বন্যায় ভাসমান লাউ চাষ

মুন্সীগঞ্জে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার খালেদা বেগম (৪৭)। দ্বিতীয় দফায় বন্যার হাত থেকে নিজের লাউয়ের চারা বাঁচানোর জন্য প্লাস্টিকের জালি মাধ্যমে মাঁচার সাথে ঝুঁলিয়ে রেখেছেন। যাতে পদ্মা নদীর জোয়ারের পানিতে তার লাউয়ের চারার কোনো ধরনের ক্ষতি না হয়। শুধু খালেদা বেগম নয় টঙ্গীবাড়ী উপজেলার সরিষাবন এলাকার সামসু দেওয়ান, আনোয়র শেখ সহ আরো কয়েকজন একই পদ্ধতিতে তার সবজি চারা রক্ষণাবেক্ষণ করছেন।

খালেদা বেগম জানায়, তার স্বামী বসির রাঢ়ি ও তিনি প্রায় ৯০ শতাংশ জমিতে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করেছেন। বন্যার কারণে তাদের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে । এ পর্যন্ত বন্যার কারণে ১৫ শতাংশ জমিতে শসা, ২০ শতাংশ জমিতে লাউ, ১২ শতাংশ জমিতে ধুন্দল, ১৪ শতাংশ জমিতে করলা, ১৫ শতাংশ জমিতে লাল শাক, ১২ শতাংশ জমিতে কালো বেগুনসহ শতাধিক পেঁপে গাছ মারা গেছে। এতে করে প্রায় ৫ লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে তাদের। শেষ মুহূর্তে কৃষি বিভাগের পরামর্শ নিয়ে তার ২০ শতাংশ জমিতে পুনরায় লাউ রোপন করেন। পরে দ্বিতীয় দফায় বন্যায় তার লাউ ক্ষেত প্লাবিত হলে একে একে প্রতিটি লাউয়ের চারা প্লাস্টিকের জালির মধ্যে উঠিয়ে শূণ্যে ভাসমান অবস্থায় রাখেন। এতে তার লাউয়ের শেষ রক্ষা হবে বলে তিনি মনে করেন।

এ দিকে বন্যার কারণে ভাসমান সবজি চাষ ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে মুন্সীগঞ্জের কৃষক-কৃষাণিদের কাছে। সম্প্রতি বন্যার কারণে জেলার বিভিন্ন এলাকার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হলেও ভাসমান সবজি কৃষককে আশার আলো দেখিয়েছে। এই পদ্ধতিতে সবজি চাষে বন্যায় ক্ষতি মুখে পড়তে হবে না।

জেলা কৃষি বিভাগ জানায়, বন্যার এই মন্দা সময়ে অন্য ফসল উৎপাদন ও গুদামজাত করা খুবই কঠিন। তাই তারা ভাসমান সবজি উৎপাদনে মনোযোগী হয়েছেন। এতে করে উৎপাদিত ভাসমান সবজি জেলার চাহিদা মিটাতে সম্ভব হবে বলে মনে করেন। জানা গেছে, জেলার বিভিন্ন এলাকায় ভাসমান সবজি চাষাবাদ করা হয়েছে। ফলে বন্যার কারণে সবজির এই আকালের সময়ও জেলার বাজারগুলোতে প্রয়োজনীয় সবজি পাওয়া যাচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপ-পরিচালক মো. শাহ আলম জানান, ভাসমান সবজি চাষ একটি পরিবেশবান্ধব চাষাবাদ পদ্ধতি, যাতে অর্গানিক ফসল চাষ করা যায়। তাই দিন দিন ভাসমান সবজি চাষিদের সংখ্যা বাড়ছে। আপদকালীন সময়ে তাদের উৎপাদিত সবজিই মানুষের চাহিদা মিটিয়ে থাকে।

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply