কার্পেটিং উঠে সড়কে গর্ত দুর্ভোগে এলাকাবাসী

মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মাওয়া বাজার মূল সড়কটি খানাখন্দে ভোগান্তিতে এলাকাবাসী। মাওয়া চৌরাস্তা থেকে পুরাতন ফেরিঘাট পর্যন্ত প্রায় এক কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তাটি যানবাহন এবং মানুষ চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তাটি সংস্কার না করায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বৃষ্টি হলে গর্তে পানি জমে থাকে। বেশিরভাগ স্থানে কার্পেটিং উঠে গেছে। রাস্তাটি দিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হতে হচ্ছে পথচারী, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের। পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় সড়কের বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতার কারণে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্ত।

মাওয়া বাজারের এ সড়কটি দিয়ে পাশের শ্রীনগর ও দোহার উপজেলার শত শত মানুষ প্রতিদিন যাতায়াত করেন। এক কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কের দুই পাশে রয়েছে চারটি ব্যাংক, দুটি প্রাইভেট ক্লিনিক, সরকারি ও বেসরকারি অফিস, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

উপজেলা সদর এবং ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের সংযোগ সড়ক এটি। ব্যস্ততম সড়কটিতে এখন যানবাহন প্রতিনিয়ত ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। ফলে স্থানীয় বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, রাস্তাটির কাজ হয়েছে এক যুগের বেশি সময় আগে। সেটি খুব নিম্নমানের ছিল। যে কারণে অনেক গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টি হলেই জনজীবনে চরম দুর্ভোগ নেমে আসে। তা ছাড়া ড্রেনেজ ব্যবস্থা না রাখায় সামান্য বৃষ্টি হলেই রাস্তাটি এখন পানির নিচে চলে যাচ্ছে। ফলে জনসাধারণের দুর্ভোগ চরম আকার ধারণ করেছে।

অটোরিকশাচালক জাহিদুল ইসলাম জানান, রাস্তায় গর্তের কারণে ঠিকমতো গাড়ি চালাতে পারি না। তারপরও ঝুঁঁকি নিয়েই গাড়ি চালাতে হয়। রাস্তাটি কবে যে ঢালাই হবে? এ প্রসঙ্গে মেদিনীমণ্ডল ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফ হোসেন বলেন, রাস্তাটি সংস্কার করা অতি জরুরি হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে আমি ব্যক্তিগতভাবে আলাপ করেছি। তারা আশ্বাস দিয়েছেন, চলতি অর্থবছরে রাস্তা সংস্কার করা হবে।

লৌহজং উপজেলা প্রকৌশলী মো. শফিকুল আহসান বলেন, এই রাস্তাটি আমাদের নজরে আছে। এটি অতি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। শিগগিরই সংস্কারের জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সমকাল

Leave a Reply