সেতুর নিরাপত্তা বেড়া কেটে ভাসমান হোটেল তৈরি

বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু-৬ মুন্সিগঞ্জের মুক্তারপুর সেতুর নিচে দক্ষিণ অংশে অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে একাধিক ভাসমান হোটেল। এ কারণে সেতুর নিরাপত্তা বেষ্টনীর তার কাঁটা কেটে প্রবেশ করছে হোটেলে খাওয়া-দাওয়া করতে আসা লোকজন।

মুক্তারপুর সেতুর দক্ষিণ পাশের অংশে গিয়ে দেখা যায়, নিরাপত্তা বেষ্টনীর লোহার জালির বিস্তীর্ণ অংশ কাটা। ওই অংশ দিয়ে প্রবেশ করছে লোকজন। এ সমস্ত লোকজন হোটেলে খাওয়া দাওয়া করতে আসছে। মুক্তারপুর ব্রিজের গোড়ায় বাস, সিএনজি একাধিক অটোস্ট্যান্ড থাকায় সাধারণত পরিবহন শ্রমিকরা ওই সমস্ত ভ্রাম্যমাণ হোটেল খাওয়া দাওয়া করেন বলে স্থানীয়রা জানান।

সেতু কর্তৃপক্ষের দেখভালের অভাবে এমনটি হচ্ছে বলেও জানান স্থানীয়রা। এছাড়াও সেতু এলাকায় সড়কের পাশে, যত্রতত্র একাধিক ভাসমান দোকানও গড়ে উঠেছে। যেন দেখার কেউ নেই!

ভাসমান হোটেল মালিক আমজাদ হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, এখানে আমরা আলগা (ভাসমান) হোটেল চালাচ্ছি। অনুমতি প্রসঙ্গে বলেন, কারও অনুমতি নিতে হয়নি। ত্রিপল, বাঁশ ও কাপড় দিয়ে দোকান তৈরি করেছি। আমরা তার কাটি নাই। আমার দোকান ছাড়াও আরও এখানে দোকান আছে।

এ ব্যাপারে সেতু কর্তৃপক্ষের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রাজন চন্দ্র বিশ্বাস ঢাকা পোস্টকে বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। এ কাজ যদি কেউ করে থাকে তাহলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। নিরাপত্তা বেষ্টনী কাটা হলে প্রয়োজনে মামলা করব। তিনি আরও জানান, হোটেল যে অংশে গড়ে উঠেছে তা বিসিকের জমি।

বিসিকের উপ-পরিচালক মো. আব্দুল্লাহ ঢাকা পোস্টকে বলেন, ওই স্থানে আমাদের এক বা দেড় মাসের মধ্যে ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হবে। হোটেল নির্মাণে কাউকে অনুমতি দেয়া হয়নি। আমরা উচ্ছেদের ব্যবস্থা নিচ্ছি।

ব.ম শামীম/ঢাকা পোষ্ট

Leave a Reply