মুন্সীগঞ্জে আলুর মূল্য বৃদ্ধি

অতি বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে উত্তরাঞ্চলের আগাম আলু চাষ বিঘ্নিত
মঞ্জুর মোর্শেদ: মুন্সীগঞ্জে গত এক সপ্তাহে আলুর মূল্য হঠাৎ করে বস্তাপ্রতি ৪শ’ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। আলু ব্যবসায়ীরা সিণ্ডিকেট করে এবারও মূল্য বৃদ্ধি করেছে। মুন্সীগঞ্জে চলতি মৌসুমে প্রায় ৩৮ হাজার ৩০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়। মোট আলু উৎপাদন হয় প্রায় ১৪ লাথ ১৬ হাজার মেট্রিক টন। উৎপাদন খরচ বেশি পড়ায় এবং ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় প্রান্তিক কৃষক এবারও লোকসান গুনেছে। মূল্য কম থাকায় গত এক সপ্তাহ পূর্বেও ব্যবসায়ী এবং কৃষক হিমাগার থেকে আলু বের করেনি। মূল্য বৃদ্ধিতে কৃষক এবং আলু ব্যবসায়ীদের লোকসানের পরিমান কিছুটা কমেছে।

জেলা কৃষি সস্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলার ৬ উপজেলায় মোট ৩৮ হাজার ৩০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ৯ হাজার ৭৯৫ হেক্টর, টংগীবাড়িতে ৯ হাজার ৯শ’ হেক্টর, সিরাজদিখানে ৯ হাজার ৩৫০ হেক্টর, লৌহজেং ৪ হাজার ১শ’ হেক্টর, গজারিয়ায় ২ হাজার ৪৫৫ হেক্টর এবং শ্রীনগরে ২ হাজার ২৫০ হেক্টর জমিতে আলু চায় হয়। মোট আলু উৎপাদনের পরিমান প্রায় ১৪ লাখ ১৬ হাজার মেট্রিক টন।

গত মৌসুমে জমির বর্গা এবং কোল্ড স্টোরেজ ভাড়া বৃদ্ধি পাওয়ায় কৃষকের আলু চাষে মন প্রতি খরচ গত বছরের চেয়ে বেশি পরেছে।

আলু চাষি কালাম হোসেন জানান, মৌসুমের শুরুতে আলুর বিক্রি হয়েছে মাত্র ৮শ’ টাকা। সার, কীটনাশক জমির বর্গা মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় আলুর উৎপাদন খরচ পরেছে বস্তা প্রতি প্রায় ১ হাজার থেকে ১২শ’ টাকা। আলু চাষি পলাশ বেপারী জানান, গত মৌসুমে জমি থেকে আলু ক্রয় করতে হয়েছে ৫০ কেজির বস্তা ৮শ’ ৫০ টাকায়। হিমাগার ভাড়াসহ মোট খরচ পরেছে ১ হাজার ৩০ টাকা। গত এক সপ্তাহ পূর্বে প্রতিবস্তা আলু বিক্রি হয়েছে ৬শ’ থেকে ৭শ’ টাকা। গত এক সপ্তাহে উত্তরাঞ্চরে ব্যাপক চাহিদা থাকায় আলুর মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে এখন বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার টাকা। এতে লোকসান দাড়িয়েছে বস্তা প্রতি ১৫/২০ টাকা।

বেতকা একো কোল্ড স্টোরেজের ম্যানেজার মো. দৌলত আহম্মেদ জানান, চলতি মৌসুমে অধিকাংশ হিমাগার উত্তরাঞ্চলের আলু দিয়ে ৩০ ভাগ পূর্ণ হয়েছে। জেলায় ৬৮টি কোল্ড স্টোরেজে ৫ লাখ টন আলু সংরক্ষণ করা হয়। এখনো ৫০ভাগ আলু হিমাগারে রয়েছে। এদিকে খুচরা বাজারের আলুর মূল্য বৃদ্ধি পেয়ে কেজি প্রতি হয়েছে ১৮ থেকে ২০ টাকা। জানা যায়, দেশে সম্প্রতি অতি বৃষ্টি এবং ভারত থেকে আসা ঢলে উত্তরাঞ্চলে আগাম আলু চাষে ব্যাপক ক্ষতি হয়। অন্যান্য সবজিরও ক্ষতি হওয়ায় আলু চাহিদা সেখানে বেড়ে যায়। উত্তরাঞ্চলে চাহিদা বাড়ায় আলু মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে লাভের মুখ দেখছে বড় কৃষক এবং মধ্যস্বত্যভোগী আলু ব্যবসায়ী।

ইনকিলাব

Leave a Reply