শ্রীনগরে মা ইলিশ বহনকারীদের নিরাপদ স্থান বাঘড়ার খেয়াঘাট!

মা ইলিশ বহনকারীদের নিরাপদ স্থান হিসেবে পরিচিতি শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়া বাজারের দক্ষিন-পশ্চিম পাশে খেয়াঘাটটি পরিচিতি পেয়েছে। এখানে নজরদারী করার মত কোনও সংশ্লিষ্ট দপ্তরের লোকজন দেখতে পাওয়া যায়নি। এই সুযোগে অসাধু জেলে ও ক্রেতারা অবাধে মা ইলিশ বহন করে নিরাপদে আনন্দ উল্লাস করে বাড়িতে ফিরতে পারছে। নজরদারীর অভাবে এখানকার জেলে ও এলাকার কিছু অসাধু মাছ বিক্রেতা মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে এসব মা ইলিশ বিক্রি করার সুযোগ পাচ্ছে। সরকারের কঠোর নিষেধাজ্ঞা থাকার পরেও প্রতি কেজি মা ইলিশ বিক্রি করা হচ্ছে ৩০০ থেকে ৬০০ টাকায়। উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তার উদাসীনতার কারণেই এমনটা হচ্ছে বলে সচেতন মহল ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এছাড়াও মা ইলিশ রক্ষায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদেরও নেই কোনও মাথাব্যাথা। বাঘড়া এলাকার বিভিন্ন রাস্তাঘাট ও খেয়াঘাটের আশপাশে অনেকেই মা ইলিশের ব্যাগ হাতে হেসে খেলে বাড়ি ফিরছেন। এমন চিত্রই লক্ষ্য করা গেছে বাঘড়া এলাকা জুড়ে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পদ্মা নদীর তীর ঘেষা বাঘড়া বাজার সংলগ্ন পদ্মার শাখা খালের খেয়াঘাটের চিত্র। শতশত নারী পুরুষ ব্যাগ/বস্তা হাতে নৌকা/ট্রলারে করে ওপাড়ের চরের দিকে যাচ্ছে। অপরদিকে মা ইলিশ বহনকারীরা একই ট্রলালে করে বাঘড়ার ওই খেয়াঘাটে এসে নামছে। প্রায় নারী পুরুষের হাতেই মা ইলিশ বহন করতে দেখা গেছে। এ সময় সাংবাদিকদের প্রশাসনের লোকজন মনে করে অনেকেই ইলিশের ব্যাগ হাতে দৌড়ে পালিয়ে যেতে দেখা গেছে। আবার অনেকেই ইলিশের বস্তা ট্রলারে ফেলে তরিঘরি করে সটকে পরে। ঘটনাস্থল থেকে বিষয়টি জানানোর জন্য একাধিকবার চেষ্টা করেও উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তার মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া গেছে।
এসময় কথা হয় খেয়াঘাটের মাঝি বজলুর সাথে, তিনি বলেন আমার নৌকায় ইলিশ নিয়ে উঠলে আমি কি করব? সরকারবাড়ির চর থেকে এখান দিয়ে মা ইলিশ আনা হয় বাঘড়ার সবাই তা জানেন। সরকারের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে নৌকায় পারাপারের মাধ্যমে ইলিশ বহনকারীদের সহযোগিতা করা হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কোনও সুদত্তর দিতে পারেননি। একটি সূত্র জানায়, বজলু ও তার ছোট ভাই শাজাহান খেয়াঘাটের মাঝি হিসেবে মানুষ পারাপার করে। গত ১৪ অক্টোবর ৪ নভেম্বর পর্যন্ত মা ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা থাকলেও ইলিশ বহনকারীদের পারাপার করে জনপ্রতি ৫০/১০০ টাকা আদায় করছে তারা। যদিও এই খেয়াঘাট থেকে ১০ মিনিটের দুরুত্বে চরে পারাপারের জন্য জনপ্রতি নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ টাকা। সূত্রটি আরো জানায়, নিষেধাজ্ঞা থাকাকালীন সময়ের জন্য অসাধু জেলেদের তীরবর্তী এলাকায় মাছ বিক্রি করতে সুযোগ তৈরী করতে স্থানীয় সিন্ডিকেট সযোগিতা করছে। এসবই সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা অবগত আছেন।

এ সময় বাঘড়া এলাকার রেশমা নামে এক যুবতী বলেন, ৩০০ টাকা দরে প্রতি কেজি ইলিশ ক্রয় করেছেন তিনি। একই এলাকার বেপারী বাড়ির রিদয় নামে এক যুবক বলেন, ১২ কেজি মা ইলিশ কিনছেন। তার প্রতি কেজি ইলিশের দাম পরেছে ৬০০ টাকা।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা সমীর কুমার বসাকের কাছে এবিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার জনবল নেই। পুলিশ চাইলে পাইনা। আমার একার পক্ষে সামলানো সম্ভব হয়ে উঠেনা। মা ইলিশ রক্ষায় মানুষের মধ্যে জনসচেতনতা বৃদ্ধির দরকার।

এব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোসাম্মৎ রহিমা আক্তার জানান, মা ইলিশ নিধনকারী ও সহযোগিতাকারী কাউকেই ছাড় দেয়া হবেনা। এর সাথে জরীত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে। আমি এখনই মৎস্য কর্মকর্তার সাথে কথা বলছি। এছাড়া মা ইলিশ রক্ষায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথেও কথা বলছি।

গ্রাম নগর বার্তা

Leave a Reply