বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত!

নানা সময়ে-অসময়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অবস্থান করতেন তাঁর ভাগ্নিবাড়ি মুন্সীগঞ্জ তথা বিক্রমপুরের মিরকাদিমে। বঙ্গবন্ধুর স্মৃতি বিজড়িত সেই বাড়িটি এখন এক অজানা ইতিহাস। পঞ্চাশের দশকে নানা চ্যালেঞ্জে তিনি মিরকাদিমের দরগাবাড়ি আসতেন ভাগ্নির বাড়িতে। সেখানে মীর বাড়িতে তার বই পড়ে আর রেডিও শুনেই সময় কাটত। সেই বাড়িতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি পরতে পরতে। টিন-কাঠের তৈরি ঘরেই রাত্রিযাপন করতেন তিনি। পাশে বাবা আদমের মসজিদে নামাজ আদায়ও করতেন। আজ বঙ্গবন্ধু নেই, কিন্তু তাঁর স্মৃতি এখনও অম্লান। যার স্পষ্ট ইঙ্গিত রয়েছে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতেও।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মিরকাদিম পৌরসভার দরগা বাড়ি গ্রামের মীর বাড়ির (তৎকালীন ঢাকা জেলার মুন্সীগঞ্জ মহকুমার কাজী কসবা গ্রাম) মীর আশরাফ উদ্দিন আহাম্মেদ মাখনের সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নি মোসাম্মৎ মাহমুদা বেগমের বিয়ে হয়। মাহমুদা বেগম বঙ্গবন্ধুর বড় বোন ফাতেমা বেগমের মেয়ে। মাত্র ২০ বছর বয়সে ফাতেমা বেগম দুই সন্তান ছেলে ইলিয়াস আলী আর মেয়ে মাহমুদা বেগমকে নিয়ে বিধবা হন। তখন থেকেই মহৎ হৃদয়ের অধিকারী বঙ্গবন্ধুর স্নেহেই বড় হন মাহমুদা-ইলিয়াস। মাঝে মাঝে ভাগ্নি মাহমুদা বেগমকে দেখতে চলে আসতেন এখানে। অনেক সময় ২/১ দিন থেকেও যেতেন। বঙ্গবন্ধু তাদের বাবার অভাব বুঝতে দিতেন না। যখনই নারায়ণগঞ্জে শামীম ওসমানের (বর্তমান এমপি) পিতা খান সাহেব ওসমান গনি সাহেবের বাড়িতে মিটিং, সভা-সমাবেশ করতে আসতেন, তার ২/১ দিন আগেই ঢাকা থেকে স্টিমারে করে মিরকাদিমের কমলাঘাট বন্দরে নেমে ভাগ্নির বাড়ি যেতেন। পরে সেখান থেকে স্টিমারে নারায়ণগঞ্জ চলে যেতেন। ভাগ্নির বাড়িতে থাকা অবস্থায় তিনি স্থানীয় বিনোদপুর রামকুমার উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে মিটিং করেছেন বলেও জানা যায়। বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নি মাহমুদা বেগম ও ভাগ্নি জামাই মাখন মীরও নেই। কিন্তু বাড়িটিতে স্বজনরা বসবাস করেন এক বুক গর্ব নিয়ে।

মীর আব্দুস সালাম নামে বঙ্গবন্ধুর এক আত্মীয় বলেন, বঙ্গবন্ধু মিরকাদিমে আসতেন স্টিমারে করে। দরগাবাড়ির ঘরটিতে বসেই দেশমাতৃকার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই বাড়িটিতে রয়েছে বঙ্গবন্ধুর অজানা অনেক স্মৃতি। বাঙালীর মুক্তির জন্য জাতির পিতার ত্যাগ আর নানা স্মৃতি ছড়িয়ে-ছিটিয়ে আছে বাংলার আনাচে-কানাচে। বঙ্গবন্ধুর চলে যাওয়ার ৪৬ বছর পরেও তার ভাগ্নি মাহমুদা বেগমের বাড়িতে উচ্চারিত হচ্ছে সেই আলোকবর্তিকার নানা স্মৃতিচারণ।

-মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগগঞ্জ
জনকন্ঠ

Leave a Reply