রাজনীতিবিদদের কাছে খোলা চিঠি: এইবার আমাদের নিজেদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের সুযোগ দিন ।

রাহমান মনি: দুর্ভাগা এই জাতি, দুর্ভাগ্য আমাদের । ছোটবেলা থেকে মুরব্বীদের কাছ থেকে শুনে এসেছি ব্রিটিশরা আমাদের ভারত উপমহাদেশ ( সাধারণতঃ, বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, মালদ্বীপ ও শ্রীলঙ্কাকে নিয়ে ভারত উপমহাদেশ বলা হয়ে থাকে ) শাসন শুরু করে ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশী প্রান্তরে বাংলার শেষ নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে পরাজিত ও হত্যা করার মধ্য দিয়ে । নবাব সিরাজউদ্দৌলার পরিবারের কয়েকজন এবং তার রাজ্যর প্রশাসনের মধ্যে থেকে মীরজাফর, উমিচাঁদ, জগৎশেঠ প্রমুখের ষড়যন্ত্র ও বিশ্বাসঘাতকতায় নবাব সিরাজউদ্দৌলার পরাজয়ের সাথে সাথে মূলত স্বাধীন বাংলার সূর্য অস্তমিত হয় এবং শুরু হয় ইংরেজদের শাসন ও শোষণ। যার পরিসমাপ্তি ঘটে ১৯৪৭ সালের দেশ ভাগের মধ্য দিয়ে ।

প্রায় ১৯০ বছর শাসন ও শোষণ এর পর আমাদের পূর্ব পুরুষদের আন্দোলনের মাধমে ইংরেজ শাসন ও শোষণের অবসান ঘটে । ব্রিটিশদের তাড়ানোর পেছনে অন্যতম কারন ছিল পরাধীনতা থেকে মুক্তি । আশায় ছিল এই মুক্তি মিললে আর কেহ শোষণ করতে পারবেনা , বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়ানো যাবে ।

দুইশত বছরের কাছাকাছি শাসন করে বিদায় নিতে হয়েছে ব্রিটিশদেরকে । সেই থেকে শুরু হয় আমাদের (পূর্ব পুরুষদের ) স্বপ্ন বাস্তবায়ন করার ।

কিন্তু, দীর্ঘ সময় শাসন করার আমাদের ভাল করেই চিনেছিল ব্রিটিশরা । তাই তো বিদায়ের প্রাক্কালে ভাগ করে দিয়ে যায় তৎকালীন ভারতবর্ষকে । আর , তাদের কুটচালে আমাদের পূর্ব পুরুষরা ভাগাভাগি করে ক্ষমতার স্বাদ নেয়ার জন্য এবং তাদের অভিলাষে পাকিস্তান এবং ভারত নামে দুইটি দেশ ভাগ করে নেন ।

আমরা পাকিস্থানের অংশ হয়ে আত্ম প্রকাশ করি । পাকিস্তান আবার পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান নামে নামে প্রশাসনিক সুবিধার্থে ভাগ করা হয় । তখন কিছু কিছু বুঝতে শিখেছি মাত্র । ছোটবেলায় শুনতাম পূর্ব পাকিস্তানেই সব কিছু উৎপন্ন হয় আর তা চলে যায় পশ্চিম পাকিস্তানে । কাগজ তৈরি হয় পূর্ব পাকিস্তানে অথচ পশ্চিম পাকিস্তানে অপেক্ষাকৃত কম মূল্যে পাওয়া যায় । অর্থাৎ আবারো সেই শোষণ । আর এক্ষেত্রে শোষণ করতে থাকে পশ্চিম পাকিস্তানের শোষক শোষক গোষ্ঠী ।

পশ্চিম পাকিস্তান আমাদের মুখের ভাষা থেকে শুরু করে সব কিছুতেই আমাদেরকে দাবিয়ে রাখার চেষ্টারত ছিল । কিন্তু এভাবে কতোদিন ?

শোষিতের দানা জমাট বাঁধতে দেরি হয়নি । তারই পরিনতিতে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধ । ন্যায্য পাওনা থেকে কাউকে যে বেশী দিন বঞ্চিত করে রাখা যায়না , তারই প্রমান সরুপ আমাদের মহান স্বাধীনতা অর্জন ।

স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখতে শুরু করলাম । কিন্তু একটি ভুখন্ড এবং একটি পতাকা প্রাপ্তি ছাড়া আমরা কি সত্যিকার অর্থে স্বাধীন হয়েছিলাম ? আজও কি হতে পেরেছি ?

আর , তাইতো স্বাধীন দেশে স্বাধীনতার স্থপতির মুখে শুনতে হয়েছিল ‘যেদিকে তাকাই সব-ই চাটার দল’। আক্ষেপ করেছিলেন নিজের ‘কম্বলটি’ না পাওয়ায় । স্বাধীন দেশে জনগণের স্বপ্ন ভঙ্গ শুরুটা সেই থেকেই ।

‘সোনার বাংলা’ গড়ার প্রত্যাশা পূরণ হ’বার আগেই চলে যেতে হয় স্বাধীনতার স্থপতিকে । অকালেই । অপ্রত্যাশিত ভাবে । সেদিন কোন জোরালো প্রতিবাদ গড়ে উঠেনি । কাদের সিদ্দিকি কিছুটা প্রতিবাদ মুখর হয়েছিলেন মাত্র ।

কিন্তু কেন ? পাক হানাদার এবং তাদের দোসরদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে যে জাতি জয় ছিনিয়ে সেই জাতি কিনা গুটি কয়েক সেনা অফিসারের বিরুদ্ধে সামান্যতম প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা টুকুও করতে পারলো না ! এইটা কি আমাদের রাজনৈতিক নেতাদের ব্যর্থতা ? নাকি , নিজেদের স্বপ্ন ভঙ্গের কারনে সাধারন মানুষের নীরব সমর্থন ?

পট পরিবর্তনের পরবর্তীতে আসে সামরিক শাসক জেনারেল জিয়া । নতুন করে আবার আমাদেরকে স্বপ্ন দেখানো শুরু করে । সোনার বাংলার পরিবর্তে ‘স্বনির্ভর গ্রাম বাংলা’ । শুরু হয় সবুজ বিপ্লব । কিন্তু এই স্বপ্নও বেশীদিন স্থায়ী হয় না ।

আর এই সব ক্ষেত্রে স্বপ্ন দেখানো ও প্রচার করার জন্য প্রয়োজন হয় ধূর্ত লোকের । মজার ব্যাপার হ’লো , এর সব ক্ষেত্রেই কিন্তু ধূর্তলোকদের অভাব হয়নি । পটপরিবর্তনে শূন্য পদ পূরণ করার জন্য এগিয়ে এসেছে সুবিধাভুগি , স্বার্থবাদী কিছু সংখ্যক রাজনৈতিক নেতা এবং সুশীল সমাজ খ্যাত কিছু বুদ্ধিজীবি । তাইতো জনগনের আশা আকাংখ্যার কোন পরিবর্তন হয় না , বরং পদদলিত করে তারা নিজ নিজ আখের গুছাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন ।

পরাধীন থাকাবস্থায় আমাদের শোষণ করে শোষকরা সব কিছু নিয়ে গেছে । তাই আমরা সব সময় বঞ্চিতই থেকেছি ।

কিন্তু , এখন তো আমরা স্বাধীন । তাহলে , আমরা আজও কেন অবহেলিত ! এখন তো আমাদের উৎপন্ন পণ্য কেহ নিয়ে যায়না । ভীন দেশ থেকে কেহ শাসন করতেও আসেনা । তবে কেন নিজ দেশেও আমরা নিরাপদ নই ?

এতদ কিছু জানা সত্বেও আমাদের রাজনীতিবিদরা থেমে নেই । শুরু হয় মরহুম নেতাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের পালা । নিরলসভাবে তারা চেষ্টা করে আসছেন । কেহবা শহীদ জিয়ার আদর্শ বাস্তবায়নে , কেহবা জাতীর জনকের স্বপ্নের মাত্রাতিরিক্ত বাস্তবায়নের ( পূরণে ) চাপ চাপিয়ে দিচ্ছে আমাদের উপর ।

এতে অভ্যস্ত হয়ে ইচ্ছা বা অনিচ্ছা সত্বেও দীর্ঘদিন আমাদের তা মেনে নিতে হয়েছে । মেনেও নিয়েছি । আদর্শ এবং স্বপ্ন পূরণেই ব্যস্ত থেকেছি । সব কিছুতেই যেন স্বপ্ন অথবা আদর্শ ।

বর্তমানে আবার এতে নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে । তা সবারই জানা ।

কিন্তু আমরা ছা-পোষা মানুষ । জীবনযুদ্ধে অনেকটাই পেরেশান এবং বড়ই ক্লান্ত । হয়রান হয়ে গেছি আপনাদের পেছনে দৌড়াতে দৌড়াতে । এখন নিজেরা নিজেদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চাই ।

না , আমাদের স্বপ্ন আহামরি কোন চাওয়া পাওয়া নয় । সুস্থ্যভাবে , নিরাপদ জীবন যাপন-ই আমাদের স্বপ্ন ।

আমরা স্বপ্ন দেখি সন্তান সন্ততিদের নিয়ে নিরাপদ ভাবে বেঁচে থাকার , মুক্ত বাতাসে প্রাণভরে নিঃশ্বাস নেওয়ার , ঘর থেকে বের হলে আবার নিরাপদে ঘরে ফেরার ।

বিশেষ করে আমরা যারা বিদেশে বসবাস করে অর্থ উপার্জন করে অর্জিত অর্থ দেশে প্রেরণ করি । সেই অর্থ আমাদের দেশীয় অর্থনীতিতে কিছুটা হলেও প্রভাব ফেলে । সেখানে কোন চাঁদাবাজ থাকবে না । কেহ এসে বলবে না যে, বিদেশে থেকে অনেক কামিয়েছেন আমাদের কিছুটা দেন , নইলে —- । প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের জন্য আমলাদের পিছন পিছন দৌড়াদৌড়ি করতে করতে , জুতার তলা ক্ষয় হবেনা , ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে না । সঠিক পদ্ধতিতে সব কিছুরই সমাধান হয়ে যাবে ।

আমাদের স্বপ্ন , কোন সন্ত্রাসীর জন্য কাউকে বেঘোরে প্রাণ দিতে হবে না । মা বোনের ইজ্জত কেড়ে নিয়ে উৎসবে মেতে উঠবে না কোন নরপশু । প্রশ্রয় পাবে না কোন রাজনৈতিক ছত্রচ্ছায়ার ।

নিজেদের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করার জন্য ব্যবহার করবে না কোমলমতি তরুনদেরকে । সন্ত্রাস করে অর্জনকৃত সম্পত্তির ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে নিজেদের মধ্যে হানাহানির খেসারত হিসেবে পথচারী কিংবা সাধারন শিক্ষার্থীদের প্রাণ দিতে হবে না । নিরীহ শ্রমিক কিংবা খেটে খাওয়া মানুষদের আয়ে ব্যঘাত ঘটবেনা সন্ত্রাসের কারনে ।

আমাদের স্বপ্ন প্রবাস থেকে দেশে গিয়ে আতংকে দিন কাটাতে হবে না ।

আর এই সামান্য মৌলিক অধিকারটুকু পূরণ করার জন্য চাই সুষ্ঠু সমাজ ব্যবস্থা এবং সঠিক দিক নির্দেশনা এবং বলিষ্ঠ নেতৃত্ব । এর সবই সম্ভব আমাদের দেশ পরিচালনাকারী অর্থাৎ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের স্বদিচ্ছা এবং যোগ্য নেতৃত্বদানের মাধ্যমে ।

তাই , আমাদের রাজনীতিবিদদের কাছে সবিনয় অনুরোধ , মানুষের জীবন জীবিকায় প্রভাব পড়ে এবং মানুষের জীবন হানী হয় এমন কোন আদর্শ কিংবা স্বপ্ন বাস্তবায়ন আর নয় । নিজেদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের সুযোগ দিন । আপনাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করাতে হলে নিজ নিজ সন্তানদের বিদেশে নিরাপদে না রেখে বাংলাদেশে রেখে তাদেরকে রাস্তায় নামিয়ে মিছিল করান । পিকেটিং করান ।

হরতালের জন্য কিংবা হরতাল বিরুধী মিছিলে যোগদান করিয়ে অযথা আন্দোলনের নামে ইটপাটকেল নিক্ষেপে রাস্তায় নিজ সন্তানদের লাশ ফেলে সে লাশ কাঁধে নিয়ে নিজে মিছিল করুন । বুঝতে পারবেন, পিতার কাঁধে সন্তানের লাশ কতোটা ভারী এবং মায়ের বুক কতোটা খালী !

সব শেষে বলবো , আমাদের স্বপ্ন খুবই মানবিক এবং যুক্তিসঙ্গত ।

বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নয় , শহীদ জিয়ার গ্রাম বাংলা নয় কিংবা এরশাদের নতুন বাংলাও নয়, আমরা আমাদের বসবাসযোগ্য দেশ, বাংলা (বাংলাদেশ) গড়ায় এবং দু’বেলা দু’মুঠো খেয়ে স্বাভাবিক জীবন যাপন করে বেঁচে থাকার স্বপ্ন পূরণের সুযোগ দিন ।

দয়া করুন ।।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply