মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে নৌকার ক্যাম্পে আগুন

বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীর রাতে জেলার টঙ্গিবাড়ী উপজেলার কামারখাড়া, বেতকা ও বজ্রযোগেনী ইউনিয়ে নৌকার ক্যাম্প পোড়ানো হয়। এসব ক্যাম্পে আগুনে ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টারসহ চেয়ার পুড়িয়ে দেয়া হয়। এসব ঘটনায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

স্থানীয়রা জানায়, রাতের আঁধারে কে বা কারা নৌকার ক্যাম্পগুলো পুড়িয়ে দিয়েছে সেটা তারা দেখেনি। তাবে তাদের ধারণা, প্রতিপক্ষ স্বতন্ত্র প্রার্থীর কর্মী-সর্মথকরা এসব আগুনের সাথে জড়িত থাকতে পারে।

কামারখাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী মহিউদ্দিন হালদার বলেন, নির্বাচনের প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে টঙ্গিবাড়ী উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীরের অব্যাহতি পাওয়া সাবেক সভাপতি জগলুল হালদার ভুতু ও তার ছেলে আমার প্রতিপক্ষ বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছে। আনারস প্রতীকের লুৎফর হালদার খুুকু ও তার কর্মী-সর্মথকরা নৌকার প্রচার-প্রচারণায় বিভিন্নভাবে বাধা দিয়ে যাচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার গর্ভীর রাতে দৌপড়া পাসা এলাকার নৌকা ক্যাম্প পুড়িয়ে দেয়।

তিনি বলেন, এর আগেও বহিরাগতদের এনে আমার ক্যাম্প পরিচালনাকারীদের বিভিন্নভাবে হুমকি দেয় তারা। আমি এর সুষ্ঠু বিচার এবং নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশের দাবি জানাই।

ক্যাম্প পোড়ানোর অভিযোগ অস্বীকার করে কামারখাড়ার স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী লুৎফর হালদার খুকু বলেন, এটি ষড়যন্ত্র, যাতে আমি বা আমার কর্মী-সর্মথকরা এলাকায় থাকতে না পারি। এজন্য ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। বিষয়টি সঠিকভাবে তদন্ত করলে আসল ঘটনা বের হয়ে আসবে।

টঙ্গিবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোল্লা শোয়েব জানান, ক্যাম্প পোড়ানোর বিষয় নিয়ে তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাংলাদেশ জার্নাল

Leave a Reply