মুন্সীগঞ্জে ৪৫টি হাটে কোরবানির পশু বিকিকিনি

পবিত্র ইদুল আযহাকে সামনে রেখে মুন্সীগঞ্জ জেলার বিভিন্ন এলাকায় পশুর হাট বসানোর প্রস্তুতি প্রায় শেষ দিকে। শেষ সময় এসে জেলা প্রশাসনের অনুমোদিত ছোট-বড় হাটগুলোতে প্রস্তুতি চলছে অনেকটাই জোরেশোরে। এছাড়া এ বছর অনলাইনে সরকারি ও বেসরকারি ভাবে পশুর হাটের আয়োজন করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, এ বছর মুন্সীগঞ্জ জেলায় ছোট-বড় মিলিয়ে মোট ৪৫টি হাটে কোরবানির পশু বেচাকেনা হবে। এরমধ্যে সদর উপজেলায় ৮টি, সিরাজদিখান উপজেলায় ৯টি, লৌহজং উপজেলায় ৬টি, টঙ্গীবাড়ী উপজেলায় ১১টি, গজারিয়া উপজেলায় ৫টি ও শ্রীনগর উপজেলায় ৬টি হাটে কোরবানির পশু বেচাকেনা হবে। এছাড়া করোনা সংক্রমণ ঝুঁকি ও বন্যা কারণে খামারিদের সুবিধার জন্য জেলা প্রশাসনের নিজস্ব তত্ত্বাবধানে অনলাইন হাটে গত বৃহস্পতিবার থেকে পশু বেচাকেনা শুরু হয়েছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর এলাকায় হাট বসানোর প্রস্তুতি চলছে জোরেশোরে। হাটে বাঁশের খুঁটি ও আড়া দিয়ে পশু রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। হাসিলের অর্থ আদায়ের জন্য অস্থায়ী কাউন্টার বসানো ইতোমধ্যে প্রায় শেষ দিকে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পর্যবেক্ষণের জন্য কন্ট্রোল রুম স্থাপন করা হয়েছে। আলোকসজ্জাসহ পশুর হাটের প্রস্তুতি নিয়ে ডেকোরেটর কর্মীরা কর্মব্যস্ত সময় পার করছেন।

স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, বিগত কয়েক দিন ধরেই পশুর হাট বসানোর প্রস্তুতি চলছে। ডেকোরেটরের লোকজন কাজ করছে।

এছাড়া জেলার বিভিন্ন হাট ঘুরে দেখা গেছে, পশুর হাটের বেশ কয়েকটি স্থানে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। অস্থায়ী পানির ট্যাংকের পাশাপাশি হাত ধোয়ার জন্য বেসিন বসানো হয়েছে।

হাটের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মীরা জানান, জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী আমাদের প্রস্তুতি চলছে। জনসচেতনতামূলক মাইকিং হবে, ব্যানার-ফেস্টুন থাকবে। ক্রেতা-বিক্রেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বারবার মাইকে ঘোষণা করা হবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার। মাস্ক ব্যবহার করে হাটে প্রবেশ করতে হবে।

মুন্সীগঞ্জ অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, জেলায় এ বছর ছোটবড় মিলিয়ে মোট ৪৫টি হাটে কোরবানির পশু বেচাকেনা হবে। এছাড়া জেলা প্রশাসন থেকে একটি অনলাইন প্লাটফর্ম তৈরি করা হয়েছে। সেখানে গত বৃহস্পতিবার থেকে পশু বেচাকেনা শুরু হয়েছে। এদিকে স্বাস্থ্য অধিদফতরের বিধি-নিষেধ অনুযায়ী পশুর হাট গুলো পরিচালনা করা হবে বলে জানিয়েছেন এ কর্মকর্তা।

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply