২ ঘণ্টার মাছের আড়ত, কোটি টাকা বিকিকিনি

মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়ার পদ্মা নদী পাড়ের ‘মাওয়া মৎস্য আড়ত’ বৃহৎ পাইকারি বাজারে রূপ নিয়েছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মাছ ব্যবসায়ীরা তাদের মাছ বেচাকেনা করতে আসেন মাওয়া আড়তে। নদীর তাজা মাছের চাহিদা থাকায় স্বল্প সময়ে পরিচিতি লাভ করেছে এ বাজার। মাত্র দুই ঘণ্টার এ মাছের আড়তে প্রতিদিন ২ কোটি টাকার মাছ বিকিকিনি হয়ে থাকে।

প্রায় ৩৭ বছর আগে মাওয়া চৌরাস্তার পশ্চিমে পদ্মা পাড়ে মাছের এ আড়ত বসে। ভোরে জেলেরা রাতে পদ্মা-মেঘনাও সুরেশ্বর নদী থেকে মাছ ধরে বিক্রির জন্য এ আড়তে নিয়ে আসতেন। পাইকাররা এখান থেকে অল্পদামে কিনে ট্রাক যোগে ঢাকার বিভিন্ন বাজারে নিয়ে বেশ লাভেই বিক্রি করত। সেই সাথে স্থানীয় মানুষ পদ্মার তাজা মাছ কিনতেও আসেন এই আড়তে। বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজনে পদ্মার তাজা মাছের চাহিদার জোগান মেলে এ আড়তেই। ভোর থেকেই উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে থেকে মাছ কিনতে এখানে ভিড় করে মানুষ।

মাওয়া পাড়ের মাছের আড়ত/ছবি: বার্তা২৪.কম

ক্রমেই দেশের বৃহৎ মৎস্য আড়তে পরিচিতি লাভ করেছে এটি। এখন আর জেলেরা মাছ নিয়ে রাজধানীতে যায় না। তাজা মাছের জন্য পাইকাররা ছুটে আসেন মাওয়া মৎস্য আড়তে।

মাওয়া মৎস্য আড়তের সেক্রেটারি মো. চান মিঞা মাদবর জানান, প্রতিদিন ভোর সাড়ে ৫টা থেকে সাড়ে ৭টা পর্যন্ত মাত্র ২ ঘণ্টায় এ আড়তে ২ কোটি টাকার মাছ বিকিকিনি হয়ে থাকে। বরিশাল, খুলনা, বাগেরহাট, ময়মনসিংহসহ পদ্মার ও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের জেলেরা এখানে মাছ নিয়ে আসেন বিক্রির জন্য। মুন্সীগঞ্জ-(বিক্রমপুর) ও ঢাকাসহ দেশের দূর দূরান্ত থেকে মাছের পাইকাররা এখানে এসে মাছ কিনে নিয়ে বিভিন্ন বাজারগুলোতে সরবরাহ করে থাকে।

নদীর তাজা মাছ

স্থানীয় আড়তদাররা বলেন, পদ্মা সেতুর কাজের জন্য আগের জায়গায় আর আড়ত বসে না। আর এখন জায়গাটা অনেক কম। এতে করে আড়তে যানজট লেগে থাকে।

এ বিষয়ে মাওয়া মেদিনী মন্ডল চেয়ারম্যান আশরাফ হোসেন জানান, যানজট নিরসনসহ আড়তের সার্বিক নিরপত্তায় পুলিশ বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছে। অচিরেই এই আড়তের সমস্যা নিরসন করা হবে।

বার্তা২৪.কম

Leave a Reply