মুন্সীগঞ্জে আগাম আলু রোপণে ব্যস্ত কৃষকরা

লাবলু মোল্লা: দেশের চাহিদার সিংহভাগ আলু উৎপাদনের জেলা মুন্সীগঞ্জের কৃষকেরা আগাম আলুর চাষের জন্য ব্যস্ত সময় পার করছেন। আলুর জন্য বিখ্যাত জেলায় ইতিমধ্যে প্রথম ধাপে আলু রোপণ শুরু করেছেন তারা।

সকাল থেকে শ্রমিক নিয়ে আলুর ক্ষেত পরিষ্কার, পাওয়ার টিলার দিয়ে জমিতে চাষ, জমিতে সার ছিটানো ও আলু রোপণের পর আলুর জমি মাটি দিয়ে ঢেকে দেওয়াসহ নানা কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন জেলার কৃষকরা।

আলু চাষের প্রথম দিকের সময়টাতেই মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা প্রথম ধাপে আগাম আলু রোপণ করছেন। আলু রোপণ, পরিচর্যা, দ্বিতীয় পর্যায়ে আলুসহ অন্যান্য সবজি আবাদের জমিগুলো প্রস্তুত করতেই চলে আসবে পুরোদমে আলু রোপণের সময়। এখন থেকে শুরু করে আলুচাষি কৃষকদের কর্মব্যস্ততা থাকবে পৌষ মাসের শেষে সপ্তাহ পর্যন্ত।

সরেজমিনে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা ছাড়াও মেঘনার তীরে উঁচু জমিতে কৃষকদের আলু রোপণ করতে দেখা গেছে। কোনো কোনো জমিতে ইতিমধ্যে আলু রোপণ শেষ হয়ে গেছে। পরিচর্যার কাজে সেখানে কৃষকরা সময় দিচ্ছেন।

জেলা সদরের জাজিরা সৈয়দপুরের হাজী ইয়রসুল দেওয়ান নামের আলু চাষী জানান, এ বছর তিনি প্রায় ৩ একর জমিতে আগাম আলু রোপণ করছেন। পরের ধাপে আরো প্রায় ৭ একর জমিতে আলু রোপণ করবেন।

জেলার চরাঞ্চলের অপর কৃষক হাবিজউদ্দিন মাঝি জানান, গত বছর আগাম আলুতে তিনি লাভবান হয়েছিলেন। এবছর তিনি ৪ শতাংশ জমিতে আগাম আলু রোপণ করবেন। ইতিমধ্যে ৩০০ শতাংশ জমিতে আলু এবং ১০০ শতাংশ জমিতে শীতকালীন শাক-সবজি আবাদ সম্পন্ন করেছেন।

আরেক কৃষক সালামও তার নিজস্ব ৩০০ শতাংশ জমিতে আলু রোপণ করেছেন। তিনি আরো জানান, আগামী সপ্তাহে মেঘনা তীরের শত শত একর জমিতে আলু রোপণের প্রস্তুতি নিয়েছে। পাশাপাশি অনেক কৃষক পিয়াজের চারা আবাদেও ব্যস্ত সময় পার করছেন। এসব পিয়াজের চারা আলু ওঠার পর আলুর জমিতে রোপণ করবেন কৃষকরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. শাহ আলম জানান, এবছর ফসলি জমির পানি দ্রুত নেমে গেছে। উচু জমিগুলোতে আগাম আলু রোপণ শুরু করেছে কৃষকরা। আরো ১০ দিন পর পুরো জেলা জুড়ে আলু রোপণ বেড়ে যাবে। আমরা এবছর ১ হাজার আলু চাষিকে ১০০ গ্রাম করে পিয়াজের বীজ দেব। এটা তারা আলুর জমিতে সহায়ক ফসল হিসেবে রোপণ করবে। এতে কৃষকদের অতিরিক্ত সার ও কীটনাশক ব্যবহার করতে হবে না।

বিডি প্রতিদিন/

Leave a Reply