মুন্সীগঞ্জে আবারও জমবে মঞ্চ, আশা নাট্যকর্মীদের

সংকটে মুন্সীগঞ্জ জেলার মঞ্চ নাট্যাঙ্গন। কারণ করোনাভাইরাস। এ দুঃসময়ে মঞ্চ কে ঘিরে নেই কোনো আয়োজন। সবাই করোনাবন্দী। ঘরে বসেই সময় কাটছে থিয়েটার সংশ্লিষ্ট সবার। অনলাইনে কিছু থিয়েটার চর্চা চললেও সবাই টিকে থাকতে করছেন বিকল্প চিন্তা। করোনার কারণে দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ মঞ্চ নাট্যচর্চা। বন্ধ শিল্পকলা একাডেমিসহ মঞ্চ নাটক প্রদর্শনী। ছয় মাস তো হয়েই গেছে! তবে কিছু কিছু দল কিন্তু করোনা আতঙ্কে থেমে নেই। তারা অনলাইন প্ল্যাটফরমে থিয়েটার কার্যক্রম চালাচ্ছে। নিয়মিত নিচ্ছেন ওয়ার্কশপ।

ঘরে বসে অনলাইনেই হচ্ছে পান্ডুলিপি পাঠ, মহড়া, থিয়েটার প্রশিক্ষণ। তবে করোনার এ সময়ে কিংবা করোনা-পরবর্তীকালে কতটা বদলে যাবে থিয়েটার চর্চা, তা নিয়ে আছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। অন্যদিকে বরাবরের মতোই এ সংকটকালীন থিয়েটার অঙ্গনের মানুষের পাশে তেমন করে নেই রাষ্ট্র বা পৃষ্ঠপোষক। তাই জীবিকার তাগিদে অনেকেই নিচ্ছেন বিকল্প ব্যবস্থা। তবে এটা কতদিন সম্ভব হবে তা নিয়ে থিয়েটার সংশ্লিষ্ট সবাই দুশ্চিন্তাগ্রস্ত। আর এ বিকল্প ব্যবস্থাকে তারা বলছেন রাষ্ট্র, পৃষ্ঠপোষক বা সমাজের প্রতি তাদের প্রতীকী প্রতিবাদ।

হিরোন-কিরোন থিয়েটারের প্রতিষ্ঠাতা জাহাঙ্গির আলম ঢালী দৈনিক অধিকারকে বলেন, করোনার কারণে শুধু নাট্যকর্মীরাই দুঃসময়ে নেই পাশাপাশি নাট্যমঞ্চের সাথে জড়িত সাউন্ড সিস্টেম, মেকাপম্যান, মঞ্চ পরিকল্পনাকারী সহ সংশ্লিষ্টরা খারাপ সময় পার করছেন। দেশের সংস্কৃতি শিল্পীরা সবসময় বৈষম্যের শিকার হয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর আমলে শিল্পকলা একাডেমীর একজন শিক্ষকের বেতন ৬’শ টাকা নির্ধারণ করা হয়। গত পঞ্চাশ বছর পর সে শিক্ষকের বেতন বেড়ে দাঁড়িয়েছে মাত্র ২৪’শ টাকায়। এছাড়া তিনি আরও বলেন, বৈশাখের সময় বিভিন্ন সরকারি কর্মচারী-কর্মকর্তারা বৈশাখী ভাতা পেলেও সংস্কৃতি কর্মীরা পাচ্ছে না। কিন্তু বৈশাখীর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের তবলা, হারমনি বাজিয়ে বৈশাখ পালন করেন সংস্কৃতি শিল্পীরা।

মুন্সীগঞ্জ থিয়েটারের সাবেক সভাপতি হুমায়ন ফরিদ বলেন, করোনার কারণে বিপর্যয় পড়েছেন নাট্যমঞ্চের সাথে সংশ্লিষ্ট শিল্পীরা। কিন্তু আমাদের তো কিছু করার নেই। সরকারি নির্দেশনা ছাড়া আমরা মে নাটক প্রদর্শন করতে পারিনা। তবে নাট্যকর্মীরা একেবারেই যে ঘরে বসে আছে তা নয়। শিল্পীরা করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে সচেতনামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়া অসহায় নাট্যকর্মীদের সহয়তায় বিত্তবান শিল্পীরা সহযোগিতা করছেন। এসময় তিনি আরও বলেন, উন্নত দেশ স্বাস্থ্যবিধি মেনে থিয়েটার চর্চার চেষ্টা করছে, যা এদেশে সম্ভব নয়। তবে হ্যাঁ, এ সময়ে দলগুলোর কর্মকাণ্ড সরাসরি নেই। অনলাইন প্ল্যাটফরমে তারা কিন্তু বিভিন্নভাবে সক্রিয়। এরকম অনেক দল ও থিয়েটার কর্মী আছে, যারা সক্রিয় বিভিন্নভাবে। আসলে জীবন তো চালাতেই হবে, তবে সেটা যেন হয় সুন্দরভাবে। নান্দনিকতা বজায় রেখে। হতাশ হওয়া যাবে না; কাজ করে যেতে হবে।

এ বিষয়ে মুন্সীগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মতিউল ইসলাম হিরু দৈনিক অধিকারকে বলেন, মার্চ মাস থেকেই জেলার সব দলগুলোকে আমরা শো বন্ধ করতে বলেছি। তবে আগামী দিনে কীভাবে আমরা কাজ করব, তা এখনো চিন্তা করতে পারছি না। তবে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে অসচ্ছল নাট্যকর্মীদের কিছু সাহায্য করা হয়েছে। যা যথেষ্ট নয়। আমরা জেলা প্রশাসকের সাথে ভবিষ্যৎ করনীয় নিয়ে খুব শিগগিরই আলোচনায় বসবো।

এছাড়া তিনি আরও বলেন, গত কয়েকমাসে করোনার কারণে আমরা একটা ট্রমার মধ্যে যাচ্ছিলাম। সেখান থেকে নাটক আমাদের মুক্তি দিতে পারে। সবকিছু যেহেতু খুলে যাচ্ছে, তাহলে নাট্য মঞ্চায়ন বন্ধ রাখা উচিত হবে না। মঞ্চের বাতি কবে জ্বলবে সে আশায় রয়েছি।

দৈনিক অধিকার

Leave a Reply