নদী ভাঙ্গনে তছনছ মুন্সীগঞ্জ: সব হারিয়ে মানুষ সর্বশান্ত

পদ্মা, মেঘনা, ধলেশ্বরী, ইছামতি ও কালিগঙ্গা এই ৫টি নদী-মহানদী ভাঙ্গনের কারণে তছনছ হয়েছে সমগ্র মুন্সীগঞ্জসহ ঢাকা জেলার কিছু অংশ। এতে ক্ষতিগ্রস্থসহ সর্বশান্ত হয়ে পড়েছে হাজারো সাধারণ মানুষ। তারা যেন এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। তাদের পার্শ্বে স্থায়ীভাবে সমাধানের জন্য কেউ এগিয়ে আসছে না। তবে কি হবে তাদের ভবিষ্যতে?

মেঘনার কবলে গজারিয়া, পদ্মার কবলে টঙ্গীবাড়ী, লৌহজং, শ্রীনগর, সিরাজদিখান, ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জ ও দোহার অঞ্চলের ৮টি উপজেলার প্রায় ৯০টি ইউনিয়নের শ্রমজীবি, দিনমজুর নারী কর্মী, ছোট-খাট ব্যবসায়ীগণ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। অপরদিকে হাট-বাজারগুলো নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার কারণে মানুষেরা কোন কিছুই ক্রয়-বিক্রয় করতে পারছে না। ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে পদ্মা তীরবর্তী টঙ্গীবাড়ীর দীঘিরপাড়, কামারখাড়া, হাসাইল, বানারী ও পাঁচগাঁও ইউনিয়নের অর্ধশতাধিক গ্রাম।

এছাড়া লৌহজং উপজেলার কলমা, গাওদিয়া, বেজগাঁও, লৌহজং, তেউটিয়া, কনকসার, হলদিয়া, কোমারভোগ ও মেদিনী মন্ডলের নদী তীরবর্তী প্রায় শতাধিক গ্রামে ভাঙ্গন চরম আকার ধারাণ করেছে। কোন কোন স্থানে পানি উন্নয়ন বোর্ড ভাঙ্গন প্রতিরোধে জিও ব্যাগ ফেললেও তার দ্বারা কোন কাজেই আসছে না।

এলাকার ক্ষতিগ্রস্থরা বলেন, অনেকেই ভাঙ্গনের কবলে পড়ে ৩ থেকে ৫ বার পর্যন্ত ঘর-বাড়ী এক স্থান থেকে অন্য স্থানে সরাতে হচ্ছে। এতে করে একজন মানুষের কত যে ভোগান্তি হয়, তা শুধুমাত্র ভুক্তভোগী ছাড়া আর কারো জানার কথা নয়। ক্ষতিগ্রস্থ সকলের একই কথা, এরকম ক্ষতিগ্রস্থ এলাকাকে নদী ভাঙ্গনের কবল থেকে রক্ষা করতে হলে সরকারীভাবে স্থায়ী কোন পদ্ধতি, দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গ্রহণ, টেকসই কাজ করার উদ্দ্যোগ গ্রহণ না করলে, একদিকে মানুষের ভোগান্তি, অন্যদিকে নদীগর্ভে এলাকা বিলীন হয়ে ভূমিহীন মানুষের সংখ্যা দিনদিন বাড়তেই থাকবে। এ ব্যাপারে অনতিবিলম্বে জরুরী ভিত্তিতে বাস্তবমুখি পদক্ষেপ গ্রহণ করা একান্তই আবশ্যক।

এনবিএস

Leave a Reply