মুন্সীগঞ্জে ক্রেতার অভাবে দুশ্চিন্তায় খামার মালিকরা, এবার বড় ধরনের লোকসান হওয়ার শঙ্কা

আর ৬ দিন পরই কেরবানীর ঈদ
কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: আর ৬ দিন পরই কোরবানীর ঈদ বা পবিত্র ঈদ-উল-আযহা। আর এই ঈদকে সামনে রেখে মুন্সীগঞ্জের বেশীর ভাগ খামারের মোটাতাজা গরুগুলো বিক্রি করতে পারবে কিনা এবং ন্যায্য মূল্য মিলবে কিনা-এ নিয়ে এখন চলছে খামার মালিকদের চিন্তাভাবনা। করোনা ভাইরাসের প্রভাবে দীর্ঘদিন লকডাউনে থাকা দেশের মানুষের আর্থিক অবস্থাও তেমন সুবিধাজনক অবস্থায় নেয়। তাই খামারে থাকা গরু অবিক্রিত থেকে গেলে লোকসানের আশঙ্কায় খামারের মালিকরা উদ্বিগ্ন অবস্থায় দিনযাপন করছে। আগামী ১ আগষ্ট উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা। আর মাত্র ৬ দিন হাতে সময় থাকলেও গরুর খামারগুলোতে ক্রেতাদের তৎপরতা নেই। ফলে জেলার ২ হাজার ২৪টি গরুর খামারে থাকা ২০ হাজার গরু নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন খামার মালিকরা।

বিভিন্ন এলাকার খামার ঘুরে দেখা গেছে,টাইগার, ব্লাক হর্স, সুলতান-এমন বর্নিল নামে নামকরণ করা হয়েছে দেশি বিদেশী গরর। কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে জেলার বিভিন্ন খামারে লালন পালন করা এসব গরু আঁকার ভেদে দাম হাঁকানো হচ্ছে ৫০ হাজার থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত। বিদেশী জাতের বিভিন্ন জাতের গরুর সংখ্যাই বেশী খামার গুলোতে।

মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার পূর্ব শিলমন্দি এলাকার খামারী হাজী সোহবার শেখ জানান, প্রতিবছর খামার ব্যবসায় জড়িত থাকলেও এবার করোনার প্রভাবে ক্রেতা সঙ্কট দেখা দিতে পারে এমন শঙ্কা দেখা দেওয়ায় তিনি দেড় মাস আগেই খামারে থাকা ৮টি গরু বিক্রি করে ফেলেছেন। একই এলাকার খামার মালিক মো. রোস্তম শেখ জানান, গত বছর কোরবানীর ঈদের এক মাস আগেই ৮টি গরু খামার থেকেই কিনে নিয়ে গেছে ক্রেতারা। এবার সেই পরিস্থিতি একেবারেই ভিন্ন, বুধবার পর্যন্ত একটি গরুও বিক্রি করতে পারেননি তিনি। ঈদের আর ৬ দিন আছে। এর মধ্যে খামারে থাকা ২১টি গরু বিক্রি করতে পারবো কিনা-তা নিয়েই দুশ্চিন্তায় আছি। খামার মালিক শিল্পী বেগম জানান, বিগত বছরগুলোতে পাইকার ও ক্রেতারা ভিড় জমাতো খামারে ও বাড়ীতে। আর এবার এক সপ্তাহ পরই ঈদ, বুধবার পর্যন্ত কোন পাইকর বা ক্রেতা আসেনি তার খামারে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হাজী সোহরাব শেখ, রোস্তম শেখ ও শিল্পি বেগমের মতো জেলার সকল খামার মালিকদের একই পরিস্থিতির মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নিয়ে অপেক্ষার প্রহর গুনছে। একাধিক খামার মালিকরা জানায়, এক সময় মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমে ছিলো তেলের ঘানি বা মিল, ধান-চালের মিল। তাই খুব সস্তায় খৈইল, ভুষি, খুদ, কুড়া পাওয়া যেত। এখন চালের মিল থাকলেও খৈল, ভুষি, কুড়ার দাম বেশী। ৫০ কেজি চালের কুড়া ৮শ’ টাকা, ৫০ কেজি চালের খুদ ১৭শ’ ৫০ টাকা, ৩৫ কেজি গমের ভূষি ১৩শ’ টাকা। ফলে গরু মোটাতাজাকরণে প্রচুর খরচ বৃদ্ধি পেলেও খামার মালিকরা কোরবানীর হাটে গরু বিক্রি করে একটু লাভের আশায় লাখ লাখ টাকা ব্যয় করেছেন। কিন্তুু করোনার প্রভাবে মানুষের আর্থিক অবস্থা ভাল না থাকায় বেশী দামী গরু বিক্রি করে আয়ের স্বপ্ন হতাশায় রূপ নিয়েছে। এখন তারা চালান উঠাতে পারবে কিনা- তা নিয়ে দুশ্চিন্তায়।
খামার মালিকরা জানান, করোনা মহামারি দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি চাপের মুখে, তার প্রভাব পড়েছে দুগ্ধসহ বিভিন্ন শিল্পে। তাই এ শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে সরকারের পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন বলেও মনে করছে খামারীরা।

সদর উপজেলা প্রানি সম্পদ কর্মকর্তা, ডা: মো: জাহাঙ্গীর আলম বলেন, দেশের করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও খামারিরা প্রাকৃতিক খাবারের মাধ্যমে কোরবানির পশু মোটাতাজা করেছে। দেশের এই পরিস্থিতিতে এবার খামার মালিকরা লোকসানের কবলে পড়বে বলে মনে হচ্ছে।

জেলা প্রানী সম্পদ কার্যালয় সূত্র জানায়, কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে জেলার ৬টি উপজেলায় ২ হাজার ২৪টি গরুর খামারে প্রায় ২০ হাজার গরু মোটাতাজা করা হয়েছে। এর মধ্যে ষাঁড় গরুর সংখ্যা ৯ হাজার ৪শ’ ৫৭টি, গাভী গরুর সংখ্যা ২ হাজার ৬শ’ ৩৮টি, বলদ গরুর সংখ্যা ২ হাজার ৪৪টি। এছাড়া খাটো জাতের বুট্টি গরু, নেপালি, সিন্ধি জাতের গরুসহ বিভিন্ন জাতের প্রায় সাড়ে ৫ হাজার গরু মোটাতাজা করে প্রস্তুুত রেখেছে খামারিরা। অন্যদিকে ছাগল রয়েছে ১৩শ’২৯টি। ভেড়া রয়েছে ৩২৫টি।

গ্রাম নগর বার্তা

Leave a Reply