শুধুমাত্র ধর্মীয় আচার পালনের মাধ্যমে জাপানে দুর্গোৎসব ২০২০ পালিত

হাসিনা বেগম রেখা: বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে বেশ আগেই বাংলাদেশে উৎসব ছাড়াই এবারের দুর্গাপূজা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে আলোকসজ্জা, সাজসজ্জাসহ উৎসব সংশ্নিষ্ট বিষয়গুলো পরিহার করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবারের পূজাকে সাত্ত্বিক পূজায় সীমাবদ্ধ রাখার কথা ঘোষণা দেয়া হয়েছিল। সন্ধ্যাআরতির পর সব পূজামণ্ডপ ও মন্দির বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছিল। এবং হয়েছেও তাই । তাই, এবারের দুর্গোৎসবকে কেবল দুর্গাপূজা হিসেবে অভিহিত করা হচ্ছে।

করোনার প্রভাব জাপানেও পড়েছে । স্বাস্থ্যবিধি জাপানে বাংলাদেশ থেকে আরও বেশী মেনে চলা হয়। তাই , যে কোন সামাজিক আয়োজনে বেশ কিছু বিধি নিষেধ মেনে তবেই আয়োজন সম্পন্ন করতে হয়। ধর্মীয় আয়োজন ও তার বাইরে নয়।

তাই , জাপানে সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান আয়োজিত এবারের দুর্গা পুজা পালনের আয়োজনটি ছিল কেবলই ধারাবাহিকতা রক্ষা এবং শুধু মাত্র ধর্মীয় আচার পালনের জন্য। দুর্গোৎসব না করে পালন করা হয়েছে ঘট পূজা ।

তাছাড়া বাংলাদেশে দুর্গাপূজা ৫ দিন ধরে হলেও বিভিন্ন কারণে জাপানে একদিনে সমস্ত আচার পালন করার মাধ্যমে নিকটবর্তী রোববার দিন পালিত হয়ে থাকে। তবে একদিনে পালন করা হলেও উৎসাহ-উদ্দীপনার কমতি থাকে না। যদিও এবছর তেমনটি পরিলক্ষিত হয় নি।

সার্বজনীন পূজা কমিটি জাপান এর এবারের ছিল ২৫তম আয়োজনটি ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন পরিবেশে ,ভিন্ন আঙ্গিকে ,অনেক বিধিনিষেধ ও জাপান সরকারের বেধে দেয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে।

২৫ অক্টোবর ‘২০ রোববার টোকিওর কিতা সিটি আকাবানে কিতা ফুরেয়াইকান-এ দিনব্যপী দুর্গা পূজা পালন করা হলেও ধর্মীয় আচার ঠিক রেখে অনুষ্ঠান সূচীতে ব্যাপক পরিবর্তন রাখা হয়। দুপুরের ভোগ বিতরন এবং বিকেলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বন্ধ রাখা হয় স্থানীয় প্রশাসনের বেঁধে দেয়া নিয়মের কারনে ।

পুজায় উপস্থিত ছিলেন অতি সম্প্রতি জাপানে নিয়োগ পাওয়া বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সাহাবুদ্দিন আহম্মেদ , দুতালয় প্রধান কাউন্সেলর ডঃ জিয়াউল আবেদিন এবং কাউন্সেলর ( শ্রম ) ডঃ জাকির হোসেন । এছাড়া স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র নেতৃবৃন্দ সহ সর্বস্তরের প্রবাসী নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে পূজারীদের উৎসাহ প্রদান করেন।

গতানুগতিকভাবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষ হলে ঢাকের শব্দে ধুনচি ধুনট হাতে নৃত্যের তালে তালে চলে নাচ শেষে আরতি, সিঁদুর খেলা, মিষ্টিমুখ ও আলিঙ্গন এবং সবশেষে প্রতিমা প্রতীকী বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ পূজার সকল আনুষ্ঠানিকতার সমাপ্তি হলেও এবছর বৈশ্বিক মহামারী এবং সমাজের সব অনাচার দূর করে সর্বত্র শান্তির বার্তা নিয়ে আসার কামনা করে প্রতীকী বিসর্জনের মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজার সমাপ্তি হয় ।

Leave a Reply