মুন্সীগঞ্জে প্রবাস থেকে ফিরে বাড়ি ছাড়া

৯ বছর পর জর্দান থেকে ফিরে পাঠানো টাকা ও অর্জিত সম্পদের হিসেব চাওয়ায় মাহফুজা আক্তারকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে তার পরিবার। তিনি অভিযোগ করেন, তার আপন ছোট ভাই শাহীন, হামিদুল মোল্লা ও বোনরা মিলে অর্থ-সম্পদ দখলে নিয়ে তাকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দিয়েছে। এ ব্যাপারে নির্যাতিতা মাহফুজা লৌহজং থানায় একটি অভিযোগ করেছেন।

মাহফুজা লৌহজং উপজেলার গাঁওদিয়া ইউনিয়নের ঘোলতলী বাজার সংলগ্ন দিদার মোল্লার মেয়ে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, মাফুজা আক্তার প্রায় ৯ বছর প্রবাসে ছিলেন। তার বিদেশ থেকে পাঠানো টাকায় তার পরিবার চলত। এ ছাড়া বাড়িতে নতুন ঘরথ তোলা, ঢাকায় ও লৌহজংয়ে দোকান কেনা এবং এলাকায় জমি কেনা হয়েছে। গত নভেম্বর মাসে তিনি প্রবাস থেকে বাড়িতে আসেন। বাড়িতে আসার পর তার পরিবারের লোকজন মিলে তার কাছে থাকা নগদ টাকা, অলঙ্কার, পাসপোর্ট ব্যাগ নিয়ে যায়। পরে তিনি স্বর্ণালঙ্কার ও টাকার হিসাব চাওয়ায় বিভিন্ন সময়ে তাকে মারধর করা হয়। সর্বশেষ বাড়ি থেকেও তাড়িয়ে দেয় পরিবারের সদস্যরা। বাধ্য হয়ে তিনি অন্য বাড়িতে ভাড়া থাকছেন। সেখানেও তাকে মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগী মাফুজা আক্তার ও এলাকাবাসী। এ ছাড়া গত বুধবার ঘোলতলী বাজারে মাহফুজাকে মারধরের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ছড়িয়ে পড়েছে।

মাফুজা আক্তার বলেন, আমি প্রায় ৯ বছর প্রবাসে থেকেছি। পরিবারের সুখের জন্য ঘর, বাড়ি, দোকান ও জমি কিনেছি। ২২ লাখ টাকাও দিয়েছি। কিন্তু আজ আমার পরিবারের সবাই আমাকে পাগল বলে এবং আমাকে মারধর করে।

এ দিকে মেয়েকে মারধরের ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে বাবা দিদার মোল্লা বলেন, আমার মেয়ের মাথা ঠিক নেই। আমরা ওকে ওষুধ দিয়ে ঠিক করার চেষ্টা করছি। ভাই শাহীন ও হামিদুল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আপনারা আমার পরিবারের লোজনের সাথে এসে কথা বলুন। আমার বোন মিথ্যা বলছে।
লৌহজং থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর রহমান জানান, গত বৃহস্পতিবার দুপুরে মাহফুজা আক্তার থানায় এসে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন আপন ভাই ও পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে তদন্ত সাক্ষেপে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নয়া দিগন্ত

Leave a Reply