সময়ের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখির বাসা

মাহবুব আলম জয়: বাবুই পাখিরে ডাকি বলিছে চড়াই,/ কুঁড়ে ঘরে থেকে কর শিল্পের বড়াই!/ আমি থাকি মহা সুখে অট্টালিকা পরে,/ তুমি কত কষ্ট পাও রোদ বৃষ্টি ঝড়ে।/ বাবুই হাসিয়া কয়; সন্দেহ কি তায় !/ কষ্ট পাই তবু থাকি নিজেরই বাসায়।/ পাকা হোক তবু ভাই পরের বাসা,/ নিজ জাকে গড়া মোর কাঁচা ঘর খাসা। মনে পড়ে গেলো ছোট বেলার এই কবিতাটি।

কালজয়ী এই কবিতাটি মুখে মুখে অনেক শোনা যেতো। মানবিক মূল্যবোধের অনন্য দৃষ্টান্তমূলক কবিতাটি আজো মানুষ উদাহরণ হিসাবে ব্যবহার করলেও হারিয়ে যেতে বসেছে বাবুই পাখি ও বাবুই পাখির বাসা। বাবুই পাখির বাসা আজ অনেকটা স্মৃতির অন্তরালে বিলীন হয়ে যাচ্ছে।

অথচ দশক ও দুই দশক আগেও গ্রাম-গঞ্জে তাল, নারকেল ও সুপারি গাছে দেখা যেত বাবুই পাখির নিপুণ কারু কাজে তৈরি দৃষ্টিনন্দন বাসা। সময়ের বিবর্তনে এখন হারিয়ে যাচ্ছে বাবুই পাখির বাসা। মুন্সিগঞ্জে বিভিন্ন গ্রামে এখন আর আগের মত বাবুই পাখির নিপুণ তৈরি করা দৃষ্টিনন্দন বাসা চোখে পড়ে না। এসব বাসা শুধু শৈল্পিক নিদর্শনই ছিল না, মানুষের মনে চিন্তার খোড়াক জোগাত এবং স্বাবলম্বী হতে উৎসাহিত করত।

কিন্তু সময়ের বিবর্তনে ও পরিবেশ বিপর্যয়ের কারণে আজ এ পাখিটি আমরা হারাতে বসেছি। খড়, তাল গাছের কচি পাতা, ঝাউ ও কাশবনের লতা-পাতা দিয়ে উঁচু তালগাছে চমৎকার বাসা তৈরি করতো বাবুই পাখি। সেই বাসা যেমন আকর্ষণীয় তেমনি মজবুত। প্রবল ঝড়েও তাদের বাসা ভেঙে পড়ে না। বাবুই পাখির শক্ত বুননে এ বাসা টেনেও ছেঁড়া যায় না। এ জন্য অনেকেই একে তাঁতি পাখি বলে ডেকে থাকেন।

ফাতেমা বেগম নামে একজন জানান, ছোট বেলা আমরা বাবুই পাখির বাসা দেখতাম। শৈল্পিক বুননে আকৃষ্ট হয়ে পাখিদের কিচিরমিচির শব্দে হারিয়ে যেতাম। কিন্ত এখনকার ছেলে মেয়েরা বাবুই পাখির বাসার সাথে কেবল নামেই পরিচিত।

পাখি প্রেমিক মো. মামুন বলেন, মুন্সিগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামগুলোতে বাবুই পাখির বাসা দেখা যেত এখন তা দেখা যায় না বললেই চলে। এই পাখির বাসা দেখে অনেকেই আত্মনির্ভরশীল হতো। এক শ্রেনীর পাখি শিকারী মানুষেরা পাখি শিকার করে এই পাখিকে বিলুপ্তি করছে।

ক্রমশ পরিবেশদূষণ, মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক, রাসায়নিক সার, ই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে বাবুই পাখির খাবার ছোট ছোট পোকা-মাকড়ও কমে গেছে। যার ফলে এদের খাদ্যসংকটও একটা মারাত্মক সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাছাড়া বিষাক্ত কীটনাশক ও শস্যদানা খেয়ে অনেক বাবুই পাখির অকালে মৃত্যু ঘটছে। কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে হয়তো অদূর ভবিষ্যতে এদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন হবে। তাই এখনই নিতে হবে উদ্যোগ।

নিউজজি

Leave a Reply