টোকিওর গ্যালারীতে জাপান-বাংলাদেশ যৌথ উদ্যোগে আন্তর্জাতিক চিত্রশিল্প প্রদর্শনী

রাহমান মনি: টোকিওর প্রসিদ্ধ্ব ‘মেট্রোপলিটান আর্ট মিউজিয়াম’ ওয়েনো আর্ট গ্যালারীতে শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী জাপান – বাংলাদেশ যৌথ চিত্রকলা প্রদর্শনী । ২৮ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া চিত্র প্রদর্শনী আগামী ৫ অক্টোবর শেষ হবে । চিত্র কলা প্রেমীদের জন্য প্রতিদিন সকাল সাড়ে নয় টা থেকে বিকেল পাচ টা পর্যন্ত একটানা খোলা রাখা রয়েছে।

“শিনকিয়ূকু আর্ট এসোসিয়েশন” (Shinkyuko Art Association) আয়োজিত যৌথ চিত্র প্রদর্শনী’র আয়োজনটি ছিল ২৭তম । প্রদর্শনীতে ২৭১ জন চিত্র শিল্পীর ৩৮৯ টি চিত্রকর্ম স্থান পায় । তার মধ্যে বাংলাদেশী ১০ জন চিত্রশিল্পী এবং ১০০ জন শিশু শিল্পীর চিত্রকর্ম স্থান পায় । এছাড়াও ঘানা , চীন , দক্ষিন কোরিয়া , মঙ্গোলিয়া , নেপাল এবং স্থানীয় জাপানি চিত্র শিল্পীদের চিত্র কর্ম প্রদর্শনীতে স্থান পায়।

এই চিত্র প্রদর্শনীতে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশী চিত্রশিল্পী মোহাম্মদ সোলায়মান হোসাইন ( সালমান ) এর মাউন্ট ফুজি এবং ওশিনো হাক্কাই এর ৮ টি প্রাকৃতিক ভাবে সৃষ্ট পুকুর যা ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসাবে স্বীকৃত তার নৈসর্গিক সৌন্দর্যকে কেন্দ্র করে আঁকা ড্রোনভিউ এর ৯ টি চিত্রকর্ম স্থান পায়।

এই চিত্রকর্মে ২৫০ বছরের পুরনো গীতিকবিতা সন্নিবেশিত হয়েছে যা একটি নতুন ধারা । এই ধারায় ছবি থেকে কবিতা , কবিতা থেকে গান , গান থেকে নৃত্যের একটি যোগসূত্র তৈরী করা হয়েছে । যা মাউন্ট ফুজি নিয়ে আঁকা চিত্রকর্মে এই প্রথম ।

সালমানের ৯টা শিল্পকর্মের পাশাপাশি বাংলাদেশের আরো ১০ জন শিল্পীর ১০টি চিত্রকর্ম প্রদর্শিত ও পুরষ্কার এর জন্য মনোনিত হয়েছিল । বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশের ১০০ জন শিশু শিল্পীর ফুজি পাহাড়ের চিত্রকর্ম দেখে অংকিত চিত্রকর্ম এবং জাপানিজ শিশুদের লিখা কবিতা একসাথে প্রদর্শিত হচ্ছে।

৫ অক্টোবর মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রদর্শনী খোলা থাকলেও আজ ৩ অক্টোবর রোববার ছিল পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে শিনকিয়োকু আর্ট এসোসিয়েশন সংশ্লিষ্ট কর্তা ব্যাক্তিগন ছাড়া উপস্থিত ছিলেন জাপানস্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত সাহাবুদ্দিন আহমেদ , নেপাল দূতাবাসের কাউন্সেলর আমবিকা জোশি এবং জাপানের ক্ষমতাসীন জোটের এলডিপি’র শিক্ষা, সংস্ক্রিতি ,বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের চেয়ারম্যান মাসাআকি আকাইকে ।

প্রদর্শনীতে শিল্পী মোহাম্মদ সোলায়মান হোসাইন ( সালমান ) নেপাল এম্ব্যাসি এওয়ার্ড এবং ওশিনো মুরা সিটি মেয়র এওয়ার্ড পুরস্কার দু’টি জিতে নেন।

এছাড়াও তিন জন জাপানিজ চিত্রশিল্পী- বাংলাদেশ দূতাবাস পুরস্কার জন্য মনোনিত হয়েছেন ।

শিনকিয়ূকু আর্ট এসোসিয়েশন এর পক্ষ থেকে বাংলাদেশ এবং নেপাল দূতাবাসকে দু’টি চিত্রকর্ম উপহার দেয়া হয়। রাষ্ট্রদূত সাহাবুদ্দিন আহমেদ বাংলাদেশের পক্ষে উপহার গ্রহন করেন। এছাড়াও তিনি শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন।

যেকোনো সংস্কৃতি অন্য সংস্কৃতির সংস্পর্শে পারস্পরিক বিনিময়ের মাধ্যমে নতুন নতুন উপাদান সংগ্রহ করে নিজেকে সমৃদ্ধ করে তারই ধারাবাহিকতায় শিনকিয়ুকো আর্ট এসোসিয়েশন এর সাথে বাংলাদেশের শিল্পীদের চিত্র শিল্পের আদানপ্রদান শুরু হয় ।

শিল্পী মাত্রই রূপ-বিলাসী এবং তার সৃষ্ট রূপই হল শিল্প। শিল্পের চরিত্র সত্যকে, অনুভূতিকে ও অন্যান্য গুণকে তুলে ধরা ।

শিল্পী তার দৃষ্টিগোচরতায় এইসব শিল্পসামগ্রী অনুভবের সাহায্যে ভাবাবেগে শিল্পরূপ সৃষ্টি করেন।

এই নান্দনিক শিল্প-জগত ইন্দ্রিয়-ভিত্তিক, সেইসঙ্গে অনুভব ও কল্পনার। বস্তুজগতের দৈনন্দিন প্রত্যক্ষ প্রতিচ্ছায়ার পরিবর্তে ব্যঞ্জনাময় রূপান্তরিত সৃজন, বিষয়বস্তু ও রূপের সামঞ্জস্যের সম্মিলন।

বাংলাদেশ দূতাবাস জাপান কতৃক তিন জন জাপানিজ শিল্পী- বাংলাদেশ দূতাবাস পুরস্কার জন্য মনোনিত হয়েছেন ।

উল্লেখ্য এর আগে জাপানে ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে আন্তজাতিক চিত্রকর্ম প্রতিযোগীতা কিয়কু বি তে অংশ নিয়ে বাংলাদেশী মেধাবী চিত্রশিল্পীরা বাংলাদেশের জন্য সম্মান বয়ে এনে দিয়েছিলেন । বিশ্বদরবারে নিজ দেশকে সম্মানের সংগে পরিচিত দিতে পেরেছে। ২০১৬ তে প্রতিযোগীতায় অংশ নিয়ে দু’জন শিল্পী পুরষ্কার পেয়েছিল। ২০১৭ সালে চার জন বাংলাদেশী চিত্রশিল্পী পুরস্কার পেয়েছিল। এরা হচ্ছেন ইউনিভাসিটি অব ডেভেলপমেন্ট অলটারনেটিভ (ইউডা) এর চারুকলা ভিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর শাহজাহান আহমেদ বিকাশ, মোঃ ফজলুর রহমান ভুটান, আব্দুস শাকুর শাহ এবং তরুণ চিত্রশিল্পী মোঃ সোলায়মান হোসেন সালমান ।

এছাড়াও শাহজাহান আহমেদ বিকাশ ২০০০ এবং ২০০১ সালে বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড এবং ২০১৫ সালে চীন এ আয়োজিত অ্যাওয়ার্ড অব গ্লোবাল কালচারাল আর্টিস্ট পুরষ্কার জয়ের গৌরব অর্জন করেন।

Leave a Reply