মিরকাদিমে নাব্যতা সংকটে ব্যবসায় ভাটা

নদী পথে পণ্য সরবরাহের জন্য প্রসিদ্ধ মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিম কমলাঘাট বন্দর। কিন্তু বন্দরটির রমরমা অবস্থা এখন আর নেই। বাণিজ্য নেমেছে অর্ধেকে। ইতোমধ্যে অনেকে ব্যবসা গুটিয়ে ফেলেছেন। ব্যবসায়ীরা বলেছেন, নদীতে নাব্যতা সংকটের কারণে এই বন্দরে মালবাহী জাহাজ ভিড়তে পারছে না। তাই মালামাল পরিবহনে নদীপথে ব্যয় অনেক বেড়ে গেছে।

জানা যায়, ঢাকা থেকে বন্দরটির দূরত্ব ৪৯ কিলোমিটার। ২০০৪ সালে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) এই বন্দরকে গেজেটভুক্ত করে কমলাঘাট বন্দরের পূর্ব ও দক্ষিণে ইছামতী, উত্তরে ধলেশ্বরী নদী। দখলের কারণে ইছামতি নদী সংকুচিত হয়ে খালের রূপ নিয়েছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, বর্তমানে এই বন্দরে প্রায় শত কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে। ১৫ বছর আগেও এখানে লেনদেন হতো তিনশ কোটির টাকার ওপরে। এই বন্দরে এখন ছোট-বড় মিলিয়ে ব্যবসায়ী রয়েছে আড়াইশর মতো। দুই দশক আগে এই সংখ্যা ছিল পাঁচ শতাধিক।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, কমলাঘাট বন্দর মূলত ধান, চাল, গম, ডাল, তেল, বাদাম, গমের পাইকারি বাণিজ্য কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত। পাকিস্তান আমলে কলকাতার বন্দরের সঙ্গে এই বন্দরের সরাসরি বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিল। একই ধরনের সম্পর্ক ছিল মিয়ানমারের সঙ্গেও। দুই যুগ আগে বন্দরটি হয়ে ঢাকার রহমতগঞ্জে সবচেয়ে বেশি মালামাল যেত। এ ছাড়া দেশের অন্যতম বড় পাইকারি বাজার নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জের ব্যবসায়ীরাও এখান থেকে পণ্য কিনতেন। ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, কিশোরগঞ্জ, মাগুরা, কুমিল্লা, চাঁদপুর, সিলেট, চট্টগ্রামসহ অন্তত ৩০টি জেলায় মালামাল যেত এই বন্দর থেকে। এখন এখানকার মালামাল যাচ্ছে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, সিলেট, চট্টগ্রামসহ ১০টি জেলায়।

সম্প্রতি কমলাঘাট বন্দর ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতাদের আনাগোনা নেই। আড়তের মালিক ও ব্যবসায়ীরা অলস সময় পার করছেন। জাহাজ থেকে মালামাল নামাতে ব্যস্ত শ্রমিকদের সংখ্যাও হতে গোনা। এমন পরিস্থিতির কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকার যাতায়াত মুন্সীগঞ্জ থেকে সহজ, তাই অনেকে সেখান যাচ্ছেন।

প্রায় ২০০ বছর ধরে এখানে ভোগ্যপণ্যের পাইকারি ব্যবসা কেন্দ্র গড়ে উঠেছিল বলে জানান স্থানীয় প্রবীণ ব্যবসায়ীরা। তবে গেল কয়েক দশকে জৌলুশ হারিয়েছে বন্দরটি। তারা বলেন, সড়ক, রেল ও আকাশপথের চেয়ে নদীপথে পণ্য পরিবহনে খরচ তুলনামূলক কম। অথচ এ ক্ষেত্রে পরিস্থিতি উল্টো।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানের ক্ষুদ্র শিল্পে বিনিয়োগ, ভোক্তাদের দোরগোড়ায় নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য পৌঁছে দেওয়া এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাজার তৈরি হওয়ায় এই বাজার জৌলুশ হারিয়েছে। বন্দর এবং আশপাশের এলাকায় এক সময় দুই শতাধিক চালের চালকল ছিল। এখন সংখ্যা মোটে সাতটি। কারণ ধান উৎপাদনের শীর্ষে থাকা জেলাগুলোতে অটোরাইস মিল বসানো হয়েছে। অবশ্য মিরকাদিমেও নয়টি অটোরাইস মিল আছে। এই বন্দরে এখন তেলের মিল আছে ৮ থেকে ১০টি। সত্তর দশকে এখানে ৮০টি তেলের মিল ছিল।

উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানান, বন্দর ঘিরে এক যুগ আগে ছয়টি ময়দার মিল ছিল। এখন আছে একটি। এই ময়দা ঢাকা এবং কিশোরগঞ্জের ভৈরবে যাচ্ছে বেশি। ভুসি মালের আড়ত আছে ১৬ থেকে ১৮ টি। আগে ছিল ৮০টির মতো। এ ছাড়া ডালের মিল এখন আছে অর্ধশতাধিকের অধিক। আগে অবশ্য আরও কম ছিল। ব্যবসায়ীদের ভাষ্য, কমলাঘাট বন্দরে এখন ডালের ব্যবসা জমজমাট। মিরকাদিমে আমদানি করা ডালের বেশির ভাগই আসছে বরিশাল থেকে।

প্রবীণ ব্যবসায়ী মরতুজ আলী বলেন, সত্তরের দশকে এখানে লবণের জমজমাট ব্যবসা ছিল। মিল ছিল আটটি। লবণের ব্যবসায় ভাটা পড়লে গুড়ের ব্যবসা শুরু হয়। গুড়ের ব্যবসা মন্দা হলে ময়দার ব্যবসা শুরু হয়। ময়দার মিলের পাশাপাশি চালের মিলও গড়ে ওঠে। ময়দার মিল আস্তে আস্তে কমে যাওয়ায় চালের মিল কিছুটা রয়ে যায়। এরপর তেলের মিলের বাজার ভালো হয়ে যায়। পরে তেলের ব্যবসাতেও ভাটা পড়ে।

মিরকাদিম পৌরসভার মেয়র ও কমলাঘাট বন্দর বণিক সমিতির সভাপতি শহীদুল ইসলাম শাহিন বলেন, ‘নদীটি খননের জন্য অনেকবার বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত আবেদন করেছি। এখন পর্যন্ত কোনো সমাধান হয়নি। এটি শুধু এখানকার ব্যবসায়ীদের একার দাবি নয়। আমাদের সকলের দাবি অতিদ্রুত নদীটি খনন করা হোক।

‘তিনি আরও বলেন, নদীর নাব্যতা সংকটের কারণে মালবাহী জাহাজগুলোকে এখন বন্দ থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে নোঙর করতে হচ্ছে। সেখান থেকে মাল ছোট নৌযানে করে বন্দরে আনতে তিন হাত বদল হয়। খরচও পড়ছে বেশি। তাই অনেকে এখান থেকে ব্যবসা গুটিয়ে নিয়েছেন। তবে কয়েক বছর আগে বন্দরের প্রধান সড়কটি চওড়া করে সংস্কার করার কারণে অনেকে আবার নতুন করে ব্যবসা শুরু করেছেন।’

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো.মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘সমস্যার বিষয়টি আমি শুনেছি। এ বিষয়ে আমাদের কাছে ব্যবসায়ীরা লিখিত আবেদন করতে পারেন। এছাড়া সমস্যা সমাধানে নদীতে নাব্যতা ফিরিয়ে আনার জন্য বিআইডব্লিউটিএর সাথে শিগগিরই আলোচনা করা হবে।’

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply