বে আমাদের বাড়ীতে ককটেল হামলা, বাড়ী ঘর ভাংচুর করেছিলো আহাম্মদ, মজিবর বেপারী গংরা। এ ঘটনায় আমার স্বামী বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় একটি বিস্ফোরক আইনে মামলা করে। মামলা তুলে না নেয়ায় আমার স্বামীকে ভয়বীতি দেখায় প্রতিপক্ষরা। সন্ত্রাসীদের একর পর এক হামলা ও পাল্টাপাল্টি মামলায় গ্রেফতার এড়াতে গ্রামটি এখন পুরষ শুন্য। সেই সুযোগে গ্রামটিতে এখন ত্রাশের রাজত্ব কায়েম করছে আকবর, মোস্তফা, মিঠু, শাহজালাল, মামুন গংরা। তারা প্রতিনিয়ত বাড়ীতে এসে বাড়ী ছেড়ে যাওয়ার জন্য নারীদের বকাঝকা করে। রাতের বেলা হঠাৎ আমার ঘরের বেড়ায় আগুন জ্বলতে দেখি। ঘর থেকে বের হয়ে দেখি রিপনের ঘরটি পুঁড়ে যাচ্ছে। চিৎকার চেচামেচি করলে লোকজন এসে প্রথমে আমার ঘরের বেড়ার আগুন নিভায়। নইলে পুরো ঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যেতো। এরমধ্যে আগুনে পুড়ে ছাঁই হয়ে যায় আমার দেবর রিপনের ছোট ঘরটি। এছাড়াও আগুনের লেলিহাতে পুঁড়ে গেছে আশপাশের অনেক ফলজ গাছপালা। এ ঘটনায় মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবার।

এ বিষয়ে জানতে চেয়ে আকবর, মোস্তফা গংদের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি। মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি অপারেশন শেখ মো: আবু হানিফ জানান, ঘটনার বিষয়ে অবগত আছি। ভুক্তভোগীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত সাপেক্ষ আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিডি২৪লাইভ

Leave a Reply