লৌহজংয়ে গোরস্তানের জমি নিয়ে বিরোধ, বৃদ্ধের হাত ভেঙে দিল প্রতিপক্ষ

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে কবরস্থানের জায়গা নিয়ে বিরোধে বৃদ্ধের হাত ভেঙে দিয়েছে প্রতিপক্ষ। উপজেলার গাওদিয়া ইউনিয়নের হাড়িদিয়া গ্রামে বৃহস্পতিবার ভোরে এ ঘটনা ঘটে। আহত বৃদ্ধের নাম মো. শরীফুল ইসলাম (৬২)। তিনি এখন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন।

জানা গেছে, উপজেলার গাওদিয়া ইউনিয়নের প্রায় দুই শ বছরের পুরনো হাড়িদিয়া কবরস্থানের দখল নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। জহির দেওয়ান ও আবুল কালাম আজাদ খোকন মুন্সীর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে।

আবুল কালাম আজাদ খোকন মুন্সীর অভিযোগ, দীর্ঘ ১ যুগ ধরে প্রায় ৫০টি বস্তি ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিচ্ছেন স্থানীয় জহির দেওয়ান। সে এই জায়গায় এখন মাদক কারবারসহ অসামাজিক কার্যকলাপ চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি আরো জানান, কবরস্থানের পাশে আমি আমার জায়গায় অসহায় মানুষকে বিনা ভাড়ায় থাকতে দিয়েছি।

অন্যদিকে, জহির দেওয়ানের বক্তব্য হচ্ছে, দুই শ বছরের পুরনো ওয়াকফকৃত কবরস্থানটি খোকন মুন্সী দখল করে বাসা ভাড়া দিয়েছেন। অথচ আমার কথা বলে বেড়াচ্ছে যে, আমি নাকি কবরস্থান দখল করে বস্তিঘর নির্মাণ করে অসামাজিক কার্যকল্পাপ চালাচ্ছি। এ জমিটি আমার ক্রয়কৃত।

আহত শরীফুল ইসলাম হচ্ছেন সম্পর্কে জহির দেওয়ানের ফুপাতো ভাই। শরীফুলের মা বাপেরবাড়ি থেকে দুই শতাংশ জায়গা পান। সেই জায়গা শরীফুল কবরস্থানকে দান করে দেন। এ বিষয়টি ভালো লাগেনি জহির দেওয়ানের। তা ছাড়া প্রতিপক্ষ খোকন মুন্সীর সঙ্গে শরীফুলের সখ্য রয়েছে।

বিষয় দুটির কারণে খোকন মুন্সীর ওপর নাখোশ হন জহির দেওয়ান। এরই জেরে বৃহস্পতিবার ভোরে শরীফুল ইসলাম প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বাইরে এলে জহির দেওয়ান তাঁর ছেলে শান্ত ও স্থানীয় যুবক জাহিদ দেওয়ানের সহযোগিতায় শরীফুলকে মুখে গামছা পেঁচিয়ে, হাত-পা বেঁধে পাশের বাগানে নিয়ে যায়। সেখানে লাঠিসোঁটা দিয়ে শরীরের নানা স্থানে আঘাত করে। এতে শরীফুলের বাঁ হাত ভেঙে যায় এবং তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেললে তাঁরা চলে যায়। পরে সকালে শরীফুলের পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত লৌহজং থানায় জহির দেওয়ান ও তার সঙ্গীদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়ার প্রস্তুতি চলছিল।

এদিকে জানা যায়, ২৬ শতাংশের পুরনো কবরস্থানটি দখলমুক্তের দাবি এলাকাবাসীর। এলাকাবাসী বলছে, এ কবরস্থানটি আমাদের এলাকার প্রায় দুই শ বছরের পুরনো কবরস্থান। এটি এখন দখলে রয়েছে। আমরা সকলে চাই এটি অবমুক্ত হোক।

লৌহজং থানার ওসি মো. আলমগীর হোসাইন জানান, পুলিশ পাঠিয়েছি। মামলার প্রস্তুতি চলছে। তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কালের কন্ঠ

Leave a Reply