করোনায় লোকসানের মুখে মুন্সীগঞ্জে মিনি গারমের্ন্টস ব্যবসায়িরা

মোহাম্মদ সেলিম ও মো: শাহরিয়ার: অব্যাহত করোনার মহামারীতে লোকসানের মুখে পড়েছে মুন্সীগঞ্জের মিনি গামের্ন্সের ব্যবসায়িরা। তারমধ্যেও মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায় দুটি ইউনিয়নের মিনি গামের্ন্স ব্যবসায়িরা ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে এবার কিছু কিছু ব্যবসায়ি ব্যবসায়িকভাবে ঘুরে দাঁড়াতে চেষ্টা করছেন।

ঘুরে দাঁড়াতে এ ব্যবসায় নতুন করে পুঁজি বিনিয়োগ করছেন ব্যবসায়িরা। তবে এই ঈদে সাধারণত মানুষ কোরবানি নিয়ে বেশি ব্যধি ব্যস্ত থাকেন। সেখানে অন্যান্য কেনা কাটায় তাদের সেই আগ্রহ তেমনভাবে দেখা যায় না। তবুও ব্যবসায়িক আশায় বুক বেঁধে এখানে এ শিল্পের সাথে জড়িত মিনি গামের্ন্সের ব্যবসায়ি ও শ্রমিকরা কাজ করে চলেছেন দিনরাত ধরে।

গত রোজার ঈদের সময় সারাদেশে লকডাউন থাকায় এখানকার মিনি গামের্ন্সের ব্যবসায়িরা কোন ধরণের ব্যবসা করতে পারেননি বলে ব্যবসায়িক সূত্রে ব্যবসায়িরা দাবি করছেন। পরিমিত আকারে লকডাউন উঠে গেলেও পুঁজি ফিরে পাওয়ার আশায় বিভিন্ন মহাজনদের কাছে পূর্বের তৈরিকৃত জামাকাপড় দোকানগুলোতে পৌঁছে দিলেও সেই টাকা এখনো তাদের হাতে উঠে আসেনি বলে ব্যবসায়িরা জোর দাবি করছেন।

লকডাউনের পর চলমান বাজার মন্দা ভাব থাকায় তাদের পুঁজি এখন একাধিক মহাজনদের কাছে বন্দী হয়ে পড়েছে। ব্যবসায়িরা পাওনা টাকা চাইতে গেলে মহাজনরা বলছে বাজার ভালো না। তেমন ভাবে এখন বেঁচা কিনা হচ্ছে না। তাই এখন কোনো টাকা পয়সা দিবার পরবো না। যৎ সামন্য যে বেঁচা কিনা হচ্ছে, তা দিয়ে আমরাই এখন জীবন ও জীবিকা নির্বাহ করছি।

এর ফলে এ অবস্থায় তারাও জিম্মি হয়ে পড়েছেন এই ব্যবসা নিয়ে। কিন্তু এতো কিছুর পরেও তারা চলমান বাজার ধরে রাখতে অনেক ব্যবসায়ি আবারো উৎপাদনে যাচ্ছে জামা কাপড় নিয়ে। এখানকার জামা কাপড়ের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে সারাদেশে। তারমধ্যে নারায়নগঞ্জের নয়ামাটি ও ঢাকার কেরানীগঞ্জের জিঞ্জিরা মার্কেটে এখানকার উৎপাদিত জামা কাপড়ের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে বলে এখানকার ব্যবসায়িরা জানিয়েছে।

তাদের কাছ থেকে উৎপাদিত জামা গাজীপুর ও মানিকগঞ্জেও যাচ্ছে। কোয়ালিটি অনুযায়ি এখানকার তৈরি জামা ঢাকার অনেক শো রুমে চড়া দামেও বিক্রি হয়ে থাকে বলে এখানকার ব্যবসায়িরা জানিয়েছে। এছাড়া ফুটপাতেও কম দামে জামা কাপড় পাওয়া যাচ্ছে, তাও এখান থেকেই তৈরি হয়ে যাচ্ছে বলে এখানকার ব্যবসায়িরা জানিয়েছে।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ও রামপাল ইউনিয়নের বেশিরভাগ লোকজন এ ব্যবসার সাথে জড়িত। এই পোষাক শিল্পের সাথে এখানে তিন হাজার ব্যবসায়ি জড়িত রয়েছেন বলে এখানকার ব্যবসায়িরা দাবি করছেন। এছাড়া এ শিল্পের সাথে সাথে প্রায় ১৫ হাজার শ্রমিক নানাভাবে জড়িত রয়েছেন।

একেকটি মিনি গামের্ন্সে প্রায় গড়ে ৫টি করে উন্নতমানের জামা তৈরির মেশিন রয়েছে। এ জনপদে এ ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যবসায়িরা দীর্ঘ বছর ধরে এ ব্যবসা করে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছেন। একটা ব্যবসা থেকে অনেকেই একাধিক ব্যবসায় হাত লাগিয়েছেন। আর তাতে তারা নানাভাবে লাভবান হয়েছেন। অনেকেই আবার বর্তমানে এখন অট্টলিকায়ও বসবাস করছেন এ ব্যবসার সুবাধে।

কিন্তু লকডাউনে তাদের সেই ব্যবসা এখন ধস নামিয়ে দিয়েছে। গত ঈদকে সামনে রেখে এ ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যবসায়িরা ধার দেনা করে জামা কাপড় তৈরি করে ছিলেন। কিন্তু সেগুলো আর বিক্রি করতে পারেননি এতো দিনের মধ্যেও। ফলে তারা এখন ধার দেনায় জর্জরিত হয়ে পড়েছেন অনেকেই। অনেক ব্যবসায়ি আবার দাদন নিয়েও এ ব্যবসা চলমান রাখার চেষ্টা করছেন।

তারপরেও তারা এখন এ ব্যবসায় কোনো ভাবেই আলোর মুখ দেখছেন না। অনেক ব্যবসায়ি আবারো মুখ থুবড়েও পড়েছেন। এ ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যবসায়ি নাজির ঢালী জানান, সব সময় রোজার ঈদকে সামনে রেখেই আমরা এক বছরের ব্যবসার লাভ ঘরে তুলে থাকি।

সেই লাভ থেকে শ্রমিকদের বেতন ভাতাতি ও পূর্বের ধার দেনা পরিশোধ করে থাকি। এছাড়া অতিরিক্ত লাভের টাকা দিয়ে বছরের অন্যান্য মাসগুলোতে আমরা জীবন নির্বাহ করে থাকি। কিন্তু করোনায় আমাদের আশাতে জল ঢেলে দিয়েছে।

এখন আমরা ধার দেন করে প্রতিদিনের জীবন চালানোর চেষ্টা করছি। সরকারের প্রতি আমার দাবি হচ্ছে, সরকার অনেক জায়গাতেই প্রনোদনা প্রদান করছেন। আমাদের এ খাতে যদি কোন ধরণের প্রনোদনা প্রদান করতো তবে আমরা অনেকটাই খেয়ে পড়ে বাঁচতে পারতাম।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply