মেঘনা-ফুলদী দখলমুক্ত করুন

নদীমাতৃক বাংলাদেশের নদী অববাহিকাকে সংক্ষেপে বলা হয় গঙ্গা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা অববাহিকা। বিশুদ্ধ পানির উৎস এবং দেশের সবচেয়ে কম দূষিত বড় নদী হিসেবেও মেঘনার সুখ্যাতি ছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মেঘনা এই গৌরব হারাতে চলেছে। উজানের পরিস্থিতি কিছুটা ভালো হলেও মেঘনার ভাটি এলাকায় নদীদূষণ ও দখল-ভরাটের মচ্ছব চলছে। একের পর এক এলাকায় অবৈধ দখল-ভরাট এবং শত শত শিল্পকারখানার দূষণে মেঘনার ভাটি এখন মরণাপন্ন। মেঘনায় দখল-দূষণের এক ভয়াবহ চিত্র তুলে ধরা হয়েছে গতকাল বুধবারের দেশ রূপান্তরের শীর্ষ সংবাদে। সরেজমিন প্রতিবেদনটির সঙ্গে ড্রোনের সাহায্য নিয়ে ওপর থেকে তোলা আলোকচিত্রটি দেখলেই বোঝা যায়, মেঘনা-ফুলদীর বাঁকে কীভাবে নদী ভরাট করে গড়ে তোলা হয়েছে বিশাল শিল্পকারখানা। অথচ দেশের নৌচলাচল ও পানি ব্যবস্থাপনার অন্যতম প্রধান নদী হিসেবে বিবেচিত মেঘনা ও এর শাখা ও উপনদীগুলো।

‘মেঘনা-ফুলদীর বুকে কারখানা!’ শিরোনামের প্রতিবেদনটি থেকে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জ জেলার গজারিয়ার দৌলতপুর এলাকায় মেঘনা-ফুলদীর একাংশ ভরাট করে জাহাজ মেরামত ও নির্মাণ কারখানা গড়ে তুলেছে থ্রি অ্যাঙ্গেল মেরিন লিমিটেড নামে বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠান। নদী দখলের পাশাপাশি প্রকল্প এলাকায় দুটি খালও পুরোপুরি ভরাট করে বহুতল বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তুলেছে প্রতিষ্ঠানটি। এদিকে, নদী দখল ও ভরাটের ফলে সংকুচিত হয়ে পড়ায় ফুলদী নদী দিয়ে এখন বড় ধরনের কোনো নৌযান চলাচল করতে পারছে না। এর ফলে সেখানকার পাঁচটি খাদ্যগুদামসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নৌপথে পণ্য পরিবহন বন্ধ হয়ে গেছে। নদী ও খাল দখলের পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে দৌলতপুরে অন্তত শখানেক কৃষকের জমি বালি ফেলে দখলেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে। এলাকাবাসীর ভাষ্য, ওইসব জমির দখল ধরে রাখতে দিনরাত প্রতিষ্ঠানটির ৩০ জন অস্ত্রধারী পাহারা দিচ্ছে সেখানে। দৌলতপুরের দখল হওয়া জমির কয়েকজন মালিকের করা এক রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ এপ্রিল হাইকোর্ট একটি রুল জারি করে। চার সপ্তাহের মধ্যে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হলেও এখন পর্যন্ত তা দেননি মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক, গজারিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান ও সহকারী কমিশনার-ভূমি। এদিকে, দেশ রূপান্তরের কাছে থ্রি অ্যাঙ্গেল মেরিন লিমিটেডের ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা নদী, খাল ও ব্যক্তিমালিকানার জমি দখলের অভিযোগ অস্বীকার করলেও সরেজমিন দেখা যায়, মেঘনা নদীর পূর্বপাশে অন্তত ৫০০ ফুট চওড়া এলাকা নিয়ে বিপুল জায়গা ভরাট করেছে প্রতিষ্ঠানটি। মেঘনার যে অংশ থেকে ফুলদী নদীর উৎপত্তি সেখানেই থ্রি অ্যাঙ্গেল মেরিন ১৫০ একর জমির ওপর জাহাজ নির্মাণের জন্য মাটি ভরাট করেছে। এই ভরাটের ফলে মেঘনা নদী যেমন ছোট হয়েছে, তেমনি ফুলদী নদীর অর্ধেকই ভরাট হয়ে গেছে। এতে ফুলদী নদী দিয়ে নৌযান চলাচল করতে পারছে না।

আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও নদী ও খাল ভরাট করে কারখানা নির্মাণকরা প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে কোনো প্রশাসনিক পদক্ষেপ না নেওয়ায় সংগত কারণেই প্রশ্ন উঠছে যে, থ্রি অ্যাঙ্গেল মেরিন লিমিটেডের ক্ষমতার উৎস কোথায়? ২০১৯ সালের ৬ মে মুন্সীগঞ্জের তৎকালীন জেলা প্রশাসক জেলার নদী দখলদারদের যে তালিকা জাতীয় নদীরক্ষা কমিশনকে পাঠিয়েছিলেন সেখানে এক নম্বরেই ছিল এই প্রতিষ্ঠানটির নাম। অন্যদিকে, দেখা যাচ্ছে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীন বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষবিআইডব্লিউটিএ নদী-খাল দখলদার হিসেবে অভিযুক্ত থ্রি অ্যাঙ্গেল মেরিন লিমিটেডের সঙ্গে কেনাকাটার সম্পর্ক গড়ে তুলেছে। ইতিমধ্যে বিআইডব্লিউটিএ তাদের কাছ থেকে একটি টাগবোট, পাঁচটি ক্রেন, একটি ক্রু-হাউজবোট, পাঁচটি বার্জসহ ৭৫ কোটি টাকা ব্যয়ে আনুষঙ্গিক সরঞ্জাম কিনেছে। এছাড়া থ্রি অ্যাঙ্গেলের কাছ থেকে প্রায় অর্ধশত কোটি টাকা দামের একটি জরিপ জাহাজও কিনবে বিআইডব্লিউটিএ। সংগত কারণেই প্রশ্ন উঠছে যে, এমন একটি নদী দখলদার ও ঋণখেলাপিদের পরিচালিত প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে দেশের নদ-নদী দেখভালের দায়িত্বে থাকা বিআইডব্লিউটিএ কোন যুক্তিতে লেনদেন করছে?

একটা বিষয় স্মরণ রাখা প্রয়োজন, দেশের আইন অনুযায়ী কোনো নদ-নদী কখনোই লিজ দেওয়া যায় না। জমির শ্রেণিকরণ পরিবর্তন কিংবা অন্য যে কোনো জালিয়াতি করেই কোথাও নদ-নদীতে কোনো স্থাপনা গড়ে তোলা হলে বুঝতে হবে সেখানে অবৈধ দখল ও ভরাট হয়েছে। ২০১৯ সালে তুরাগ নদকে ‘জীবন্ত সত্তা’ ও ‘আইনি সত্তা’ হিসেবে ঘোষণা করে দেওয়া রায়ে দেশের সব নদ-নদী-খাল-বিল-জলাশয়কেও অঙ্গীভূত একক সত্তা হিসেবে একই সাংবিধানিক অধিকার ও মর্যাদা দেওয়া হয়। ওই রায়ে স্পারসোর স্যাটেলাইট সার্ভের মাধ্যমে দেশের নদ-নদীগুলোর ভৌগোলিক অবস্থান নির্ধারণ এবং সে সংক্রান্ত ডিজিটাল ডেটাবেইজ সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করার গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। প্রশ্ন হচ্ছে, রায়ের এ নির্দেশনা এখনো বাস্তবায়িত হয়নি কেন? নদী-জলাশয়ের সীমানা নির্ধারণের কাজ বাস্তবায়িত হলে অবৈধ দখলমুক্ত করার কাজে জেলা প্রশাসন, ভূমি মন্ত্রণালয়, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়সহ সরকারের নানা সংস্থা ও দপ্তরকে জবাবদিহির আওতায় আনা সহজ হবে। এমতাবস্থায় মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসন এবং বিআইডব্লিউটিএর উচিত হবে অবিলম্বে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে মেঘনা-ফুলদী দখলমুক্ত করা।

দেশ রুপান্তর

Leave a Reply