মুন্সীগঞ্জের বিষমুক্ত সবজি কিনতে ভিড়

মুন্সীগঞ্জে কীটনাশক এবং রাসায়নিক সার ছাড়াই আবাদ হচ্ছে সবজি। বিষমুক্ত এসব সবজি কিনতে আসেন দূরদূরান্তের ক্রেতা। আর ছুটির দিনে রাজধানীর ‘কৃষকের বাজার’ এই সবজির পসরা বসে।

মঙ্গলবার সকালে সদর উপজেলার বজ্রযোগিনীর পুকুরপাড়ে গিয়ে দেখা যায় হেমন্তর শিশির ভেজা ভোরে মাঠ থেকে কৃষক শীতের আগাম সবজি তুলতে ব্যস্ত। ফুল কপি তুলে কেটে বিক্রির উপযোগি করছেন। সবুজ পাতার মাঝে সোনালী ফুল দেখে কৃষকের মুখে হাসি।

বিষমুক্ত হওয়ায় এখানকার সবজির ব্যাপক চাহিদা। কপি ছাড়াও লাউ, পুইশাক ও লাল শাকসহ শীতের নানা রকম বিষমুক্ত সবজি বাজারজাতে ব্যস্ত কৃষক।

এখানে সবজি উৎপাদনে ব্যবহার হচ্ছে জৈব সার। কীটনাশকের পরিবর্তে জৈব বলাইনাশক কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জের বজ্রযোগিনী-পুকুরপাড় গ্রাম জুড়ে নিরাপদ সবজি চাষ করে লাভবান হচ্ছে কৃষক। সাপ্তাহিক ছুটির দিনে কৃষি বিভাগের বিশেষ যানে এখানকার দুই টন করে সবজি যায় রাজধানীর সংসদ ভবন সংলগ্ন কৃষকের বাজারে।

বজ্রযোগিনীর উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা সেলিম হোসেন জানান, রাসায়নিক সার এবং কীটনাশক ব্যবহার না করায় উৎপাদন খরচ ২৫ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। বিষমুক্ত সবজির চাহিদা বেশী। তাই কৃষক লাভবান হচ্ছে।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক খুরশীদ আলম বলেন, মানুষ আগে ভাতের উপর নির্ভরশীল ছিল। কিন্তু সারা দেশেই এখন মানুষ ভাতের পাশাপাশি শাক-সবজি, ফলমূল খাওয়ায় অভ্যস্ত হয়ে যাচ্ছে। যার ফলে দিন দিন আমাদের সবজির চাহিদাও বাড়ছে। আর বিশেষ করে যে বিষয়টা সারা পৃথিবীতে চলমান যে খাদ্য নিরাপত্তা এবং নিরাপদ খাদ্য। নিরাপদ খাদ্যের দিকে মানুষের একটা নজর আসছে। যদি মানুষ জানতে পারে এখানে নিরাপদ সবজি পাওয়া যায় তাহলে বেশি মূল্য হলেও তারা এটা সংগ্রহ করবে। যখনই মার্কেটে চাহিদা বাড়বে যারা উৎপাদকারী তাদেরও তখন আগ্রহ বাড়বে। তারাও তখন নিরাপদ সবজি উৎপাদনে উৎসাহী হবে। আর মুন্সীগঞ্জ যেহেতু আলু প্রধান এলাকা কিন্তু অন্য ফসল সবজি যে হয় না তা কিন্তু না। এখানে আলুর পাশাপাশি মিষ্টি কুমড়া, চাল কুমড়া, বাধাবপি, টমেটো, ফুলকপি, লাউ এগুলো প্রচুর হয়ে থাকে। এছাড়া এখানে প্রশুর শাক উৎপাদন হয়। এখানকার সবজির বাজার মূল্য ভালো পায় কৃষক।

কৃষি বিভাগের তথ্যমতে জেলায় এবছর ৪ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে এমন শীতের আগাম সবজি আবাদ হচ্ছে।

জনকন্ঠ

Leave a Reply