মুন্সীগঞ্জে শিকলে বেঁধে তরুণকে নির্মম নির্যাতন

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে উপজেলার চরখাসকান্দিতে প্রেম করার ‘অপরাধে’ সাইফুল ইসলাম রাজন নামে এক যুবককে গাছের সঙ্গে বেঁধে বর্বরোচিত নির্যাতন করেছে কনের স্বজনরা।

বালুচর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বর মো. জয়নালের বাড়িতে শনিবার (৮ জানুয়ারি) বিকেল ৪টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সাবেক এই ইউপি মেম্বরের পুত্র মো. আলমগীর তার বাড়িতে ডেকে সঙ্গে ভাতিজা ইউনুস মিয়াকে নিয়ে বর্বর নির্যাতন চালায়।

পরে এলাকাবাসী সিরাজদিখান থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে রাজনকে উদ্ধার করে প্রথমে নিমতলা প্রাইভেট ক্লিনিক ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, পরে গুরুতর অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, ইউনুস মিয়ার বোন এক সময় সাইফুল ইসলাম রাজনের সহপাঠী ছিল। ওই মেয়ের ‍আগে অনত্র বিয়ে। বিয়ের পর রাজন ইউনুসের বোনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং তাকে নিয়ে পালিয়ে যায়। তাই বোনকে ফিরে পেতে ইউনুসের পরিবার থানায় মামলা করে। পরে পুলিশ তার বোনকে উদ্ধার করে নিজ বাড়িতে এবং প্রেমিক রাজনকে গ্রেফতার করে জেলে পাঠায়। পরে জামিনে মুক্তি পায় রাজন।

রাজনের পরিবারের অভিযোগ, গত ৮ জানুয়ারি মোবাইল ফোনে রাজনকে ডেকে নেয় মেয়ের চাচা আলমগীর হোসেন। সরল বিশ্বাসে সাইফুল ওই বাড়িতে যায়। পূর্ব পরিকল্পনা মতো গাছের সঙ্গে বেঁধে আদিযুগের বর্বরোচিত কায়দায় দুই ঘণ্টা ধরে অমানবিক নির্যাতন করে শত মানুষের সামনে।

রাজনের নানা জজ মিয়া বলেন, আমার নাতির অবস্থা খুবই খারাপ। আমরা তাকে বাঁচানোর জন্য ঢাকায় চিকিৎসা করাচ্ছি। মাথার দুই স্থানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। আর শরীরের সবখানেই আঘাত আর জখম। মৃত্যুর সাথে লড়ছে সে। হাত-পা বেঁধে আসর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত মেরেছে তারা। জানিনা আমার নাতির ভাগ্যে কী আছে! আমি এর সঠিক বিচার চাই।

রাজন চর গুলগলিয়া গ্রামের আবুল হোসেনের পুত্র। তিনি অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ার পর কেরানীগঞ্জের কাপড়ের দোকানে কর্মচারীর কাজ করতো।

অভিযুক্ত মো. আলমগীর বলেন, গত দুই মাস আগে আমার ভাতিজিকে অপহরণ করে রাজন। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। আর ছেলেটিকে আমরা জেলে দিয়ে দিই। রাজন হাইকোর্ট থেকে জামিনে এসেছে এক সপ্তাহ আগে। এসেই আমাদের হুমকি দিয়েছে। পরে শুক্রবার দিন খোঁজখবর নিয়ে দেখে আমাদের বাড়িতে লোকজন কম আছে। এ দেখে লোকজন নিয়ে ভাতিজিকে উঠিয়ে নিতে আসে। তখন আত্মীয়-স্বজনরা ধরে তাকে গণধোলাই দিছে।

সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন বলেন, এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা হয়েছে। আসামিদের আটকে চেষ্টা চলছে।

সময় টিভি

Leave a Reply