মুন্সিগঞ্জে ইছামতীর তীরে নির্মাণ হচ্ছে কেমিক্যাল শিল্প পার্ক

সিরাজদীখানের ইছামতী নদীর তীরে নির্মাণ হচ্ছে বিসিক কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক। বর্তমানে প্রকল্প বাস্তবায়নের অধিগ্রহণ করা জমিতে মাটি ভরাটের কাজ চলছে। চলতি বছরের মধ্যে মাটি ভরাট কাজ শেষ হয়ে যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন প্রকল্প-সংশ্লিষ্টরা। ২০১৯ সালের ১০ জুন একনেকের বৈঠকে অনুমোদিত হওয়ার পর থেকেই সিরাজদীখানে ৩০৮ একর জমিতে কেমিক্যাল শিল্প পার্ক স্থাপনের কর্মযজ্ঞ শুরু হয়। এ শিল্প পার্কটির এক পাশে ঢাকা-দোহার সড়ক এবং অপর পাশে ইছামতী নদী।

এক হাজার ৬১৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সিরাজদীখানে আধুনিক কেমিক্যাল শিল্প পার্ক নির্মাণকাজ নির্ধারিত সময়ে সম্পন্ন করতে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের তাগিদ রয়েছে। এমনকি পুরান ঢাকা থেকে ঝুঁকিপূর্ণ সব কেমিক্যাল ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান একসঙ্গে সরিয়ে ফেলার কাজ দ্রুত সম্পন্ন করতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে নিয়মিত মনিটর করা হচ্ছে বলে দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে।

প্রকল্পের দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, ২০১০ সালের ৩ জুন ঢাকার নিমতলীতে কেমিক্যাল গোডাউনে অগ্নিকাণ্ডে ১২৩ জন প্রাণ হারানোর ঘটনার পর কেমিক্যাল কারখানা সরিয়ে নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রী সংশ্নিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছিলেন। এতে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশন (বিসিক) বুড়িগঙ্গার তীরে কেরানীগঞ্জে কেমিক্যাল পল্লি স্থাপনে প্রকল্প গ্রহণ করলেও তা আর আলোর মুখ দেখেনি। এর মধ্যে চুড়িহাট্টা ট্র্যাজেডিতে ৭১ জন প্রাণ হারানোর পর নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। ৯ বছর আগে নেয়া প্রকল্পের স্থান পরিবর্তন করে ২০১৯ সালের ১০ জুন সিরাজদীখানে ৩০৮ একর জমিতে কেমিক্যাল শিল্প পার্ক স্থাপনের প্রকল্প একনেকে অনুমোদন হয়।

প্রকল্প-সংশ্নিষ্টরা জানান, ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে চুড়িহাট্টার অগ্নিকাণ্ডের বিভীষিকার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরান ঢাকার সব কেমিক্যাল কারখানা দ্রুত স্থানান্তরের কঠোর নির্দেশনা দেন। এরপরই কেমিক্যাল, প্রসাধনী ও প্লাস্টিকের গোডাউন ও কারখানা স্থানান্তরের উদ্যোগ নেয় শিল্প মন্ত্রণালয়। একসঙ্গে ঝুঁকিপূর্ণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো সরাতে এবং ব্যবসায়ীদের নিরাপদে ব্যবসা করতে দেয়ার সুযোগ দিতে সরকার বৃহৎ শিল্প পার্ক নির্মাণের সিদ্ধান্ত ও একনেকে অনুমোদিত হওয়ার ধারাবাহিকতায় সিরাজদীখানে আধুনিক বিসিক কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক নির্মাণ করা হচ্ছে।

বিসিক কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্কের প্রকল্প পরিচালক সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, চলতি বছরের মধ্যে শিল্প পার্কের মাটি ভরাটের কাজ শেষ হবে। এরপর শুরু হবে অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ। এ শিল্প পার্কে থাকা প্রায় আড়াই হাজার প্লট উদ্যোক্তারা অনেক কম দামে পাবেন। এমনকি প্লটের টাকা ৫ থেকে ১০ বছর মেয়াদে পরিশোধের সুযোগ দেয়া হবে। পুরান ঢাকা থেকে একসঙ্গে সব গোডাউন ও কেমিক্যাল কারখানা সহজেই স্থানান্তর করা যাবে। আগামী তিন বছরের মধ্যে সব অবকাঠামো উন্নয়ন করে উদ্যোক্তাদের প্লট বুঝিয়ে দিতে কাজ চলছে।

তিনি আরো জানান, এখানে ফায়ার সার্ভিস ও নিরাপত্তার জন্য আলাদা অফিস স্থাপন করা হবে। তরল বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার (সিইটিপি) স্থাপন করা হবে। কঠিন বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা ব্যবস্থা থাকবে। পাশাপাশি মসজিদ, ডে-কেয়ার সেন্টার, হাসপাতাল, অ্যাসোসিয়েশনের অফিস থাকবে। এ ছাড়া, উদ্যোক্তাদের জন্য গবেষণা কেন্দ্র থাকবে। পাশাপাশি নৌপথে পণ্য পরিবহণের জন্য পাশের ইছামতী নদীতে দুটি জেটি নির্মাণ করা হবে। এক বাক্যে বলা যায় অত্যাধুনিক একটি শিল্প পার্ক নির্মাণকাজ চলছে।

সংশ্নিষ্ট মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, মুন্সিগঞ্জ বিসিক কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক প্রকল্প সংশোধন করার পর বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) ২০২২ সালের জুন নাগাদ এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে কার্যক্রম চলমান রয়েছে। প্রকল্পে প্রায় ২১৫৪টি শিল্প প্লট থাকবে।

নিউজজি

One Response

Write a Comment»
  1. কেমিক্যাল শিল্প পার্ক সিরাজদিখান মুন্সিগঞ্জ বাংলাদেশ এই প্রকল্প খুব ধীর গতিতে এগোচ্ছে দ্রুত কাজ শেষ করা উচিত এবং ক্যামিকেল ব্যবসায়ীদের জন্য বড় একটি শপিং সেন্টার করা হলে ভালো হয়

Leave a Reply