জাপানের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর দৌড়ে কিশিদা অনেকটাই এগিয়ে

রাহমান মনি: ক্ষমতা গ্রহণের এক বছরের মাথায় পদত্যাগ এর ঘোষণা দিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগা। এছাড়াও আগামী মাসে দেশটির ক্ষমতাসীন দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) নেতৃত্বে নির্বাচনী লড়াইয়েও তাকে দেখা যাবে না।

এখন জল্পনা তৈরি হয়েছে এরপর কে হবেন জাপানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ? বর্তমানে সুগার সাবেক প্রতিদ্বন্দ্বী ফুমিও কিশিদাকে সামনের সারিতে দেখা হচ্ছে।

আগামী ৪ অক্টোবর ক্ষমতাসীন দলের প্রধান নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে । ইতোমধ্যে নির্বাচনে চারজন প্রার্থী চূড়ান্ত ।

এই চারজন প্রার্থী হচ্ছেন, আবে প্রশাসনের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী, দলের নীতিনির্ধারণ প্রধান ফুমিও কিশিদা (৬৪), আবে প্রশাসনের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং বর্তমানে ভ্যাক্সিন প্রদান সমন্বয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী তারো কোনো (৫৮), নারী প্রার্থীদের মধ্যে সাবেক আভ্যন্তরীণ মন্ত্রী সানায়ে তাকাইচি (৬০) এবং ক্ষমতাসীন দলের নির্বাহী ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল সেইকো নোদা (৬১) ।

আগামী ৪ অক্টোবর বুধবার এলডিপি’র প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থীর মধ্যে এলডিপি নীতি প্রধান ফুমিও কিশিদা দলের আইনপ্রণেতাদের কাছ থেকে সমর্থনে এগিয়ে রয়েছেন বলে জিজিপ্রেস পরিচালিত একটি জরিপের ফলাফলে জানা গেছে । তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে বর্তমানে ভ্যাক্সিন প্রদান সমন্বয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী তারো কোনো’র নাম বেরিয়ে এসেছে । জরিপে তৃতীয় স্থানে রয়েছেন সানায়ে তাকাইচি । অপরদিকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব সেইকো নোদা অনেকটাই পিছিয়ে রয়েছেন জরিপের ফলাফলে ।এলডিপি আইন প্রণেতাদের সাথে সরাসরি সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে জরিপটি পরিচালনা করা হয় । জরিপে আগামী নির্বাচনে এলডিপি’র আইনপ্রণেতাদের এবং সাধারণ সদস্যদের ভোটে প্রথম রাউন্ডে চারজন প্রার্থীর কেউই নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে বলে মনে করা হচ্ছে না।

তাই, জাপান মিডিয়া সুত্র মতে এলডিপি’র প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে শীর্ষ ২ প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যেই দ্বিতীয় রাউন্ড নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

জরিপ কিংবা মিডিয়া সুত্র যাই-ই বলুক না কেন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা যে কিশিদা এবং কোনো’র মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে একথা নিশ্চিত ভাবেই বলা যায় এবং সেই লড়াইয়ে কিশিদার জয়ের সম্ভাবনা -ই বেশী ।

ফুমিও কিশিদা

হিরোশিমাতে একটি রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেয়া ফুমিও কিশিদা জাপানের বিখ্যাত ওয়াসেদা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৮২ সালে আইনে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন । তার দাদা মাসাকি কিশিদা এবং পিতা ফুমিতোকে কিশিদা উভয়ে সংসদের নিন্মকক্ষের সদস্য এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী কিইচি মিয়াযাওয়া ছিলেন তার আত্মীয় ।

কিশিদা ২০০৭ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত ওকিনাওয়া বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন, প্রথমে আবে মন্ত্রিসভায় এবং পরে ফুকুদা মন্ত্রিসভায় । পরবর্তীতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইয়াসুও ফুকুদার মন্ত্রিসভায় তিনি ভোক্তা বিষয়ক ও খাদ্য সুরক্ষার দায়িত্বে নিযুক্ত হন এবং পরে মন্ত্রিসভায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির দায়িত্বে ছিলেন ।

জাপানের অত্যন্ত জনপ্রিয় প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে নেতৃত্বাধীন সরকারের শাসনামলে ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছেন ফুমিও কিশিদা ।

তারো কোনো

জর্জটাউন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করা তারো কোনো’র ইংরেজিতে ব্যাপক দক্ষতা রয়েছে। সাধারনত তার বক্তব্য প্রদানের সময় তিনি দোভাষীর সহায়তা নেন না। নিজেই ২টি ভাষায় বক্তব্য দিয়ে থাকেন। এর আগে তিনি দেশটির পররাষ্ট্র ও প্রশাসনিক সংস্কারবিষয়ক মন্ত্রী এবং তার আগে প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন।

অত্যন্ত স্পষ্টবাদী ৫৬ বছর বয়সী কোনো যুদ্ধবিরোধী নেতা হিসেবে বেশ প্রসিদ্ধ । যুদ্ধকালীন ইতিহাসে দক্ষিন কোরিয়ার সঙ্গে বিরোধের ক্ষেত্রে আবের নেয়া সিদ্ধান্তের প্রতি দৃঢ় সমর্থন জানিয়েছেন তারো কোনো ।

rahmanmoni@gmail.com

Leave a Reply