শ্রীনগরে শ্রমিক সংকটে আলুচাষিরা

চাষের শুরুতেই টানা বৃষ্টির কারণে আলুবীজ বপনকৃত ফসলী জমি প্লাবিত হয়। ১০ দিনের ব্যবধানে এরই মধ্যে উঁচু জমির পানি নিষ্কাশন হতে শুরু করছে। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ঘুরে দাড়াতে জমিতে পুনরায় আলু চাষের স্বপ্ন দেখছেন।

তবে চাষিরা একখ বিপাকে পড়েছেন শ্রমিক নিয়ে অতিরিক্ত মজুরী দিয়েও চাহিদা অনুযায়ী কৃষি শ্রমিক পাচ্ছে না তারা। এই অঞ্চলের বিশাল কর্মযজ্ঞে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত শ্রমজীবি মানুষের ওপর অনেকটাই নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে।

চলতি মাসের প্রথম সপ্তাহের টানা বৃষ্টির কারণে কর্ম হারিয়ে বাড়িতে ফিরে যান হাজার হাজার কৃষি শ্রমিক। এসব শ্রমিক ফিরে আসতে শুরু না করায় শ্রমিক সংকটে পড়েছেন স্থানীয় চাষিরা। শ্রমিকের অভাবে আলুসহ বিভিন্ন ফসলী জমিতে মৌসুমী চাষাবাদে ভোগান্তিতে পড়েছেন তারা। শ্রীনগর উপজেলার বিভিন্ন স্থান ঘুরে আলু চাষিদের সাথে কথা বলে এমনটাই জানা গেছে।

স্থানীয় চাষিরা জানান, কৃষি মৌসুমে রংপুর, কুড়িগ্রাম, চাপাই নবাবগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, ঠাকুরগাঁওসহ বিভিন্ন জেলা থেকে বছরের হাজার হাজার শ্রমিক তাদের শ্রম বিক্রি করতে আসেন। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি। ডিসেম্বরের শুরুতেই টানা বৃষ্টির কারণে আবাদী জমি সব ডুবে যায়। জমিতে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। তাই কর্ম না থাকায় প্রায় ৭০ ভাগ শ্রমিক নিজ নিজ বাড়িতে ফিরে যায়। এতে প্রয়োজনীয় শ্রমিক পাচ্ছেন না।

টানা বৃষ্টির কারণে এই অঞ্চলের কৃষিতে ব্যাপক লোকসানের ভাগিদার হচ্ছেন চাষিরা। নানা প্রতিকূলতার মধ্যে দিয়ে পুনরায় আলুচাষে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন ক্ষতিগ্রস্থ চাষীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, একজন শ্রমিককে তিনবেলা খাবার ও থাকাসহ দৈনিক মজুরী দিতে হচ্ছে সাড়ে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা। এছাড়াও আলু চাষে প্রতি কানি জমিতে (১৪০ শতাংশ) আলু বীজ বপন থেকে শুরু করে ঢাকা পর্যন্ত কাজের জন্য শ্রমিকদের দিতে হচ্ছে ২২ থেকে ২৫ হাজার টাকা। শ্রমিক সংকটের কারণে অতিরিক্ত অর্থ খরচ করেও প্রয়োজনীয় শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছেনা। পুনরায় জমিতে আলু চাষের জন্য বস্তা বীজআলু ১৯০০-২৬০০ টাকা ও প্রতি বাক্স বীজআলু ১২-১৬ হাজার টাকায় সংগ্রহ করতে হচ্ছে কৃষকদের।

এছাড়া কানি প্রতি জমিতে বিভিন্ন সার ব্যবহার করতে হচ্ছে ১৫ থেকে ১৮ বস্তা করে। এরআগে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক আলু চাষের জন্য জমিতে ২২-২৫ বস্তা করে সার প্রয়োগ করেন। আবার সার বিক্রেতারা নিজস্ব প্রতিষ্ঠানের নামে সার বিক্রি করেও চাষীদের কোন রশিদ দিচ্ছেনা।

নিউজজি

Leave a Reply