সফলভাবে এগিয়ে চলেছে ‘জাপানে সবচেয়ে বড় মসজিদ “বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স’, প্রয়োজন অংশ নেয়া।

রাহমান মনি: জাপানে মসজিদ নির্মাণে গৃহীত এ যাবত কালের সবচেয়ে বড় প্রকল্প “বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স” বাস্তবায়ন অত্যন্ত সফলতার সাথে এগিয়ে চলেছে। প্রয়োজন সবার সহৃদয় অংশ গ্রহন। বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের শুভেচ্ছা বক্তব্যে তাই-ই বার বার উঠে আসে।

বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজের অগ্রগতি মুসল্লিদের অবহিত করার জন্য ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশন জাপান (ICFJ) এক সভার আয়োজন করে।

বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স-এ ৫ জুন ’২১ শনিবার বাদ মাগরিব খতিব মাওলানা সাবের আহমেদ এর সভাপতিত্বে অগ্রগতি জানান দেয়া সভায় বিভিন্ন মসজিদের খতিব, ইমাম, সমাজের বিভিন্ন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ এবং বিভিন্ন মুসল্লিদের উপস্থিতে সভাটি পরিচালনায় ছিলেন আব্দুল মোমেন।

সভায় বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণে পরিকল্পনা, অনুদান সংগ্রহ, কাজের অগ্রগতি এবং পরবর্তী প্রদক্ষেপ নিয়ে মুল প্রবন্ধ উত্থ্যাপন করেন ইঞ্জিনিয়ার সাইফুল সোহাগ সিদ্দিকী।

মুল প্রবন্ধে স্লাইড শো-তে তিনি, বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স নির্মাণে মোট ব্যয় ২১,০০,০০,০০০ (একুশ কোটি) ইয়েন লক্ষ্যমাত্রা নিরধারনের কথা জানান। তার মধ্যে ৬৮% অর্থাৎ ১৪,৬০,০০,০০০(চৌদ্দ কোটি ষাট লাখ) ইয়েন অনুদান হিসেবে সংগ্রহ, ২৪% অর্থাৎ ৪,৯৫,০০,০০০(চার কোটি পঁচানব্বই লাখ) ইয়েন কর্যে হাসানা(সুদবিহীন ধার) এবং অবশিষ্ট ৮% অর্থাৎ ১,৪৫,০০,০০০ (এক কোটি পঁয়তাল্লিশ লাখ)এখনো ঘাটতির কথা জানান।

এরমধ্যে আবার ওজুখানা গোসলখানা এবং টয়লেট নির্মাণে মোট ১,১৫,০০,০০০(এক কোটি পনের লাখ) লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে প্রকল্পের কাজ ৯৯% সম্পন্ন হলেও এখাতে জরুরী ভিত্তিতে ৬৫,০০,০০০(পঁয়ষট্টি লাখ) ইয়েন জরুরী সহায়তা এবং মহিলাদের নামাজ ঘর নির্মাণে ৫০,০০,০০০( পঞ্চাশ লাখ) ইয়েন লক্ষ্যমাত্রা নিরধারন করে প্রকল্পের কাজ ৫০% সমাপ্ত হয়। এইখাতে জরুরী ভিত্তিতে ২০,০০,০০০(বিশ লাখ( ইয়েন জরুরী সহায়তা প্রয়োজন। মৃতদেহ গোসল দেয়া এবং রক্ষণে হিমাগার নির্মাণ ব্যয় ৩০,০০,০০০(ত্রিশ লাখ)ইয়েন লক্ষ্যমাত্রা নিরধারন করা হলেই অর্থাভাবে এখনো কাজ শুরু করা যায়নি বলে তিনি জানান।

মুক্ত আলোচনায় অংশ নিয়ে মুসল্লিরা বলেন, মসজিদ নিরমান করলেই হবেনা, এর রক্ষনাবেক্ষন, মসজিদে নিয়মিত নামাজ আদায়, পরিচালনার আর্থিক সহায়তা প্রদান এবং দাওয়াত ও জাপানে ইসলাম প্রচারে অংশ নিতে হবে।

তারা বলেন, মুসলিম দেশে একটি মসজিদ নির্মাণ এবং জাপানের মাটিতে মসজিদ নির্মাণ এককথা নয়। জাপানে মসজিদ নির্মাণের মুল উদ্দেশ্যে এদেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠায় অংশ নেয়া, চর্চা করে ইসলামী মূল্যবোধে আদর্শবান গড়ে তোলা এবং ভিন্ন ধর্মালম্বীদের কাছে তা প্রচার করা। জাপানে মসজিদ শুধু নামাজের জন্যই নয়, ইসলামিক সংস্কৃতি চর্চা এবং জাপানীদের উদ্ভুদ্ধ করা এবং ছড়িয়ে দেয়া।

সভায় তাৎক্ষনিক অনুদান হিসেবে ১,১৫,৪০০(এক লাখ পনেরো হাজার চার শত) ইয়েন সংগৃহীত হয়।

উল্লেখ্য ১,৫০০ বর্গ মিটার এর আয়তন বিশিষ্ট ভূখণ্ডটি ছিল মুলত একটি ক্যাসিনো বা ‘জাপানী পাচিনকো’ জাপান মুসলিমদের অনুদানের অর্থায়নে যা বর্তমানে মসজিদে রূপ দেয়া হয়। ইসলামিক কালচারাল ফাউন্ডেশন জাপান এর উদ্যোগ নেই এবং এর প্রতিষ্ঠা ও নেতৃত্বে বাংলাদেশী ব্যক্তিবর্গ।

১৯৯৬ সালে ৭০ বছর মেয়াদি প্রতিষ্ঠা পাওয়া ইমারতখানাটি অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে অত্যন্ত খোলামেলা পরিবেশে প্রতিষ্ঠিত। যার তিন পাশেই রয়েছে গাড়ি চলাচলের পথ। বর্তমানে একসাথে ৩০টি মোটরযান এবং ৫০টি বাইসাইকেল ( ৫০টি মোটরযান এবং শতাধিক বাইসাইকেল রাখার মতো নবায়ন যোগ্য ) রাখার সুবিধা রয়েছে নির্বাচিত স্থানটিতে। রয়েছে রসদঘর, অফিস রুম, বৈঠকখানা, শিশুদের প্লে – – গ্রাউন্ড এবং অন্যান্য সুবিধা সমূহ। প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ২১,০০,০০,০০০ (২১ কোটি) ইয়েন।

দেখা যেতে পারে “বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স” বাস্তবায়িত হলে কি কি সুবিধা ভোগ করা যাবে। আধুনিক এবং বহুমুখী সুবিধা সমৃদ্ধ বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স প্রকল্পে সুবিধা সমূহ একটু আলোকপাত করা যেতে পারে।

১, সালাত আদায় – প্রতিদিন পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামায়াতের সাথে আদায় করা যাবে এবং একসাথে ১,০০০ জন মুসল্লী নামাজ পড়ার সুবিধা থাকবে যা জাপানে এযাবত কালের সর্ব বৃহৎ । সংস্কারের পর মহিলাদের জন্য আলাদা নামাযের জন্য স্থান করা হবে যেখানে ৫০০ জন এক সাথে নামাজ আদায় করতে পারবেন। অর্থাৎ মোট ১,৫০০ মুসল্লী একই সাথে নামাজ পড়ার সুযোগ পাবেন।

২, দোয়া ও ইসলামিক সংস্কৃতি বিকাশ – থাকবে ইসলামিক সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র। জাপানী সহ অন্যান্য ভিজিটররা ইসলামী ইতিহাস এবং সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড সম্পর্কে সম্যক জ্ঞ্যান অর্জন করতে পারবেন।

৩, কোরআন এর আলোকে আলোচনা – ছুটির দিনগুলিতে কোরআন ও সুন্নাহ’র আলোকে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। থাকবে প্রশ্নোত্তর পর্ব।

৪, ঈদ/ধর্মীয় উৎসব পালন – বিভিন্ন দেশের মুসলিম জনগোষ্ঠী কে নিয়ে ঈদ উৎসব সহ ইসলাম ধর্মীয় বিভিন্ন উৎসবের বিভিন্ন আয়োজন সহ পারিবারিক বা সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করার সুযোগ থাকবে বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স প্রকল্পে ।

৫, আন্তর্জাতিক ইসলামিক বিদ্যালয় – জাপানে বসবাসরত মুসলীম শিক্ষার্থীদের জন্য একটি ‘হিফজুল কোরআন মাদ্রাসা’ প্রতিষ্ঠা করা হবে । যেখানে নারী ও পুরুষের জন্য স্ব স্ব লিঙ্গের শিক্ষকদের দ্বারা কোরানে হাফেজ তৈরিতে শিক্ষা দেয়া হবে।

৬, কমিউনিটি হল এবং কিচেন – প্রবাসীদের অনুষ্ঠান বিশেষ করে খাবার উপযোগী হল পাওয়াটা দীর্ঘ দিনের সমস্যা। এই সমস্যা সমাধানে মসজিদ কমপ্লেক্সে কিচেন সহ একটি হল রুম এর ব্যবস্থা রাখা হবে।

৭, নারীদের জন্য ভিন্ন প্রার্থনা রুম – ইসলামিক শরিয়ত মোতাবেক নারীরা যেনো পুরুষদের চেয়ে ভিন্ন রুমে সালাত আদায় করার ব্যবস্থা করা হবে। যেখানে একসাথে ৫০০ মুসল্লী জামাতে নামাজ আদায় করতে সক্ষম হবেন।

৮, জানাজা দেয়ার ব্যবস্থা – বর্তমানে মসজিদগুলোতে ওজু করার স্থানে মৃতের গোসল করানো হয়ে থাকে। এতে করে বেশ বেগ পেতে হয়। কিন্তু বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্সে আধুনিকতার ছোঁয়ায় মৃতের গোসল দেয়ার জন্য নির্ধারিত স্থান , মৃতের জন্য দাফনের যাবতীয় সরঞ্জাম পাওয়া যাবে এবং মৃতের নামাজে জানাজার ব্যবস্থা থাকবে।

৯, গাড়ি পার্কিং সুবিধা – ৩০টি মোটরকার এবং ৫০টি বাইসাইকেল পার্কিং সুবিধা রয়েছে বর্তমান অবকাঠামোতে । রি-ফর্ম করার পর এ সংখ্যা আরো বৃদ্ধি করা যাবে।

১০, ইসলামিক রিচার্স সেন্টার – প্রকল্পে ইসলামিক রিচার্স সেন্টার থাকবে। যেখানে ইসলামকে নিয়ে গবেষণা করতে পারবেন দেশী বিদেশী গবেষকগণ। জাপানী শিক্ষার্থীরাও এ সুযোগ পাবেন। ধারনা নিতে পারবেন ইসলাম সম্পর্কে।

১১, খাবারের রেস্তোরাঁ – অনেক সময় মুসল্লীগন মসজিদ এর আশপাশে হালাল খাবারের সমস্যায় ভুগেন। বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্সে হালাল খাবারের রেস্তোরাঁ থাকবে। নন মুসলিমরা ইসলামিক খাদ্য সংস্কৃতি সম্পর্কে সম্যক ধারনা নিতে পারবেন।

১২, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে আশ্রয় কেন্দ্র – প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে জাপানের আশ্রয় কেন্দ্রগুলিতে অনেক সময় শরিয়ত বজায় রাখা সম্ভব হয় না। সেই সমস্যা অনেকটাই দূর হবে বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্স আশ্রয় কেন্দ্রে। তবে , শুধু মুসলীমদের জন্যই নয়, আশ্রয় কেন্দ্র সকলের জন্য উন্মুক্ত থাকবে।

১৩, সমৃদ্ধশালী গ্রন্থাগার – মুসলীম এবং নন মুসলীম সবার জন্য উপযোগী সমৃদ্ধশালী একটি গ্রন্থাগার থাকবে বায়তুল আমান মসজিদ কমপ্লেক্সে। স্বাভাবিকভাবেই ইসলামিক বইয়ের প্রাধান্য থাকবে। এবং

১৪, আবাসন সুবিধা – জাপান সফররত ইসলামিক স্কলার/অতিথিদের জন্য খন্ডকালীন থাকার ব্যবস্থা থাকবে ।

এর মধ্যে ৪, ১২ এবং ১৪ নাম্বার কেবল মাত্র প্রয়োজনে এবং অস্থায়ীভাবে ব্যবহৃত হবে।

এতসব আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত একটি মসজিদ কমপ্লেক্স প্রতিষ্ঠা জাপান প্রবাসীদের জন্য নিশ্চয় গৌরবের এবং প্রশংসনীয় উদ্যোগ তা নিঃসন্দেহে বলা যায়। আর এই গৌরবময় অধ্যায়ের শরীক হওয়াটাও ভাগ্যের ব্যাপার। সবার ভাগ্যে তা জোটেনা । কিছু কিছু সৌভাগ্যবানদের ভাগ্যে জোটে। সেই সৌভাগ্যবানদের মধ্যে আপনার অংশ গ্রহন থাকবে না কেন ? সুযোগ যেহেতু হাতের মুঠোয় , তাই আসুন আমরা সবাই মিলে তা কাজে লাগিয়ে আমাদের ভবিতষৎ প্রজন্মের জন্য একটি ভালো কাজের অংশীদার হই।

এছাড়া আল- বুখারী এবং সহীহ মুসলিম হাদিস অনুযায়ী “যে ব্যক্তি আল্লাহ্‌র নৈকট্য লাভের জন্য মসজিদ নির্মাণ করলো , তার জন্য আল্লাহ্‌ তায়ালা জান্নাতে একটি ঘর নির্মাণ করবেন ।” এই হাদিস মোতাবেক সম্মিলিত উদ্যোগে মসজিদ নির্মাণেও সহযোগিতাকারী সকলেই সমান ছোয়াবের অধিকারী হবেন।

অনুদান পাঠানো এবং যোগাযোগের জন্য সংযোজন করা হলো –

জাপান পোস্ট ব্যাংক একাউন্ট

নং ১০৩৮০-৭২৯১৩০৫১ ( নর্মাল )
একাউন্ট হোল্ডার – Baitul Aman MSQ
যে কোন ব্যাংক থেকে – ব্রাঞ্চ নাম্বার ৩৮০ একাউন্ট নাম্বার ৭২৯১৩০৫ ।
SMBC Bank A/C No 4461314 , Oyama Branch(Normanl)
Account Holder – Islamik Cultural Foundation Japan

Leave a Reply