গজারিয়ায় হাতুড়িপেটায় মীম হত্যা: এক আসামি গ্রেপ্তার

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় হাতুড়িপেটায় নিহত মীম হত্যা মামলার এক আসামিকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। শনিবার এলাকাবাসীর সহযোগিতায় উপজেলার কলসেরকান্দি গ্রাম থেকে তাকে আটক করে পুলিশ। গ্রেপ্তার রাজিব (২০) কলসেরকান্দি গ্রামের আবুল কালামের ছেলে।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর ইসমানিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায় লোহার হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মো. সাজিদুল ইসলাম মীমের (২২) দুই হাতের কনুই, দুই পায়ের হাঁটুর হাড় ভেঙে দেয় একদল হামলাকারী।

নয় দিন পর বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মারা যান।

নিহত মীমের বড় ভাই তছলিম সাংবাদিকদের বলেন, তার ভাই মীম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হামলাকারীদের নাম বলেছেন; এর মধ্যে রাজিবের নামও রয়েছে।

“আটক রাজিব আমাদের সামনে পুলিশের কাছে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে মীম হত্যাকাণ্ডে জড়িত সকলের নাম প্রকাশ করেছে।”

তিনি আরও বলেন, “মামলা করার পর থেকে আমরা পরিবারের সবাই নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। আমাদের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বলা হচ্ছে বার বার।”

গজারিয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রর ইনচার্জ মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আটক রাজিবকে মীম হত্যা মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে কোর্টে চালান দেওয়া হবে। তদন্ত সাপেক্ষে ঘটনায় জড়িত থাকলে তাকে আসামি করা হবে।

নিহতের বাবা মো. আব্দুস সাত্তার মামলায় অভিযোগ করেন, তার ছেলে সাজিদুল ইসলাম মীম গত ১০ সেপ্টেম্বর বনভোজনে যাওয়ার জন্য সংগ্রাম মোল্লার (২৪) কাছ থেকে ৪০০ টাকা ঋণ নেন। এই টাকা চাওয়া নিয়ে ১৫ সেপ্টেম্বর নাজিরচর থেকে বাড়ি যাওয়ার সময় ইসমানিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সংলগ্ন পাকা রাস্তায় তার সঙ্গে মীমের কথা কাটাকাটি হয়।

“এক পর্যায়ে পাশের একটি কিন্ডারগার্টেনের মাঠে নিয়ে এলোপাতাড়ি মারধর শুরু করে। লোহার হাতুড়ি দিয়ে মীমের দুই হাতের কনুই, দুই পায়ের হাঁটুর হাড় ভেঙে দেয়াসহ নির্মমভাবে পেটায়।”

মীমের আর্ত চিৎকারে স্থানীয়রা গিয়ে উদ্ধার করে তাকে গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দেন।

এই ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আসামিরা হলেন ইসমানির চরের মো. সংগ্রাম মোল্লা (২৪), মো. আতাউর (২৭), মো. সম্রাট (২২), মো. তুষায় (২০), মো. ছাব্বির (২২), মো. নিজুম (২২), মো. অপু (২১), কলসের কান্দির মো. আরজু (২০), মো. শুভসহ (২০) আরও কয়েকজন।

বিডিনিউজ

Leave a Reply