কান্নায় ভাসল শীতলক্ষ্যা: উদ্ধার ২৯ লাশ, নিখোঁজ আরও ৬

নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যাপাড়ে রোববার রাত থেকে বসে থাকা স্বজনের অপেক্ষা ফুরালেও কান্না ফুরায়নি। গতকাল সোমবার দুপুর সোয়া ১২টা। বিআইডব্লিউটিএর উদ্ধারকারী জাহাজ ‘প্রত্যয়’ ডুবে যাওয়া লঞ্চ এম এল সাবিত আল হাসানকে যখন টেনে ওপরে তোলে, তখন লঞ্চের ভেতরে ছিল লাশের স্তূপ। লঞ্চটি থেকে একে একে ২১ জন নারী-পুরুষ-শিশুর লাশ বের করে আনার সময় একটি দৃশ্যে সবার চোখ আটকে যায়। মৃত এক মায়ের বুকে জড়িয়ে ছিল তার এক বছর বয়সী শিশুকন্যা।

লঞ্চটি তীরে আনার পরই শুরু হয় স্বজনদের গগনবিদারি কান্না। তাদের আহাজারিতে প্রকম্পিত হয়ে ওঠে শীতলক্ষ্যার পাড়। সন্ধ্যার দিকে নদী থেকে আরও তিনজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। আগের দিন পাঁচজনসহ লঞ্চডুবির ঘটনায় এ পর্যন্ত ২৯ জনের লাশ উদ্ধার হলো। নিখোঁজ রয়েছেন আরও ছয়জন।

লঞ্চডুবিতে যারা মারা গেছেন তাদের বেশির ভাগই মুন্সীগঞ্জের। মুন্সীগঞ্জ শহর ও সদর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত একের পর এক মরদেহ আসতে থাকলে শুরু হয় আপনজন হারানোর আহাজারি। কে কাকে সান্ত্বনা দেবে। কেউ হারিয়েছেন স্বামী, কেউ স্ত্রী, কেউ ভাইবোন, কেউ সন্তান, কেউ হারিয়েছেন প্রিয় মা-বাবাকে। একাধিক অ্যাম্বুলেন্সে লাশের মিছিল আসতে থাকে মুন্সীগঞ্জের জেলা শহর, সদরের মিরকাদিম, উত্তর চরমশুরা গ্রাম, চরডুমুড়িয়া গ্রামসহ আশপাশ এলাকায়। প্রতিটি এলাকা শোকে নিস্তব্ধ হয়ে পড়ে। এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় হতবিহ্বল সবাই। এ ঘটনায় তারা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়াও জানিয়েছেন।

গতকাল দুপুরে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোস্তাইন বিল্লাহ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্ধারকাজ সমাপ্ত ঘোষণা করেন। রোববার লঞ্চডুবির ঘটনায় নিহতরা হলেন- মুন্সীগঞ্জের কোর্টগাঁও এলাকার দোলা বেগম (৩৪), সদরের রুনা আক্তার (২৪), মোল্লাকান্দির সোলেমান বেপারী (৬০), তার স্ত্রী বেবী বেগম (৬০), মালপাড়ার সুনিতা সাহা (৪০), তার ছেলে বিকাশ সাহা (২২), উত্তর চরমসুরার পখিনা (৪৫), একই এলাকার বীথি (১৮), তার এক বছর বয়সী মেয়ে আরিফা, সদরের প্রতিমা শর্মা (৫৩), সাদিয়া আক্তার (১১), মোল্লাকান্দি চরকিশোরগঞ্জের মো. শামসুদ্দিন (৯০), তার স্ত্রী রেহেনা বেগম (৬৫), দক্ষিণ কেওয়ারের নারায়ণ দাস (৬৫), তার স্ত্রী পার্বতী দাস (৪৫), সদরের শাহ আলম মৃধা (৫৫), একই এলাকার মহারানী (৩৭), ছাউদা আক্তার লতা (১৮), খাদিজা বেগম (৫০), বরিশালের উটরা উজিরপুরের হাফিজুর রহমান (২৪), তার স্ত্রী তাহমিনা (২০), তাদের এক বছর বয়সী শিশুপুত্র আবদুল্লাহ, নারায়ণগঞ্জের বন্দরের কল্যান্দী এলাকার দুই বছরের শিশু আজমির (ঘটনার সময় সঙ্গে থাকা দাদা সাইফুল ইসলাম বেঁচে গেছেন), ঢাকার শনিরআখড়ার আনোয়ার হোসেন (৪৫), তার স্ত্রী মাকসুদা বেগম (৩০), তাদের ৭ মাস বয়সী মেয়ে মানসুরা, শরীয়তপুরের নড়িয়ার আবদুল খালেক (৭০), ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার মোছা. জিবু (১৩) ও নারায়ণগঞ্জের বন্দরের সেলসারদীর মো. নয়ন (১৯)।

নিখোঁজ রয়েছেন, নিহত সুনিতা সাহার আরেক ছেলে অনিক সাহা (১২), মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানের জাকির হোসেন (৪৫), ইসলামপুরের তানভীর হোসেন, সদরের মালপাড়ার রিজভী (২০), জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থায় (এনএসআই) কর্মরত মুন্সীগঞ্জ সদরের মো. ইউসুফ কাজী (৫৪) ও ঢাকার মিরপুরের সোহাগ হাওলাদার (২৩)।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. শাহজামান বলেন, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে মামলার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। ঘটনার জন্য দায়ী কার্গো জাহাজটি এখনও শনাক্ত বা আটক করা সম্ভব হয়নি। এদিকে, ঘটনা তদন্তে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট তোফাজ্জল হোসেনকে প্রধান করে সাত সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসনও পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে আহ্বায়ক করে গঠিত তদন্ত কমিটিকে পাঁচ কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। আগের দিন রোববার নৌ মন্ত্রণালয় থেকে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল।

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা বারিক বলেছেন, নিহতদের সবার পরিবারকে লাশ পরিবহন, দাফন ও সৎকারের জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়েছে।

‘আমার ঘরে বাতি জ্বালানোর কেউ রইল না’ :’আমার সব শেষ হয়ে গেল। দুনিয়ায় আমার আর কিছু নাই। আমার ঘরে বাতি জ্বালানোর মতো কেউ রইল না’- মুন্সীগঞ্জ শহরের মালপাড়া এলাকার সাধন সাহা স্ত্রী ও দুই সন্তানকে হারিয়ে এভাবেই বিলাপ করছিলেন। সারারাত অপেক্ষার পর ভোর সাড়ে ৩টার দিকে নিহত স্ত্রী সুনিতা সাহার লাশ বুঝে পেলেও তখন দুই সন্তান বিকাশ সাহা ও অনিক সাহা নিখোঁজ ছিল। পরে বিকেলে বিকাশ সাহার লাশ পাওয়া যায়। রোববার সকালে সুনিতা সাহা দুই ছেলেকে নিয়ে গিয়েছিলেন ঢাকার জাতীয় চক্ষু ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে। ডাক্তার দেখিয়ে নারায়ণগঞ্জ লঞ্চঘাট হয়ে মুন্সীগঞ্জ ফিরছিলেন তারা। লঞ্চডুবিতে তিনজনেরই সলিল সমাধি হয়েছে। এদিকে, বোন ও দুই ভাগ্নেকে হারিয়ে কেঁদেই চলেছেন নদীপাড়ের বাসিন্দা মানিক সাহা।

নিখোঁজ ইউসুফ কাজীর ছেলেকে কে সান্ত্বনা দেবে :নিখোঁজদের মধ্যে জেলা শহরের মধ্য কোর্টগাঁও এলাকার বাসিন্দা ইউসুফ কাজীর সন্ধান সোমবার রাত ৯টা পর্যন্ত মেলেনি। ঢাকায় এনএসআইয়ে কর্মরত ইউসুফ রোববার নারায়ণগঞ্জ থেকে লঞ্চে মুন্সীগঞ্জের বাসায় ফেরার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে তার ছেলে স্বাধীন কাজী রোববার রাতে মুন্সীগঞ্জ লঞ্চঘাটের পন্টুনে বসে বাবার জন্য কাঁদছিলেন আর মাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলছিলেন, ‘মা তুমি ভেব না, বাবা নিশ্চয়ই জীবিত ফিরে আসবে।’ বাবাকে না পেয়ে এখন কলেজপড়ূয়া স্বাধীনই শোকে মুহ্যমান। তাকে সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা হারিয়ে ফেলেছেন স্বজনরা। তার মা জয়নব বেগমও নির্বাক।

মায়ের বুকেই ছিল শিশুটি :দুপুরে লঞ্চটি ওপরে উঠানোর পর ভেতরে থাকা আরও ২১ যাত্রীর লাশ উদ্ধারের পর নদীর তীরে ও উদ্ধার তৎপরতায় যুক্ত থাকা সবার নজর কাড়ে একটি দৃশ্য। মারা যাওয়া বীথি আক্তার (২৫) তার ১২ মাসের শিশুকন্যা আরিফাকে বুকে চেপে রেখেই চলে গেছেন না ফেরার দেশে। মৃত্যুর সময়ও সন্তানকে আগলে রেখেছিলেন মমতাময়ী মা।

শিশু আরিফাকে নারায়ণগঞ্জ শহরে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ডাক্তার দেখাতে নিয়ে গিয়েছিলন বীথি আক্তার ও তার মা পাকিজা বেগম। বীথির শাশুড়ি মিনু বেগম জানান, ডাক্তার দেখানো শেষে বিকেলে ছেলের বউ ফোন দিয়ে বলল তারা লঞ্চে করে আসছে। এর আধা ঘণ্টা পরই তাদের খোঁজ নেই। ওই ঘটনায় বীথির মা পাকিজা বেগমও মারা গেছেন।

এতিম হয়ে গেল মাহিম আর মাহিয়া :মাহিমের বয়স মাত্র ১৪ বছর। শনির আখড়া এলাকার একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী। রোববার সন্ধ্যার আগেও মা-বাবা আর দুই বোনসহ পুরো পরিবার ছিল তার। আকস্মিক এক দুর্ঘটনা মাহিমকে এতিম করে দিল। গতকাল দুপুরে ছোট্ট এই মাহিমকে মা-বাবা আর ছোট্ট বোনের লাশ শনাক্ত করতে হয়েছে। এ দৃশ্য দেখে উপস্থিত সবার চোখ ভিজে ওঠে। জীবন সংসারে ছয় বছর বয়সী ছোট বোন মাহিয়া ছাড়া মাহিমের আর কেউ রইল না।

‘মা-বাবা এভাবে চলে যাবে, জানলে যেতেই দিতাম না’ :মুন্সীগঞ্জের বিউটি থাকেন নারায়ণগঞ্জে। রোববার সকালে বাবা সোলায়মান খাঁ ও মা সালমা বেগম বেবীকে ঢাকায় ডাক্তার দেখান। দুপুরে নিজের বাসায় খাইয়ে সন্ধ্যায় তাদের তুলে দেন মুন্সীগঞ্জগামী লঞ্চে। নদীর পাড়ে কাঁদতে কাঁদতে বিউটি বলেন, ‘তখন কি জানতাম বাবা-মা আমাদের ছেড়ে এভাবে চলে যাবেন? জানলে তো তাদের যেতেই দিতাম না।’

ছেলে বেঁচে ফিরলেও প্রাণ হারিয়েছেন মা :লঞ্চডুবিতে ছেলে বেঁচে গেলেও প্রাণ হারিয়েছেন মুন্সীগঞ্জ শহরের দক্ষিণ কোর্টগাঁও এলাকার দুলু মিয়ার মেয়ে দোলা বেগম। ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর রাত সাড়ে ১১টার দিকে দোলার লাশ ভিক্টোরিয়া হাসপাতাল থেকে মুন্সীগঞ্জের বাড়িতে নিয়ে যায় স্বজনরা। দোলা বেগমের বড় ভাই রুবেল মিয়া বলেন, ঢাকায় বড় বোন শাহনাজের বাড়িতে ছেলে রিফাতকে নিয়ে বেড়াতে গিয়েছিল দোলা। বাড়িতে ফেরার পথে নদীতে এই দুর্ঘটনার শিকার হয়।

সমকাল

Leave a Reply