শ্রীনগরে ইউনিয়ন সম্মেলনকে কেন্দ্র করে অর্ধযুগ পর উপজেলা যুবলীগের ঘুম ভাঙ্গতে যাচ্ছে

আরিফ হোসেনঃ শ্রীনগর উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে প্রায় অর্ধ যুগ পর উপজেলা যুবলীগের ঘুম ভাঙ্গতে যাচ্ছে। এই সময়ের মধ্যে উপজেলা যুবলীগ কেন্দ্রীয় ভাবে ঘোষিত আওয়ামী লীগ বা নিজ সংগঠনের তেমন কোন কর্মসূচী পালন করতে পারেনি। রাজনৈতিক মাঠেও তাদের অবস্থান ছিল প্রায় শূন্যের কোঠায়। বহুদিন পর গত ২৬ অক্টোবর শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে ১৪ টি ইউনিয়নে যুবলীগের সম্মেলন করার ঘোষণা আসে। এর পর থেকেই মাঠে নামে ইউনিয়ন যুবলীগের নেতারা।

শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগ সম্মেলনে নেতৃত্ব নির্বাচনের জন্য প্রার্থীদের কাছ থেকে সিভি আহবান করে। সিভি’র মাধ্যমে অতীত ইতিহাসে ছাত্রলীগ,যুবলীগ বা আওয়ামী লীগের অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের রাজনীতি করেছে কিনা তা বিবেচনা করা হবে। গত অর্ধ যুগে প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত না হলেও সম্মেলনের ঘোষণায় নেতাদের ভীর জমেছে ব্যানার ফেষ্টুনের প্রিন্ট পাড়ায়। অথচ দল ক্ষমতায় থাকার পরও তারা এতোদিন ছিল নিস্ক্রিয়।

গত ২০১৩ সালের জুনে প্রায় ১১ বছর পর শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে তৎকালীন আওয়ামী লীগের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষের পছন্দের মোঃ ফিরোজ আল মামুন সভাপতি ও তার ব্যক্তিগত সহকারী মোঃ নেছার উল্লাহ সুজন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে সুকুমার রঞ্জন ঘোষের আর্শিবাদে তারা পাটাভোগ ও কোলাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। বহুদিন যুবলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন এমন নেতাদের অভিমত, তারা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই নিস্ত্রিয় হতে থাকে শ্রীনগরের রাজনীতির মাঠের এক সময়ের দুর্দান্ত যুবলীগ। আন্দোলন সংগ্রামে হামলা মামলার স্বীকার হয়েও এক সময়ে শ্রীনগর উপজেলার আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে যুবলীগের অবস্থান ছিল সর্বাগ্রে। কিন্তু গত ৬ বছরে অন্যসব কর্মসূচীতো দুরের কথা তারা নিজেদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পর্যন্ত পালন করতে পারেনি। তাদের ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার ছিল না বললেই চলে।

শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগের কর্মকান্ড নিয়ে ত্যক্ত বিরক্ত একাধিক ত্যাগী নেতা বলেন, দল যখন ক্ষমতায় ছিল না তখন আমরা হামলা মামলার স্বীকার হয়েও নিজেদের সক্রিয়তা হারাইনি। কিন্তু এখন দল ক্ষমতায় থাকলেও অযোগ্য নেতৃত্বের কারণে সুফল ভোগ করাতো দুরের কথা নিজেদের সংগঠনের অনুষ্ঠানগুলোর আয়োজন হয়না। তারা প্রশ্ন রাখেন কেমন নেতৃত্ব হলে একটি ইউনিয়নের যুবলীগের কমিটিতে ২জন সাধারণ সম্পাদক পদ ব্যবহার করেন? তারা বলেন, নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে দেশের অন্য কোথাও ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন না হলেও তারা তড়িঘড়ি করে ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন ঘোষণা করেছে। অপরদিকে একাধিক নেতা অভিযোগ করেন, শেষ সময়ে এসে সিভি আহবানের মাধ্যমে আরেক দফা পদ বিক্রির বানিজ্য শুতে হতে পারে।

দলীয় কর্মকান্ড সহ নিস্ক্রিয়তার বিষয়ে শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ নেছার উল্লাহ সুজন বলেন, নানা করনে এতোদিন সক্রিয়তার অভাব ছিল। সামনের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী থেকেই নতুন ভাবে ঢেলে সাজানোর মাধ্যমে আবার যুবলীগকে চাঙ্গা করা হবে।

শ্রীনগর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ফিরোজ আল মামুন বলেন, কেন্দ্রীয় যুবলীগের সাথে পরামর্শ করেই ইউনিয়ন যুবলীগের সম্মেলন ঘোষনা করা হয়েছে। ধারাবাহিক ভাবে উপজেলা যুবলীগের সম্মেলনও অনুষ্ঠিত হবে। আমরা যুবলীগকে সক্রিয় করার জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

Leave a Reply