‘তোমার ভোট আমি নিব,যাকে খুশী দিয়ে দিব’ এবং উন্নয়নের রোল মডেল

রাহমান মনি: ১৯৮০ সালের একটি ঘটনা মনে পড়ে গেল । আমি তখন দশম শ্রেণীর ছাত্র । সবে কৈশোরে পা রেখেছি । নৌপথে নারায়ণগঞ্জ থেকে মুন্সিগঞ্জ-এর মাত্র ৩০ মিনিটের যাত্রা । মাধ্যম লঞ্চ । তখন লঞ্চ-ই ছিল যাতায়াতের প্রধান মাধ্যম ।

খাজা লঞ্চ নামক একটি লঞ্চ-এ উঠেছি । সহযাত্রী এক বৃদ্ধ ভদ্রলোক কথা বলার জন্য কাছে যেতে ইশারা করে ডেকে নিলেন । যাওয়ার পর উনি বিভিন্ন প্রশ্ন করে আমাকে বিব্রত করে ফেললেন । রীতিমতো ছোট খাটো এক ইন্টারভিউ ।

বলা বাহুল্য, আমাদের দেশে কিছু মুরব্বী আছেন, যারা অল্প বয়স্ক ছেলে/মেয়ে দেখলেই বিভিন্ন প্রশ্ন করতে ভালোবাসেন । ইংরেজী ট্রান্সলেশন থেকে শুরু করে বাগধারা , অংক , সাধারণ জ্ঞান এর প্রশ্ন , বর্তমান রাজনীতি, কোন কিছুই বাদ রাখেন না ওইসব ইন্টার্ভিউতে । ওই বয়সের বি,সি,এস এর মতোই কঠিন ছিল সেইসব ইন্টারভিউ ।

এসব ক্ষেত্রে অনেক সময় যাত্রাটা-ই নিরানন্দ হয়ে যায় । বিব্রত হতে গিয়ে অনেক সহজ প্রশ্নও সঠিকভাবে উত্তর দেওয়া যায় না । আর আশে পাশে কোন পরিচিত লোক কিংবা বিপরীত লিঙ্গের সমবয়সী থাকলে যে কি পরিমান বিব্রত হ’তে হয় তা আল্লাহ্‌ এবং ভুক্তভুগি ছাড়া অনুধাবন করার ক্ষমতা কারোরই থাকে না ।

যে কথা বলছিলাম । ওই ভদ্রলোক আমার নাম, ঠিকানা, বয়স, স্কুলের নাম ,শ্রেনী এবং রুল নাম্বার সবই জেনে নিলেন । কে, কে, স্কুলে পড়ি জানার পর এক পর্যায়ে ক্লাশে বাংলা কে পড়ান তা জানতে চাইলেন । বাবু সুশান্ত কুমার ঘোষাল স্যার বলতেই ও ‘সুশান্ত’ ! তা হলে তো বাংলায় ভালোই থাকার কথা । আচ্ছা বলতো “পাহাড়ের পরে পাথরের ঘরে, আমার জন্মস্থান” , এখানে আমার বলতে কবি কাহাকে বুঝাতে চেয়েছেন ? মনে মনে বললাম কার জন্মস্থান কোথায় তা আমি কি করে জানবো ? স্বয়ং কবিকেই জিজ্ঞাসা করে জেনে নিলেই পারেন । কিন্তু মনেরটা মনেই থাক এই ভেবে চেপে ঝট পট উত্তর না দিয়ে একটু ভেবে (চিন্তা করার ভান করে ) বললাম , এখানে আমার বলতে কবি নিজেকে বুঝিয়েছেন ।

না , কিছুই জানোনা । কবি এখানে আমার জন্ম বলতে নদী কে বুঝিয়েছেন । নদীর জন্ম যে পাহাড় থেকে তাও কি জানোনা ? কিছুটা ক্ষেপে গিয়ে বললেন , সুশান্ত তোমাদের কি পড়ায় ? দাড়াও আমি ওকে জিজ্ঞাসা করে নিই ।

আমি তো সূরা কলেমা যা জানা ছিল সবই একাধিকবার মুখস্ত পড়ে ফেলেছি এই ভেবে যে , সত্যিই যদি স্যারের কাছে বলে দেন তাহলে পিঠের চামড়া পিঠে থাকবে কিনা ?

পরে অবশ্য কোন বিপদে পড়তে হয়নি এবং এও জেনেছিলাম যে , উনি ছিলেন আমার স্যারেরও স্যার। অর্থাৎ অনেকটা বাবার উপরে বাবার মতো । এরপর থেকে তাঁর সাথে রাস্তায় দেখা হলে মুখোমুখি হওয়ার আগেই দূর থেকে অন্য দিকে কেটে পড়তাম ।

আজ অনেক বছর হয়ে গেছে । তার সাথে দেখা সাক্ষাৎ হয়না । অবশ্য তার কারনও স্নাতক পরীক্ষা দিয়েই জাপান চলে আসি ভাগ্যের অন্বেষণে আর উনি তাঁর বাসভবন মুন্সিগঞ্জ শহরের শ্রীপল্লীর নিজ বাসভবনে ।

দীর্ঘ চার দশক পর অতি সম্প্রতি তাঁর কথা প্রাশয়ই মনে পড়ে । তার কারন দেশ পরিচালনায় আমাদের কর্তা ব্যাক্তিদের সস্তা রাজনৈতিক বুলি ‘আমার ভোট আমি দিব , যাকে খুশী তাকে দিব’ শুনতে শুনতে অভ্যস্ত এমন কি কান ঝালাপালা হয়ে গেছে । নিশ্চয় তিনিও শুনেছেন !

কল্পনা করি , এখন যদি তাঁর সাথে আমার বয়সী ( সে সময়ের ) কোন কিশোরী/কিশোরীর দেখা হয় তাহলে কি তিনি ইশারায় কাছে ডেকে জানতে চান , ‘আমার ভোট আমি দিব , যাকে খুশী তাকে দিব’ না বলে বলতেন “তোমার ভোট আমি নিবো, যাকে খুশী দিয়ে দিবো” এখানে ‘তোমার’, ‘আমি’ , ‘যাকে’ বলতে কাদেরকে বুঝানো হয়েছে ?

আমি কোন উত্তরটি দিলে তিনি খুশী হতেন জানিনা । তবে , আজ আর বিলম্ব না করে ঝটপট করেই উত্তর দিয়ে বলতাম ‘এখানে তোমার বলতে জনগনকে , আমি বলতে নেতাদের পোষ্যদের এবং যাকে বলতে নেতাদের নিজেদের কথা বলতে চেয়েছেন । অর্থাৎ জনগণের ভোট বিভিন্ন লীগ বা দল এর পোষ্য ক্যাডাররা তাদের মনিবদের (নেতাদের) দিয়ে দিবেন । জনগণকে কষ্ট করে সীল মারতে হবে না ।

কিছুদিন তাই-ই বজায় ছিল । বর্তমানের ডিজিটাল যুগে জনগনের প্রতি উদার এই সরকার জনগনের কষ্ট আরো লাঘব করার ব্যবস্থা নিয়েছে । এখন আর ভোটের দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় না । আগের দিন রাতেই সব ভোট নিয়ে নেয়া হয় নিজের মনে করে ।

শুধু কি তাই ! আগে শুনতাম ধর্ষণ করা হতো পাটক্ষেত কিংবা পরিত্যক্ত ঘরে । এখন ধর্ষণ করা হয় স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে স্ত্রীকে , ভাইয়ের সামনে বোনকে , পিতার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে আদরের মেয়েকে । এতে নাকি ভিকটিম টানা হেঁচড়ার কষ্ট লাঘব হয় । এসব আবার গণনা করে রাখা হয় । সেঞ্চুরি করে সেলিব্রেট করে স্মরণীয় করে রাখার জন্য । ‘ধর্ষণের গণনা নিজে করবো, প্রয়োজন হলে লিখে রাখবো’ স্লোগানে উদ্বুদ্ধ হয়ে । সেলিব্রেট করে আবার ফলাও করে প্রচারও করা হয়ে থাকে

উন্নয়ন আর কাকে বলে ! উন্নয়নের রোল মডেল ই বটে !!!

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply