সিরাজদিখানে কাঁচা রাস্তার করুণ দশা: দুর্ভোগে পুরো গ্রামের মানুষ

দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার অভাবে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলার কোলা ইউনিয়নের পশ্চিম কোলা কবরস্থান থেকে রক্ষিতপাড়া গ্রামের আঃ রহমান শেখের বাড়ি পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার কাঁচা রাস্তাটির এখন করুণ দশা। খানাখন্দে ভরা এই রাস্তাটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

বিশেষ করে এবারের বর্ষা, বৃষ্টিতে রাস্তার মাঝে অসংখ্য স্থানে গর্তের সৃষ্টি হয়। অনেক স্থানে বড় গর্ত সৃষ্টি হয়ে সেখানে দিনের পর দিন পানি জমে থাকে। কাঁদা হয়ে যায় পুরো পথ। মানুষ মারা গেলে লাশ নিয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় এলাকাবাসীদের। কোলা ইউনিয়ন ঈদগার মাঠ রক্ষিতপাড়া গ্রামে। তাই বছরে দুইবার ইউনিয়নের মুসল্লীদের কষ্ট করেই যেতে হয় ঈদের নামাজ আদায় করতে। এই রাস্তা দিয়ে এলাকার ২ হাজারেরও বেশি মানুষ চলাচল করে থাকে।

গ্রামবাসীদের পক্ষে রুবেল শেখ, সাইফুল ইসলাম, আলমগীর শেখ, আকরামুল শেখ, জনি শেখ জানান, গ্রামের নারী-পুরুষ রক্ষিতপাড়া গ্রাম থেকে কোলা গ্রামের এই কাঁচা রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন অফিস, স্কুল-কলেজ, কবরস্থান, মাদ্রাসা ও হাট বাজারে যাতায়াত করে থাকেন। রক্ষিতপাড়া গ্রামে কোনো স্কুল না থাকায়, অন্য গ্রামের স্কুলে এই পথ দিয়ে যেতে হয়। গ্রামের প্রায় ২ শতাধিক শিক্ষার্থী যাতায়াত করে থাকে। একটু বৃষ্টি নামলেই রাস্তায় পানি জমে সৃষ্টি হয় কাঁদায়। শিক্ষার্থীরা এই কাঁদা উপেক্ষা করে যেতে হয় তাদের বিদ্যালয়ে। শিক্ষার্থীরা বর্ষা মৌসুমে এই রাস্তা অতিক্রম করতে গিয়ে খানাখন্দে পড়ে তাদের কাপড়-চোপর এবং বই খাতা নষ্ট করে ফেলে। অন্যদিকে বর্ষা মৌসুমে রাস্তাটি পানি পূর্ণ হয়ে যায়।

তারা আরো জানান, গ্রামের কেউ অসুস্থ হলে সেখানে এ্যাম্বুলেন্স নেবার মত কোন অবস্থা নেই। অনেক সময় রোগীদেরকে বাইরের হাসপাতালে নিতে বিলম্ব হলে রাস্তাতেই তাদের মৃত্যু হয়। সংস্কার অভাবে রাস্তার অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যাচ্ছে। দুর্ভোগ বাড়ছে এই পথে চলাচলকারী মানুষের।

এ ব্যাপারে কোলা ইউনিয়ন পরিষদ ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. রোমান শেখ উক্ত রাস্তায় এলাকার লোকজনের চলাচলের দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে বলেন, এবারের বন্যায় রাস্তার অবস্থা অনেক খারাপ হয়ে গেছে। আমরা খুব দ্রুত রাস্তাটিতে মাটি ফেলে মানুষের চলাচলের উপযোগী করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আলোকিত বাংলাদেশ

Leave a Reply