মুন্সিগঞ্জে পিছিয়ে পড়া শিশুদের জন্য স্কুল

সদর উপজেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের পিছিয়ে পড়া শিশুদের জন্য সম্পূর্ষ নব সূর্যদয় পাঠশালা নামে একটি স্কুল শুরু করা হয়েছে। বুধবার (১ ডিসেম্বর) বিকেলে অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার মণিপাড়া এলাকায় এ পাঠশালার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়।

এ পাঠশাটির শুরুর উদ্যোগ নেন মুন্সিগঞ্জ পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিল আব্দুস সাত্তার মুন্সী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রামপাল কলেজের অধ্যক্ষ মো.জাহাঙ্গীর হাসান। এ সময় আরো উপস্থিত সরকারি হরঙ্গা কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুন্সী সিরাজুল ইসলাম, পৌর পেনেল মেয়র সোহেল রানা, নাট্যকার ও নির্দেশক জাহাঙ্গীর আলম, মুন্সিগঞ্জ নাগরিক সমন্বয় পরিষদের আহবায়ক সুজন হায়দার, মুন্সিগঞ্জ সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারন সম্পাদক সাব্বির হোসেন, প্রথম আলোর মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি ফয়সাল হোসেন, মণিপাড়া পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি মিঠুন চন্দ্র দাস, সাধারন সম্পাদক সঞ্চিত কুমার।

পাঠশালাটি পরিচালনায় থাকা ব্যাক্তিদের মধ্যমে জানা যায়, শিশুদের পাঠদানের জন্য তিনজন স্থায়ী এবং তিনজন অস্থায়ী শিক্ষক থাকবেন। সপ্তাহে তিন দিন সকাল থেকে আনন্দ বিনোদনের মাধ্যমে শিশুদের পাঠদান দেয়া হবে। প্রতিদিন শিশুদের জন্য নাস্তার ব্যবস্থা থাকবে। এ বিদ্যালয়ের প্রত্যেকটি শিশুর জন্য শিক্ষা উপকরণের ব্যবস্থা করা হবে। গান, কবিতা, গল্প বিনোদনের মাধ্যমে বাচ্চাদের পড়াশোনার দিকে মনোযোগী করা হবে। পাঠশালার শুরু দিন ৪-৫ বছর বয়সী ৩০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়েছে।

পাঠশাটির শুরুর উদ্যোগতা পৌর কাউন্সিল আব্দুস সাত্তার মুন্সী জানান, মনিপাড়া এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রায় আড়াই থেকে তিন শ পরিবার বাস করে। মানুষ গুলো একেবারে সাধারণ ও নিন্ম আয়ের। এসব পরিবার ও তাদের মধ্য থেকে বেড়ে উঠা শিশুদের মধ্য পড়াশোনার আগ্রহ নেই বললেই চলে। হাতে গোনা যে কয়েকজনের আছে তারাও আর্থিক সংকটের জন্য বাচ্চাদের পড়াশোনা করান না। এর ফলে এ পরিবার গুলো শিক্ষা ও আদর্শ সমাজ গঠন থেকে পিছিয়ে আছে। এখানো তারা কুসংস্কারের মধ্যে আছে। এসব পরিবারের শিশু গুলোকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে আলোতে আনতেই এই পাঠশালা শুরু করা হয়েছে। পাঠশালার কার্যক্রম আপাদত খোলা আকাশের নিচে, বসার জন্য মাটিতে বিছানা পাতা হবে।

অনুষ্ঠানে অতিথিরা বলেন, সমাজ গঠনে শিক্ষার বিকল্প নেই। কাউকে পেছনে ফেলে সভ্যসমাজ নির্মান সম্ভব নয়। সুন্দর আলোকিত সমাজ গঠনে প্রতিটি শিশুকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে তোলতে হবে। যারা পিছিয়ে পড়া শিশুদের জন্য এমন পাঠশালা প্রতিষ্ঠা করেছেন, তারা প্রসংসার দাবিদার।

এ দিন পাঠশালার ৩০ জন ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের মধ্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়।

নিউজজি

Leave a Reply