বসল পদ্মা সেতুর ৩৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার

বসল পদ্মা সেতুর ৩৭তম স্প্যান এর মাধ্যমে দৃশ্যমান হলো সেতুর ৫ হাজার ৫৫০ মিটার অর্থাৎ সাড়ে পাঁচ কিলোমিটারের বেশী অংশ। মাওয়া প্রান্তের ৯ ও ১০ নম্বর পিয়ারে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে বসানো হয় ৩৭তম স্প্যান ‘২-সি’।

পদ্মা সেতুতে আর মাত্র চারটি স্প্যান বসানো বাকি রয়েছে যার দৈর্ঘ্য হবে ৬০০ মিটার যা আগামী ডিসেম্বর মাসের ১০ তারিখের মধ্যে বসানোর লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে সেতু বিভাগ। বিজয় দিবসে ৬.১৫ কিলোমিটারের সম্পূর্ণ পদ্মা সেতু দেখতে পাবে দেশবাসী এটা হবে এবারের বিজয় দিবসের সবচেয়ে বড় উপহার হবে বলে জানিয়েছেন পদ্মা সেতুর প্রকৌশলীরা।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান, বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) সাড়ে ১০ টার দিকে মাওয়ার কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ভাসমান ক্রেন ‘তিয়াইন-ই’ ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৩৭তম স্প্যানটি নিয়ে রওনা হয় নির্দিষ্ট পিয়ার দুটির উদ্দেশ্যে। ক্রেনটির ৪০ মিনিটের মত সময় লাগে পিয়ার দুটির কাছে পৌঁছাতে। তারপর এ্যাংকোরিং এবং নোঙ্গর-এর কাজ শেষ করার পরে ইঞ্চি ইঞ্চি করে মেপে উঠিযয়ে দেওয়া হয় পিয়ারের উপর।

সেতু কর্তৃপক্ষ আরও জানায়, ১৬ নভেম্বর ১ ও ২ নম্বর খুঁটিতে ৩৮ তম স্প্যান (স্প্যান ১-এ), ২৩ নভেম্বর ১০ ও ১১ নম্বর খুঁটিতে ৩৯ তম স্প্যান (স্প্যান ২-ডি), ২ ডিসেম্বর ১১ ও ১২ নম্বর খুঁটিতে ৪০ তম স্প্যান (স্প্যান ২-ই) ও সর্বশেষ আগামী ১০ ডিসেম্বর ১২ ও ১৩ নম্বর খুঁটির ওপর ৪১ নম্বর স্প্যানটি (স্প্যান ২-এফ) বসানোর কথা রয়েছে। স্প্যানগুলো মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডে প্রস্থত রয়েছে।

উল্লেখ্য, ৪২টি পিলারে ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১টি স্প্যান বসিয়ে ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হবে। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো। পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হওয়ার পর আগামী ২০২১ সালেই খুলে দেয়া হবে।

বিডি২৪লাইভ

Leave a Reply