ভূমিদস্যুর জমি দখলের অভিযোগ, সংঘর্ষের আশঙ্কা

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীতে হামিদ গাজী নামে এক ভূমিদস্যুর বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। জমি দখল করে সেখানে মাটি ফেলে ভরাট করে নিয়েছে হামিদ গাজী। এই নিয়ে জমির মালিক মফিজুল হক মল্লিক ও হামিদ গাজীর মধ্যে বিরোধ তীব্র আকার ধারণ করেছে। যে কোন সময় দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। হামিদ গাজীও দাবি করেছেন তিনি জমির প্রকৃত মালিক।

স্থানীয়রা জানান, গত ১০ বছর আগে পশ্চিম মাকহাটি গ্রামের মৃত রহমান খালাসীর দুই ছেলে তোতা খালাসী, ভুলু খালাসী এবং তিন মেয়ে আশুদা বেগম, আমেনা বেগম ও তাছলিমা বেগমের কাছ থেকে মাকহাটি গ্রামের মৃত হাজী মো. ছোলেমান মল্লিকের ছেলে মফিজুল হক মল্লিক জমি ক্রয় করেন। এরপর মফিজল হক মল্লিক জমির কিছু অংশ ভরাট করে বাড়ির কাজ এবং ঘর তৈরি করেন। আলদী মৌজার ২৮৭ নং খতিয়ানের ৪৭৩ দাগে তোতা খালাসী গংয়ের কাছ থেকে নাদাবি নামা দলিলের মাধ্যমে কিনে নেয়া ১২ শতাংশ ২৫ পয়েন্ট জমির মধ্যে সাড়ে তিন শতাংশ জমি নিয়ে শুরু হয় বিরোধ। মফিজল মল্লিকের ক্রয় করা জমির মধ্যে হামিদ গাজী সাড়ে ৩ শতাংশ তোতা খালাসীর কাছ থেকে ক্রয় করেছেন বলে দাবি করেন এবং জমি ভরাট কাজে হাত দেয়। জমি ক্রয় করার পরই মফিজল হক মল্লিক তার নামে নামজারি এবং ভূমিকর পরিশোধ করেন। তোতা খালাসী স্ট্রোক করার পর মুখের কথা বন্ধ হয়ে গেলে সম্প্রতি হামিদ গাজী তোলা খালাসীর কাছ থেকে সাড়ে তিন শতাংশ জমি ক্রয় করার কথা জানান এবং নিজের নামে নামজারি করায়। এই নামজারি বাতিলের জন্য মফিজল হক মল্লিক আদালতে মামলা করলে হামিদ গাজীর নামজারি বাতিলের আদেশ দেয় এবং জমির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। এরপরও হামিদ গাজী মাটি ভরাট করে জমি দখলের চেষ্ঠা করছেন বলে মফিজল হক মল্লিক জানান।

এই ব্যাপারে স্থানীয়রাও জানালেন এই জমি মফিজল হক মল্লিক তোতা খালাসী গংয়ের কাছ থেকে ক্রয় করেছেন।

এ ব্যাপারে হামিদ গাজী জানান, এই জমি তার। তিনি তোতা খালাসীর কাছ থেকে দলিলের মাধ্যমে ক্রয় করেছেন।

এদিকে, তোতা খালাসী স্ট্রোক করার পর কথা বলতে পারছেন না। স্বাভাবিকভাবে হাটাচলাও তার বন্ধ। তার কাছ থেকে জানার চেষ্টা করেও তিনি কথা বলতে না পারায় জমির প্রকৃত মালিক কে জানা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে তার ছেলে সুমন খালাসী জানায়, তার বাবা মফিজল হক মল্লিকের কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলেন। সে টাকা দিতে না পারায় তার বাবা তোতা খালাসী জমি দিতে বাধ্য হয়েছেন।

এ ব্যাপারে মফিজল হক মল্লিক জানান, তিনি সঠিকভাবে জমি ক্রয় করেছেন। হঠাৎ আলদীর ভূমিদস্যু হামিদ গাজী তোতা খালাসী অংশের সাড়ে ৩ শতাংশ জমি দাবি করে ভরাট করে। এতে বাঁধা দিলে হত্যার হুমকি দেয়। এখন তার ভয়ে জমিতে যেতে পারছিনা।

অবজারভার

Leave a Reply